সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারতের ‘দ্বিতীয়’ নাকি শ্রীলঙ্কার ‘প্রথম’

D Malinga২০০৭ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর জোহানেসবার্গের নিউ ওয়ান্ডারার্সে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ট্রফিটা হাতে উঠিয়েছিল ভারত। এর পরের তিন আসরে অনেকটাই মলিন আইপিএলের উর্বর ভূমির বাসিন্দারা। তবে এবারের বিশ্বকাপে ভিন্ন মেজাজে মহেন্দ্রে ধোনির ভারত। গ্রুপ পর্বের প্রত্যেকটি ম্যাচ জিতে আনায়াসেই ফাইনালে নাম লিখিয়েছে তারা। এখন ভারতের সামনে সোনালী ইতিহাসের হাতছানি। অন্যদিকে প্রতিশোধ নেয়ার জন্য ছটফট করছে শ্রীলঙ্কা। রোববার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ঠিক তিন বছর তিন দিন বাদে আইসিসির আরেকটি বিশ্ব আসরে শিরোপা লড়াইয়ে মুখোমুখি ভারত মহাসাগর পাড়ের প্রতিবেশী এই দেশ দুটি।

মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড় স্টেডিয়ামে ২০১১ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনালে শিরোপা হাসি হেসেছিল ভারত। এর দুই বছর বাদে ইংল্যান্ডে গিয়ে চ্যাম্পিয়নস ট্রফ্রি জেতে ভারত। এবার আইসিসির আরেকটি টুর্নামেন্টে আরেকটি বিশ্ব জয়ের পালা। অর্থাৎ, বিশ্ব আসরে টানা তিন খেতাব জয়ের অনন্য একটি কীর্তির সামনে ‘টিম ইন্ডিয়া’। শুধু কী তাই? মিরপুরে রবিবাসরীয় মহারণে জয় পেলে ভারত বিশ্বের প্রথম দল হিসেবে দুবার বিশ-কুড়ির বিশ্বকাপ জয়ের কৃতিত্ব গড়বে। তাছাড়া এক্ষেত্রে ধোনির নামটাও বিশ্বজয়ীদের ক্ষেত্রে সর্বাগ্রে স্থান পাবে। কারণ, রেকর্ড বইয়ে রাঁচির তরুণই হবেন তিনটি বিশ্বকাপজয়ী প্রথম অধিনায়ক। অধিনায়ক হিসেবে দুটি করে বিশ্বকাপ জয়ের নজির আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্লাইভ লয়েড ও অস্ট্রেলিয়ার রিকি পন্টিংয়ের। সেক্ষেত্রে আজ ধোনির সামনে ওই দুই কিংবদন্তিকে ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকছে।

এবার আসা যাক শ্রীলঙ্কার কথায়। ফাইনালে মুখ থুবড়ে পড়ার অগৌরব রুখতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ লঙ্কানরা। ২০০৭ থেকে ২০১৪ সাত বছরের মধ্যে আইসিসির টুর্নামেন্টে এটা মাহেলা জয়বর্ধনে ও কুমার সাঙ্গাকারাদের পঞ্চম ফাইনাল। কিন্তু আগের চারটি ফাইনালেই খালি হাতে ফিরতে হয়েছে লঙ্কানদের। ২০০৭ ও ২০১৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপে শিরোপা জয়ের শেষ ধাপে হার বরণ করতে হয় মালিঙ্গাদের। এর মাঝে ২০০৯ ও ২০১২ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালেও একই পরিণতি হয় তাদের। এবার তাই এই কুফাটা কাটাতে চায় শ্রীলঙ্কার সোনালী এই প্রজন্ম।