বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেসির সঙ্গেই নিজের মিল পেয়েছেন পেলে

২০০৯ সালে মাত্র ১৭ বছর বয়সে নেইমার যখন সান্তোসের হয়ে খেলা শুরু করেছিলেন, তখন অনেকের চোখেই ভেসে উঠেছিল কিংবদন্তি পেলের ছবি। দুজনেই ব্রাজিলীয়। প্রায় একই রকম বয়সে দুজনেই খেলা শুরু করেছিলেন সান্তোসের হয়ে। তবে ব্রাজিলের তিনবারের বিশ্বকাপজয়ী ফুটবলার পেলে কিন্তু নেইমারের সঙ্গে না, নিজের মিল খুঁজে পেয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসির সঙ্গে। ‘ব্লেচার রিপোর্ট’ নামের একটি অনলাইন ক্রীড়া পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে সম্প্রতি এমন মন্তব্যই করেছেন এই ব্রাজিলীয় কিংবদন্তি। কথা বলেছেন মেসি-রোনালদো, বার্সেলোনা ও অবশ্যই ব্রাজিলের বিশ্বকাপ সম্ভাবনা নিয়ে। 

প্রশ্ন: এখনকার কোন খেলোয়াড়কে দেখলে আপনার নিজের কথা মনে পড়ে? কার মধ্যে আপনি নিজের ছায়া দেখতে পান?

পেলে: মেসির সঙ্গেই আমার বেশি মিল আছে। আমি সান্তোসে যে পজিশনে, যে ভূমিকায়, খেলতাম, সেও এখন সেভাবেই খেলছে।

প্রশ্ন: বিশ্বকাপ নিয়ে ব্রাজিলের প্রত্যাশা অনেক বেশি। বিশ্বকাপ জয়ের মিশনে কে ব্রাজিলকে নেতৃত্ব দিতে পারবে বলে মনে করছেন?

পেলে: বিশ্বকাপের সময় ব্রাজিলের সব খেলোয়াড়কেই তাদের সেরাটা দিতে হবে। একজন তারকা খেলোয়াড় আপনাকে বিশ্বকাপ জিতিয়ে দেবে না। সবচেয়ে বড় কথা, টুর্নামেন্টটা সফলভাবে আয়োজন করার জন্য আর ষষ্ঠবারের মতো শিরোপা জয়ের জন্য আমাদের পুরো দেশের মানুষের সমর্থন দরকার।

প্রশ্ন: বর্তমান সময়ে খেলতে হলে আপনি কোন ক্লাবে খেলতে চাইতেন? কেন?

পেলে: বার্সেলোনার খেলার ধরনটা আমি সত্যিই পছন্দ করি। এই দলে আমি নিশ্চিতভাবেই জাভি, ইনিয়েস্তা, মেসি, নেইমারদের মতো দারুণ খেলোয়াড়দের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারতাম।

প্রশ্ন: মেসি আর রোনালদোকে অনেকেই সর্বকালের সেরা পাঁচ খেলোয়াড়ের তালিকায় বিবেচনা করছেন। আপনি কি এটাকে ঠিক মনে করেন?

পেলে: মেসি আর রোনালদো নিশ্চিতভাবেই এ সময়ের সেরা পাঁচ খেলোয়াড়ের তালিকায় থাকবে। তারা তরুণ আর দুজনেই জাতীয় দলের জার্সি গায়ে তাদের প্রথম বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের জন্য উদগ্রীব হয়ে আছে।

প্রশ্ন: এখন যে রকম হালকা বল দিয়ে খেলা হয় আর আক্রমণ ভাগের খেলোয়াড়দের সুরক্ষা দেওয়া হয়, তাতে এই সময়ে খেললে আপনার ক্যারিয়ারটা ভিন্ন রকম হতে পারত বলে মনে করেন কি?

পেলে: আমি যে সময়ে খেলতাম, তার চেয়ে এখন ফরোয়ার্ডরা অনেক সুরক্ষিত থাকে। আমার খেলোয়াড়ি সময়ে লাল কার্ড বা হলুদ কার্ড ছিল না। এখন সংবাদমাধ্যম আর প্রযুক্তির কারণে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের সম্পর্কে জানাটাও অনেক সহজ। আমি তখন ভিন্ন একটা পরিস্থিতিতে খেলতাম। আমার মনে হয়, আমি যদি আজকের মতো আধুনিক অগ্রগতিগুলো পেতাম, তাহলে আরও ভালো খেলোয়াড় হতে পারতাম। 

প্রশ্ন: এবার শেষ প্রশ্ন। ব্রাজিল কী এবার বিশ্বকাপ জিতবে?

পেলে: বিশ্বকাপ সব সময়ই থাকে বিস্ময়ে ভরা। সেলেসাওদের ভক্ত হিসেবে আমি অবশ্যই চাই ব্রাজিল বিশ্বকাপ জিতুক। ১৯৫০ সালের ফাইনালে মারাকানায় উরুগুয়ের বিপক্ষে হারের পর আমি আমার বাবাকে প্রথমবারের মতো কাঁদতে দেখেছিলাম। আর আমি চাই না আমার ছেলে আমাকে কাঁদতে দেখুক।

এ জাতীয় আরও খবর