বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মাদকে গ্রাস করছে তরুণদেরকে, ঝরে পড়ছে অসংখ্য প্রতিভা — আজম রাজু

 স্কুলে পড়ার সময় অসৎ বন্ধুদের সঙ্গ দোষে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে অনেক উঠতি বয়সের ছেলেরাই। শুরুটা ফেন্সিডিল বা ইয়াবা ট্যাবলেট দিয়ে হলেও পরবর্তীতে হেরোইন, প্যাথেডিন, গাঁজা বাদ যায়নি কোনোটাই। প্রায় সব ধরনের মাদকই নিয়ে থাকে ঐ সব ছেলেরা। তবে ইয়াবা ও প্যাথেডিনেই বেশি আসক্তি হয় থাকে। নেশায় গ্রস্থরা সারাক্ষণই সে নেশায় বুঁদ হয়ে থাকে। নেশার টাকার অভাব পড়লেই পরিবারে উপর জুড়ে শুরু করে দেয় অশান্তি আর নির্যাতন। এক সময় যে আদরের ছেলেটা সারাটা বাড়ী হই-হুল্লোড় করে ঘর উজ্জ্বল করে রাখতো, সেই আদরের টুকরা মা-বাবার মানিক রতন হয়ে উঠে এক সময় পরিবারের জন বোঝা, বাবা-মার জন্য নরক যন্ত্রণা ও কান্না। ¯কুল কলেজে ভালো ফলাফল করলেও মাদকে জড়িয়ে পড়ায় কর্ম জীবনের লক্ষে পৌছাতে পারেনি মা-বাবার সেই পুর্ণিমার চাঁদটি। কোন এক সময় তাকে বাড়ী থেকে টাকা খরছ করে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করিয়ে দিতে হয় মাদক মুক্ত করার চিকিৎসা অবশেষে ফলাফল শুন্য। সারা দেশে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়–য়া এমন হাজার হাজার তরুণ-তরুণী ইয়াবা, ফেনসিডিল, হেরোইনসহ হরেক রকম মাদকের বিষাক্ত ছোবলে পড়ে দিকভ্রান্ত হয়ে পড়ছে। আর এতে শঙ্কিত তাদের অভিভাবকরা। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরসহ বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশের নিয়মিত অভিযান এবং সরকারি ও বেসরকারিভাবে প্রচুর সচেতনতা ক্যাম্পেইন করার পরও মাদকের ব্যবহার বন্ধ করা যাচ্ছে না। তরুণ সমাজে মাদকের ভয়াবহতা ক্রমশ বাড়ছেই। ইদানীংকালে হেরোইন, ফেনসিডিলের ব্যবহার কিছুটা কমলেও ভয়াবহ আকার ধারণ করছে মারণনেশা ইয়াবার ব্যবহার। বহনে সহজলভ্য হওয়ায় স্কুল-কলেজ ও ইউনিভার্সিটি পড়–য়া ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ইয়াবার ব্যবহার বর্তমানে মহামারি আকার ধারণ করছে। শুধু ছেলেরাই নয়, মেয়েদের মধ্যেও ইয়াবায় আসক্তি হওয়ার হার বাড়ছে মারাত্মক হারে। যা সমাজের জন্য চরম ভীতিকর বলে মন্তব্য করে যাচ্ছেন আমাদের দেশের বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, মাদকের অপব্যবহার তরুণদের মেধা ও মননকে ধ্বংস করে দেয়। বিনষ্ট করে সুপ্ত প্রতিভা ও সুস্থ ধারার চিন্তাকে। মাদক গ্রহণের ফলে শরীরের স্নায়ুবিক ভারসাম্য ভেঙ্গে পড়ে। মাদকদ্রব্য সবচেয়ে বেশি ক্ষতিসাধন করে মস্তিষ্ক এবং কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের। ফলে তারা স্বাভাবিক চিন্তা করতে পারে না। মাদকাসক্ত ব্যক্তিটি যেমন সমাজের ক্ষতির কারণ হয়ে থাকে তেমনি একটি পরিবারকে নিঃস্ব করে দিয়ে, বয়ে আনে দুঃসহ যন্ত্রণা। সূত্রমতে জানা যায়, বাংলাদেশে অনেক আগে থেকে মাদকের প্রচলন থাকলেও মূলত আশির দশকে নারকোটিকস জাতীয় ড্রাগের অনুপ্রবেশের পর থেকে মাদক সমস্যার ব্যাপকতা লাভ করতে থাকে। নব্বইয়ের দশকে ফেনসিডিলে ভেজাল মেশানোতে এর গুণগত মান কমে যায়। যার কারণে বিপুল সংখ্যক ফেনসিডিল সেবী হেরোইনের ওপর ঝুঁকে পড়ে। ওই সময় দেশে হেরোইনের রমরমা ব্যবসা শুরু হয়। পরবর্তীতে হেরোইনেও ভেজাল মেশানো হয়। এসব ভেজাল মাদক সেবন করে বিভিন্ন ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া শুরু হয় সেবনকারীদের শরীরে। যে কারণে মাদকসেবীরা ফেনসিডিলের মতো হেরোইনকেও দূরে সরাতে থাকে। এই সুবাদে কাছে টেনে নেয় আর এক মারণনেশা ইয়াবাকে এবং যা দ্রুত সমাজের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। বলা যায়, ইয়াবার ব্যবহার বর্তমানে মহামারি আকার ধারণ করেছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের গোয়েন্দা তথ্যে সম্প্রতি দেখা গেছে, ইয়াবায় আসক্তরা শুধু সেবনকারীই নয়, ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ইয়াবা ব্যবসায়ীতে পরিণত হয়ে যাচ্ছে। অন্য ধরনের মাদকসেবীদের ক্ষেত্রে অতীতে যা এতো ব্যাপকতা লাভ করেনি। শিক্ষিত, অশিক্ষিত, ধনী, দরিদ্র সব শ্রেণীর ইয়াবা সেবনকারীরা এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে। বিষয়টি স্বীকার করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের গোয়েন্দা বিভাগের পরিচালক মজিবুর রহমান পাটোয়ারী আমাদেরকে জানান, মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর ইয়াবা বহনে সহজলভ্য হওয়ায় এবং ভুল ধারণা থেকে এটা দ্রুত সমাজে বিস্তার ঘটেছে। ইয়াবা ট্যাবলেট আকারে খুব ছোট হওয়ায় এটা শার্টের কলারের ভাঁজে কিংবা দুই আঙ্গুলের ফাঁকে রেখেও বহন করা যায়। ফলে কে কখন কোথায় কিভাবে ইয়াবা বহন করে নিয়ে যাচ্ছে তা প্রতিরোধ করা আমাদের জন্য খুব কঠিন হয়ে পড়ছে। অন্যদিকে তরুণ প্রজন্মের কাছে ইয়াবা সম্পর্কে ভুল ধারণা চালু রয়েছে যে, এটা সেবন করলে সিøম থাকা যায়। ক্লান্তি আসে না। রাত জেগে পড়া যায়Ñ ইত্যাদি। কিন্তু এই ধারণাগুলো ভুল। কিছু দিন পুর্বে ঢাকার উত্তরা থেকে কলেজ পড়–য়া এক তরুণীকে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করা হয়। সে একই সঙ্গে ইয়াবাসেবী ও ব্যবসায়ী। জিজ্ঞাসাবাদে ওই তরুণী বলেছে, সে দেখতে মোটা। ইয়াবা সেবন করলে সিøম হওয়া যায়। কিন্তু দীর্ঘদিন ইয়াবা সেবনের পরও এখনো মোটাই রয়ে গেছে। এখন ইয়াবায় আসক্ত হয়ে পড়ায় এটা ছাড়তেও পারছেন না। প্রতিদিন তার ৪/৫টি ইয়াবা ট্যাবলেট দরকার হয়, যার মূল্য ১,২/১৫শ টাকা। কিন্তু প্রতিদিন তার পক্ষে এতো টাকা জোগাড় করা সম্ভব নয় বলে নিজের নেশার টাকা জোগাড় করতে সে নিজেই ইয়াবা ব্যবসায় নেমেছে। এভাবেই আজ সে ইয়াবাসেবী থেকে, একদিন সে ক্ষুদ্র ইয়াবা ব্যবসায়ীতে পরিণত হয়েছে। অতীতে আর কোনো মাদকের এতো দ্রুত ব্যাপকতা লাভ করেনি। তরুণ প্রজন্মের মন থেকে ইয়াবা সম্পর্কে ভুল ধারণা দূর করতে স্কুল-কলেজের শিক্ষকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন বলে মনে করেন অনেকেই। ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশে ইয়াবার আবির্ভাব ঘটে। পরবর্তী সময়ে ২০০০ সাল থেকে সীমান্ত পথে থাইল্যান্ড ও মায়ানমার থেকে চোরাচালান হয়ে তা দেশে অনুপ্রবেশ করতে থাকে। প্রথম দিকে উচ্চমূল্যের কারণে ইয়াবার প্রচলন সীমাবদ্ধ ছিল শুধু উচ্চবিত্ত ব্যক্তিদের মধ্যেই। পরে উত্তেজক এ ট্যাবলেটটির উপকরণ চোরাইপথে এনে দেশের ভেতরেই তা তৈরি করা শুরু হলে দাম কিছুটা কমতে থাকে। ফলে উচ্চবিত্তের গন্ডি ছাড়িয়ে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত তরুণ-তরুণীদের মধ্যেও ইয়াবার বিস্তার ঘটে। তবে র‌্যাব, পুলিশের কঠোর অভিযানের কারণে দেশের ভেতরে ইয়াবা তৈরি বন্ধ থাকলেও সীমান্ত দিয়ে চোরাইপথে বিশেষ করে মায়ানমার হয়ে কক্সবাজার, টেকনাফ দিয়ে ইয়াবার বড় বড় চালান বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। অন্যদিকে ভারত সীমান্ত দিয়ে ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক দেশে প্রবেশ করছে। পরে তা রাজধানীসহ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ছে। র‌্যাব, পুলিশ ও বিজিবির নিয়মিত অভিযানের পরও মাদকের চোরাচালান বন্ধ হচ্ছে না। গোয়েন্দা সূত্রমতে, এই ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে মায়ানমার সরকারের কিছু উচ্চপদস্থ ব্যক্তি জড়িত। বাংলাদেশ-মায়ানমার সীমান্তের অন্তত ১৫টি স্থানে ৩৭টি ইয়াবার কারখানা গড়ে উঠেছে। সেখান থেকে চোরাইপথে কক্সবাজার-টেকনাফ সীমান্ত দিয়ে দেশে প্রবেশ করছে মরণ নেশা ইয়াবার চালান। কিছুদিন আগে এক অনুষ্ঠানে বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, ইয়াবা নিয়ে বিজিবি খুবই উদ্বিগ্ন। কিন্তু মায়ানমার সীমান্তে নিয়োজিত বাহিনী ‘লুনথিন’-এর সঙ্গে বিজিবি এখনো কোনো যোগাযোগ করতে পারেনি। এ কারণে তারা কোনো কার্যকর পদক্ষেপ ও নিতে পারছেন না। এদিকে কক্সবাজার ও টেকনাফের কিছু ভিআইপি ব্যক্তি ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত বলে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা আমাদরকে জানান, কক্সবাজার ও টেকনাফ সীমান্ত এলাকায় ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায় জড়িতদের শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলাও দেয়া হচ্ছে। ধীরে ধীরে তাদের বিরুদ্ধে আরো কঠোর ব্যবস্থা নেয়া বলেও জানান তিনি। বাংলাদেশ মাদকাসক্ত চিকিৎসা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র ‘বারাকা’র এডিকেটর এডিকেশন জাকিউল আলম মিলটন বলেন, যে কোনো মাদকই মস্তিষ্কে বিকৃতি ঘটায়। যার কারণে স্বাভাবিক চিন্তা করতে পারে না। মাদকসেবনকারী বিভিন্ন ভাবে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে এগোতে থাকে। তবে এটি হয় যখন ওই ব্যক্তি মাদকাসক্ত থাকে। কিন্তু ইয়াবার ক্ষেত্রে ভিন্নতা রয়েছে। ইয়াবা সেবন করতে করতে এক পর্যায়ে সব সময়ের জন্য মস্তিষ্ক বিকৃতি ঘটে থাকে। তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে ইয়াবা শরীরে উত্তেজনা বাড়িয়ে দেয়। মন থেকে ভয়ভীতি দূর করে দেয়। যার কারণে সে বুঝতে পারে না কী করবে। সব সময় সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগে। এক সময় কঠিন ও ভয়ঙ্কর কোনো সিদ্ধান্ত এক নিয়ে ফেলে ইয়াবা সেবনকারী। এক পর্যায়ে ইয়াবা সেবনকারী ধীরে ধীরে তার পাশেই একটি অবাস্তব জগৎ তৈরি করতে থাকে। কল্পনায় সে তার চারপাশের মানুষদেরকেই শক্র ভাবতে শুরু করে। আত্মীয়-স্বজন, ভাই-বোন-স্ত্রী-মেয়েদের বেলা স্বামী-সন্তান, বাবা-মা সবাইকে শক্র ভাবতে শুরু করে। একটি পর্যায়ে গিয়ে ইয়াবা সেবনকারী নিজেকেই শক্র ভাবতে শুরু করে। সে তখন অদৃশ্য শব্দ শুনতে পায় এবং অদৃশ্য কোনো ব্যক্তি বা বস্তু দেখতে পায়। তার কাছে মনে হয় তার নিজের ছবিই তাকে হত্যা করবে। কাউকেই বিশ্বাস করতে পারে না। এমনকি নিজেকেও না।