শুক্রবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৫ উপজেলাতেই বর্তমান চেয়ারম্যানগন ধরাশায়ী

news-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ৯টি উপজেলার মধ্যে ৭টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন শেষ হয়েছে। উপজেলা গুলো হচ্ছে নাসিরনগর, সরাইল, আশুগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, নবীনগর, আখাউড়া ও কসবা। সীমানা ও মামলাজনিত জটিলতায় জেলার বাঞ্ছারামপুর ও নব-গঠিত বিজয়নগর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের এখনো তফসিল ঘোষনা করা হয়নি। শোনা যাচ্ছে আগামী জুন মাসে এই দু’টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করা হবে। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি জেলার সরাইল উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে এই জেলায় উপজেলা নির্বাচন শুরু হয়। শেষ হয়েছে গত ৩১ মার্চ আশুগঞ্জ, সদর ও কসবা উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে। ৭টি উপজেলার মধ্যে ৫টি উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যানগন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। দুটি উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যানরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি। জেলার নাসিরনগর, সরাইল, আশুগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ও নবীনগর উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যানগন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করলেও আখাউড়া ও কসবা উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যানগন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করেননি। ৫টি উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যানগন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি সরাইল উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।  নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান (কাপ-পিরিচ) ৩৯ হাজার ১শ ৩৪ ভোট পেয়ে  বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি নির্দলীয় প্রার্থী ওসমান উদ্দিন আহমেদ খালেদ (মোটর সাইকেল) পান ১৮ হাজার ৭শত ৪০ ভোট। কিন্তু আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর (ঘোড়া) পান মাত্র ১৫ হাজার ২শত ৭৮ ভোট। গত ১৫ মার্চ নবীনগর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম (দোয়াত-কলম) ৫৮ হাজার ৪শত ৩২ ভোট পেয়ে বে-সরকারি ভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মোঃ মলাই মিয়া (মোটর সাইকেল) পান ৩১ হাজার ৮শত ১২ ভোট, আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী সাইফুর রহমান সোহেল (আনারস) পান ২৭ হাজার ২শত ভোট। কিন্তু বর্তমান চেয়ারম্যান এবং আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জিয়াউল হক সরকার (ফেজ টুপি) পান মাত্র ৪ হাজার ২শত ১৭ ভোট। গত ২৩ মার্চ অনুষ্ঠিত হয় আখাউড়া ও নাসিরনগর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। নাসিরনগর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এ.টি.এম. মনিরুজ্জামান সরকার (আনারস) ৫৯ হাজার ২শ ২১ ভোট পেয়ে বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক এম.এ.হান্নান (মোটর সাইকেল)  পান ৩৮ হাজার ৫শ১৬ ভোট। কিন্তু বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিজেপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ আহসানুল হক মাস্টার (ঘোড়া) পান মাত্র ১২ হাজার ২৯৫ ভোট। আখাউড়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি প্রকৌশলী মুসলিম উদ্দিন (আনারস) ২৪ হাজার ২২ ভোট পেয়ে বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আবুল কাশেম ভূঁইয়া (কাপ-পিরিচ) পান ২১হাজার ১৮৯ ভোট। এই উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ বোরহান উদ্দিন আহমেদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করেননি। গত ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত হয় আশুগঞ্জ, কসবা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী ও সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (কাপ-পিরিচ) ৫৭ হাজার ৫শ ৮৯ ভোট পেয়ে বে-সরকারি ভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি হাজী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর পান ৩৬ হাজার ৫শ ৫৪ ভোট। কিন্তু বর্তমান চেয়ারম্যান ও নির্দলীয় প্রার্থী বশির উল্লাহ জরু (ফেজ টুপি) পেয়েছেন মাত্র ৬১০ ভোট। আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে বিএনপির সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আবু আসিফ আহম্মেদ (আনারস) ২৬ হাজার ৬শ ৯৯ ভোট পেয়ে বে-সরকারি ভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হানিফ মুন্সী (কাপ পিরিচ) পান ২৩ হাজার ৩শ ৬ ভোট। কিন্তু বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আনিসুর রহমান (দোয়াত-কলম) পেয়েছেন ১৬ হাজার ১শ ৫৯ ভোট। কসবা উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আনিছুল হক ভূইয়া (মোটর সাইকেল) ৯৬ হাজার ৭শ ৯৪ ভোট পেয়ে বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ ইকলিল আজম (আনারস) পান ৩০ হাজার ২শ ১২ ভোট। এই উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান রুহুল আমিন ভূইয়া বকুল নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করেননি।

এ জাতীয় আরও খবর