শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হলে ঢোকার আগেই কাহিল পরীক্ষার্থীরা

‘আইছি সেই কেরানীগঞ্জ থাইক্যা। এই মাত্র মাইয়া পরীক্ষার হলো ঢুকল। আরও দুই-তিনজনও এই মাত্র ঢুকছে। ঢাকা শহরের যা অবস্থা তাতে সব একবারে শুরু না কইরা শিফটে শিফটে শুরু করোন দরকার।’ কথাগুলো বলছিলেন রাজধানীর উদয়ন স্কুল অ্যান্ড কলেজের একজন এইচএসসি পরীক্ষার্থীর অভিভাবক নুরুন্নবী বেগ। তাঁরা এসেছেন কেরানীগঞ্জ থেকে। তাঁর মেয়ে যখন পরীক্ষা হলে প্রবেশ করে, তখন সময় সকাল ১০টা ১০! যানজটে আটকে ছিলেন তাঁরা।

রাজধানীর রায় সাহেববাজার এলাকা থেকে উদয়ন স্কুল অ্যান্ড কলেজে এসেছেন খাদিজা বেগম ও তাঁর মেয়ে। তবে তিনি মনে করেন, ১০টার সময় যে পরীক্ষার সময়সূচি আছে, সেটা পরিবর্তন করার দরকার নেই। তাঁর মতে, ঢাকা শহরের মানুষ দেরি করে ঘুম থেকে ওঠে। আর নয়টার মধ্যে অফিসে মানুষ চলে যায়। ১০টায় পরীক্ষা সঠিক আছে।

মিরপুর ১২ নম্বর থেকে একমাত্র সন্তানকে নিয়ে হলিক্রস কলেজ কেন্দ্রে এসেছেন তাজিন মাহমুদ। সকাল আটটায় বেরিয়ে পরীক্ষার হলে আসতে পেরেছেন ১০টা বাজার পাঁচ মিনিট আগে। দুই ঘন্টা আগে বেরিয়ে সময়মতো হলে পৌঁছতে না পেরে হতাশ তিনি। তিনি মনে করেন, যানজট আর মানবজটের হাত থেকে রক্ষা না পেলে রাজধানীতে বসবাস করাই সম্ভব হবে না।

অন্য আরেকজন অভিভাবক খলিলুর রহমান বললেন, এমনিতে প্রচণ্ড গরম। তার ওপর যানজট। পরীক্ষার হলে ঢোকার আগেই বাচ্চারা কাহিল।

এইচএসসি পরীক্ষার প্রথম দিনেই এ রকম যানজট আর গরমে নাকাল হয়েছেন পরীক্ষার্থী আর অভিভাবকেরা। অনেক বেশি সময় হাতে নিয়ে বাসা থেকে রওনা হওয়ার পরও নির্দিষ্ট সময়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছতে হিমশিম খেতে হয়েছে তাঁদের।

আরেক অভিভাবক শহীদ জাফর বলেন, ‘যানজটের ভয়ে সকাল আটটায় রওনা দিয়েছিলাম। কিন্তু সেই যানজটেই আটকে গেলাম।’ তাঁর পরামর্শ, সরকারি-বেসরকারি অফিসের সময়ে এইচএসসি পরীক্ষার সময় নির্ধারিত থাকার কারণে যানজটের এই ঢাকায় সমস্যায় পড়তে হয়। এ জন্য নতুন করে ভাবার পরামর্শ দেন তিনি।

তেজগাঁওয়ের সরকারি বিজ্ঞান কলেজের সামনে কথা হলো সাজিয়া ইসলাম লোপার সঙ্গে। একমাত্র সন্তানকে পরীক্ষাকেন্দ্রে পাঠিয়ে অপেক্ষা করছিলেন তিনি। খিলগাঁওয়ের বাসিন্দা এই অভিভাবক বেশ ক্ষোভ প্রকাশ করলেন ট্রাফিক জ্যাম নিয়ে।

বেশির ভাগ অভিভাবকই মনে করেন, পরীক্ষা নিয়ে নতুন করে ভাবার সময় এসেছে। পরীক্ষা দিতে যাওয়ার সময় মানসিক চাপ নিয়ে শিক্ষার্থীরা যখন পরীক্ষা কেন্দ্রে যায়, তখন তাদের ওপর মানসিক চাপ পড়ে। আর এ চাপে ভেঙে পড়ে অনেক শিক্ষার্থী। পরীক্ষায় আশানুরূপ ফল পায় না। এ বিষয়ে নতুন ভাবনার সময় এসেছে বলে করেন তাঁরা।

পরীক্ষার সময় পরিবর্তন নিয়ে অভিভাবকদের দাবি দীর্ঘদিনের। এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অবস্থান পরিষ্কার। সময় পরিবর্তন নিয়ে তারা ভাবছে না। আন্তশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান তাসলিমা বেগম প্রথম আলোকে বলেন, ‘যানজটের কারণে ঢাকা মহানগরে সমস্যা হয়, এটা অস্বীকার করার উপায় নেই। কিন্তু এসএসসি-এইচএসসি পাবলিক পরীক্ষা। অনেক সময় দুই শিফটে পরীক্ষা নিতে হয়। সে জন্য পরীক্ষার সময় পরিবর্তন সম্ভব নয়।’

এ প্রসঙ্গে অভিভাবকদের দাবি, সময় পরিবর্তন হোক আর না হোক, মন্ত্রণালয় শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি কমাতে উদ্যোগ নেবে এটাই তাঁদের প্রত্যাশা। সেটা সময় পরিবর্তন করে হোক কিংবা অন্য যেকোনোভাবেই হোক।

এ জাতীয় আরও খবর