বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শ্রীলংকা-ওয়েস্ট ইন্ডিজের আজ প্রথম সেমি ফাইনাল

WI SLটি-২০ বিশ্বকাপের পর্দা নামার সময় ঘনিয়ে এলো। মিরপুর আর চট্টগ্রাম মিলিয়ে সুপার টেনের ৩২টি ম্যাচ শেষ। এবার বৃহস্পতিবার প্রথম ১ম সেমিফাইনাল আর শুক্রবার দ্বিতীয় সেমিফাইনাল। ৬ এপ্রিল ফাইনাল দিয়ে যবনিকা ঘটবে সংক্ষিপ্ত বিশ্বকাপের ৫ম আসরের। যেকোনো বিশ্বকাপের ফাইনাল মানেই অন্য রকম উত্তেজনা। কিন্তু টি-২০ বিশ্বকাপের ফাইনালের আগেই বিশ্ব ক্রিকেট সেমিফাইনালে দেখবে অন্য রকম এক ম্যাচ। যেখানে থাকবে প্রতিশোধের জ্বালা। আর শিরোপা ধরে রাখার লড়াই। কারণ প্রথম সেমিফাইনালে যে প্রতিপক্ষ ২০১২ টি-২০ বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলা শ্রীলংকা আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বিশ্বকাপের ফাইনালের আগেই ফাইনালের স্বাদ পাবে ক্রিকেট বিশ্ব। মজার বিষয়Ñ এ দুই দলের আগের ৫টি টি-২০ মোলাকাতই হয়েছে টি-২০ বিশ্বকাপে। এবার নিয়ে ৬ বার। সেটাও বিশ্বকাপেই।

বুকে কষ্টের কাটা গেঁথে থাকার মর্ম বাংলাদেশ জানে। ২০১২ সালের এশিয়া কাপের ফাইনালে নিজ মাটিতে ২ রানের ব্যবধানে পাকিস্তানের বিপক্ষে হেরে ছিল বাংলাদেশ। সেই জ্বালা যেমন কোনোদিন মিটবে না, তেমনি ২০১২ সালে শ্রীলংকার নিজ মাটি কলম্বোয় টি-২০-র ৪র্থ আসরের ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হেরেছিল ৩৬ রানে। সেই জ্বালায় জ্বলছে লংকানরা।

দুবছরের ব্যবধানে প্রতিশোধ নেওয়ার সুযোগ এসেছে। হেলায় ছেড়ে দিতে চাইবে না দুর্দান্ত ফর্মে থাকা লংকান দল। তাই বলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কী ফেলে দেওয়ার পাত্র। প্রশ্নই ওঠে না। ‘লাখে একটা’Ñ বলে যে প্রবাদ আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বেলায় সেটাই প্রযোজ্য। ২০১৪ সালের আগে দুদল টি-২০ ম্যাচে ৫ বার মুখোমুখি হয়েছে। ২০০৯ সালের টি-২০ বিশ্বকাপের গ্র“প পর্বে ১৫ রানে লংকা জয় পায়। তাতে ২০০৯ সালের টি-২০ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে শ্রীলংকা ৫৭ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে ফাইনালে টিকিট কেটেছিল। ২০১০ টি-২০ বিশ্বকাপেও লংকা ৫৭ রানে জয় পায়। আর ২০১২ সালে গ্র“প ম্যাচে ৯ উইকেটে জিতেছিল লংকা। টানা প্রথম চার ম্যাচে জিতেছে শ্রীলংকা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সেই প্রতিশোধ নিয়েছে ৩ বছর পর। একটাই আঘাত করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২০১২ টি-২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে। যা ছিল দুদলের ৫ম সাক্ষাৎ। একবারই জিতেছে তাও কি-না ফাইনালে।

এখন প্রশ্ন ২০০৯ সালের বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের পুনরাবৃত্তি কি আবার ঘটবে। আর শ্রীলংকা কি ২০১২ সালের ফাইনালের ৩৬ রানের শোধ নিতে পারবে। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কতটা শক্তিশালী তা তো গ্র“প পর্বে প্রমাণিত। ভারতের কাছে হার বাদ দিয়ে সুপার ফর্মে আছে বর্তমান টি-২০ চ্যাম্পিয়নরা।

দলীয় পরিসংখ্যানে লংকা এগিয়ে। তেমনি দুদলের ব্যাটসম্যানদের ব্যক্তিগত পরিসংখ্যানেও লংকানরা এগিয়ে। ২০০৯ সালে টি-২০ বিশ্বকাপের গ্র“প ম্যাচে দিলশান করেছেন ৪৭ বলে ৭৪ আর জয়সুরিয়া ৪৭ বলে ৮১। ওই ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রাভো ৩৮ বলে ৫১ রান ছাড়া বলার মতো কিছু নেই। এবং ২০০৯ সালের সেমিফাইনালে দিলশান ৫৭ বলে অপরাজিত ৯৬ করেন এবং ক্রিস গেইল করেছিলেন ৫০ বলে ৬৩ রান। 

২০১০ বিশ্বকাপে জয়সুরিয়া করেছিলেন ৫৬ বলে ৯৮ এবং সাঙ্গাকারা ৪৯ বলে ৬৮। সে ম্যাচে সারোয়ানের ২৮ই ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যক্তিগত সেরা সংগ্রহ। ২০১২ সালের বিশ্বকাপে স্যামুয়েলের ৩৫ বলে ৫০ আর ব্রাভোর ৩৪ বলে ৪০ সেরা। লংকান জুয়সুরিয়ার ৪৯ বলে ৬৫ আর সাঙ্গাকারার ৩৪ বলে ৩৯ রান। ২০১২-র ফাইনালে স্যামুয়েলসের ৫৬ বলে ৭৮ রানই সেরা। ওই ম্যাচে জয়সুরিয়ার ৩৬ বলে ৩৩, সাঙ্গাকারার ২৬ বলে ২২ আর কুলাসিকারার ১৩ বলে ২৬।

এ জাতীয় আরও খবর

সীমান্তে কাউকে ঢুকতে দেব না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬৭৯

২ বাংলাদেশিকে অপহরণ করেছে ‘রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা’

রাজনীতিতে কালো মেঘ দেখা যাচ্ছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

অবসরের পরও অস্ত্রধারী পুলিশের নিরাপত্তা পাবেন বেনজীর

লাঠির সঙ্গে জাতীয় পতাকা নিয়ে নামলে খবর আছে: ওবায়দুল কাদের

ব্রিটেনের রানির মৃত্যুর কারণ প্রকাশ

২ বছর আগেই ছেলের মা হন বুবলী, বাবা শাকিব

‘জবাবদিহির আওতায় না আনা পর্যন্ত র‌্যাবের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা থাকবে’

সালমান-ভীতি; নায়ক :জারিন খান

গৃহকর্মীদের জীবন নিরাপদ করতে উদ্যোগ নেবে সরকার: পরিকল্পনামন্ত্রী

‘সালমানের জন্য ওটিটি নয়, তিনি বড় পর্দার মানুষ’