বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নতুন করে মুখোমুখি দুই পুরোনো শত্রু

লা লিগার শিরোপা জয়ের জন্য জোর লড়াই চালাচ্ছে বার্সেলোনা ও অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। স্প্যানিশ দুই পরাশক্তি আজ মুখোমুখি হচ্ছে ইউরোপসেরার লড়াইয়েও। ম্যাচের আগে দুই দলের শক্তিমত্তা-দুর্বলতা, তারকাদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স—এসব আলোচনাতেই সরগরম থাকার কথা ইউরোপিয়ান ফুটবল অঙ্গন। কিন্তু সবকিছু ছাপিয়ে আলোচনায় চলে এসেছে দুই কোচের পুরোনো শত্রুতার ইতিহাস। ২৬ বছর আগের একটি পুরোনো যুদ্ধের প্রভাবই আজ পড়তে যাচ্ছে মেসি-কস্তাদের লড়াইয়ে।



ঘটনাটি ১৯৮৮ সালের। বার্সেলোনার কোচ জেরার্ডো মার্টিনো ও অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের কোচ ডিয়েগো সিমিওনে তখন খেলতেন আর্জেন্টাইন লিগে। সেই বছরের জানুয়ারিতে তাঁরা একে অপরের মুখোমুখি হয়েছিলেন। সিমিওনে তখন ১৮ বছরের তরুণ। মার্টিনো ২৮ বছর বয়সী অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার। সেই ম্যাচে সিমিওনের জন্য খুবই তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছিল মার্টিনোকে। সিমিওনেকে ফাউল করার দায়ে লাল কার্ড দেখতে হয়েছিল বার্সেলোনার বর্তমান এই কোচকে। মজার ব্যাপার হলো মিনিট দশেক পরে সিমিওনেও দেখেছিলেন লাল কার্ড। অতিরিক্ত অভিনয় করে যে রেফারিকে প্রভাবিত করেছিলেন, সেটা সম্প্রতি স্বীকারও করে নিয়েছেন সিমিওনে। মার্টিনোর সঙ্গে পুরোনো শত্রুতার কথা জানিয়ে অ্যাটলেটিকোর এই কোচ বলেছেন, ‘সেটা ছিল মাঠের একটা ঘটনা। তিনি কোনো কিছুতে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন, আমিও কিছুটা বাড়াবাড়ি করেছিলাম আর শেষ পর্যন্ত রেফারি তাঁকে লাল কার্ড দেখিয়ে দিয়েছিলেন। ১০ মিনিট পরে আমারও একই পরিণতি হয়েছিল। সম্ভবত রেফারি তাঁর আগের সিদ্ধান্তের খেসারত দিতে চেয়েছিলেন।’



এবারের মৌসুমে এর আগেও তিনবার মুখোমুখি হয়েছে বার্সেলোনা ও অ্যাটলেটিকো। তিনবারের একবারও নির্ধারণ হয়নি জয়-পরাজয়। প্রথমবার ড্র হয়েছিল ১-১ গোলে। পরের দুবারই গোলশূন্য ড্র করে মাঠ ছেড়েছিলেন মেসি-ডিয়েগো কস্তারা। এবার চ্যাম্পিয়নস লিগে নিশ্চয়ই জয়ের জন্য মরিয়া হয়েই মাঠে নামবেন সিমিওনে ও মার্টিনোর শিষ্যরা। দুই কোচের পুরোনো শত্রুতার কাহিনিও যে এই লড়াইয়ে নতুন মাত্রা যোগ করবে, সেটাও বলার অপেক্ষা রাখে না।— রয়টার্স