শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এইচ.এস.সি পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতি ও করণীয়

supanul islamসোপানুল ইসলাম : পরীক্ষা একটি শিক্ষার্থীর সারা বছরের লেখাপড়া বা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অর্জিত জ্ঞানের পরিসংখ্যান। পাবলিক পরীক্ষাগুলো প্রতিটি শিক্ষার্থীর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একটি শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ লক্ষ্যের প্রতিফলন শুরুই হয় এসএসসি/এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলের উপর ভিত্তি করে। একটু অসাবধানতার কারণে অনেক সময় একটি শিক্ষার্থীর সারাজীবনের সম্ভাবনার পরিসমাপ্তিও ঘটতে পারে। আবার একটি মনোযোগী ও সাবধানী শিক্ষার্থী তার সারাজীবনের সাফল্যের বীজটিও এখান থেকে সুন্দর করে বপন করতে পারে। তাই লেখাপড়া যেটুকু করার শিক্ষার্থীরা তো করেছেই এখন শুধু তাদের পরীক্ষা ও পূর্বপ্রস্তুতির কিছু বিষয় একটু স্মরণ করিয়ে দেওয়া- যাতে তার এগিয়ে যাওয়ার পথটি সুগম হয়। 

১। আজই এডমিট কার্ড ও রেজিষ্ট্রেশন কার্ড’র কোড অনুযায়ী পরীক্ষার রুটিন মিলিয়ে নিবে। 
২। রুটিনে পরীক্ষার সময়সূচীটি ভাল-ভাবে দেখে নেবে। বিশেষ করে পরীক্ষার সময় (সকল/বিকাল)     বার ও তারিখ এবং বিজ্ঞান, মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা বা ইসলামী শিক্ষা ইত্যাদি অনুযায়ী আজই     রুটিনে তোমার নিজের পরীক্ষার বিষয়গুলো দাগ দিয়ে নেবে এবং সহপাঠী ও শিক্ষকের সাথে                যোগাযোগ করে মিলিয়ে নেবে। 
৩। পরীক্ষার হলে সময়জ্ঞান একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই তোমার পরীক্ষার মান কত নম্বরের বা সময় কতক্ষণ পূর্ব থেকেই জেনে নেবে এবং ঠিক করে রাখবে। 
৪। প্রশ্ন নম্বর ও বিভাগ এবং উত্তর এর সংখ্যা- কয়টি কোন বিভাগ থেকে উত্তর করতে হবে বা  সর্বমোট কয়টি উত্তর করতে হবে। পরীক্ষার সময় তাড়াহুড়া না করে মাথা শান্ত রেখে পরীক্ষায়     অবর্তীণ হওয়াও একটি পরীক্ষা।
৫। ব্যবহারিক পরীক্ষার সময়সূচী ও বিষয় ভালভাবে জেনে নেবে। 
৬। কোন কারণে পরীক্ষার সময়সূচী পরীবর্তন হলে অত্যন্ত সতর্কতার সাথে দায়িত্বশীল কোন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে জেনে নেবে। 
৭। প্রতিদিন এডমিট কার্ড ও রেজিষ্ট্রেশণ কার্ড’র মূলকপি নিয়েই পরীক্ষার হলে যেতে হবে। তাই বাড়ী থেকে বের হওয়ার পূর্বেই এডমিট কার্ড ও রেজিষ্ট্রেশন কার্ড চেক করে নাও। 
৮। বাড়িতে এডমিট কার্ড ও রেজিষ্ট্রেশন কার্ডের একটি ফটোষ্ট্যট কপি সংরক্ষণ করবে। যাতে করে  কোন প্রকার প্রয়োজনের সময় তা কাজে লাগতে পারে। 
৯। পরীক্ষার হলে নির্ধারিত সময়ের ৩০ মিনিট আগেই পৌঁছে যাবে। যাতে করে অবাঞ্ছিত কারণে রাস্তায় বিলম্ব হলেও সঠিক সময়ে হলে পৌঁছাতে পার। 
১০। এডমিট কার্ড এর রোল নং ও রেজিষ্ট্রেশন নং স্পষ্ট করে বোঝে নিবে যাতে করে উত্তরপত্র বা অতিরিক্ত খাতায় বা ব্যবহারিক পরীক্ষার খাতায় বা স্বাক্ষর সিটে কোড নম্বর যেন লিখতে ভুল না হয় বা রোল এর জায়গায় রেজিষ্ট্রেশন নম্বর না হয় বা রেজিষ্ট্রেশনের জায়গায় রোল নং না হয়। 
১১। প্রশ্নপত্র দেখে কোড নম্বর লিখবে।
১২। প্রশ্নপত্র ও এডমিট কার্ডের কোড নম্বর মিলাবে। কেননা পুরাতন সিলেবাসের ছাত্র/ছাত্রীদের  প্রশ্নপত্র ও তোমাদের নিয়মিত ছাত্র/ছাত্রীদের প্রশ্নপত্র ভিন্ন হতে পারে তাই ভাল করে দেখে নেবে। 
১৩। উত্তরপত্রের পৃষ্ঠা গুণে নেবে। কেননা কোন কারণে পৃষ্ঠা সংখ্যা কম-বেশি হলে তোমার উত্তরপত্র বাতিল ও হয়ে যেতে পারে। 
১৪। উত্তর-পত্র, ও অতিরিক্ত খাতার স্বাক্ষর দেখে নেবে কোন কারণে পূর্ববর্তী পরীক্ষার উত্তর পত্র বা অতিরিক্ত খাতা এসে যেতে পারে। তাই তারিখ বা স্বাক্ষর ঠিক কি না দেখে নেবে। 
১৫। সৃজনশীল প্রশ্নপত্রের ব্যান্ডেল প্রশ্নগুলো একসাথে/উত্তর করতে হয়। তাই প্রশ্নের ধারাবাহিকতা  অবলোকন করবে। 
১৬। চিত্র ভিত্তিক বা তথ্যবহুল বা চার্ট বা সারণী ভিত্তির প্রশ্নের উত্তর করতে বেশি চেষ্টা করবে। 
১৭। কোন প্রশ্নের উত্তরে ইংরেজি বা অন্য কোন ভাষায় কোন উদ্বৃতি দিতে চাইলে অবশ্যই বাংলায় অর্থ লিখে দিতে হবে। 
১৮। পরীক্ষার প্রতিটি প্রশ্নেই উত্তর করতে চেষ্টা করবে। তোমার অভিজ্ঞতা থেকে হলেও কিছু লিখে দিয়ে আসবে। কোন প্রশ্নের উত্তর আনডান / আনট্রাই রাখবে না। 
১৯। লাল বা নীল কালি দিয়ে উত্তর পত্রে লিখবে না। 
২০। পরীক্ষা পূর্ব রাতে ৬-৮ ঘন্টা ভালভাবে ঘুমের কোন বিকল্প নেই। কোন ভাবেই পূর্বরাতে গভীর     রাত পর্যন্ত জেগে লেখাপড়া করবে না। 
২১। পরীক্ষার ৭দিন পূর্বে থেকেই কারো কাছে কোন বই বা নোট সীট বা কোন স্ট্যাডি মেটেরিয়াল     থাকলে তা নিজের কাছে রেখে দাও; যাতে করে পরীক্ষার পূর্বমুর্হুতে কোন কারণে সমস্যায় পড়তে     না হয়। 
২২। পরীক্ষা হলে কখনো কোন প্রকার পারফিউম ব্যবহার করবে না। কেননা, একটি নির্দিষ্ট সময়ের  পর তা অনেকের কাছেই বিরক্তি উৎপাদন করে।
২৩। মুখে কোন প্রকার ফাউন্ডেশান বা ক্রিম ব্যবহার করলে মুখের     তাপ সঠিক মাত্রায় বিরাজ করে না। মুখের অসংখ্য ছিদ্রপথ গুলো বন্ধ হয়ে মুখের উষ্ণতা বেড়ে যায় ফলে অনেক সময় অসস্থি লাগে     বা মাথা ব্যাথা করে, বা বমি আসে বা কান গরম হয়ে যায় বা মাথা ঘুরায় ইত্যাদি হয়ে থাকে। 
২৪। মনে রাখবে, পরীক্ষার হলের এই ৩ ঘন্টা সময় তোমার ১২ বছরের সাধনার ফসল, তোমার     শিক্ষক বা বাবা-মার অনেক স্বপ্ন বা সম্ভাবনার রূপ রেখা। তা যেন কোন কারণেই নিঃশেষ হয়ে না     যায়। পরীক্ষার সময় হলের ভেতরে বা বাহিরে কোথায়ও কারো সাথে কোন প্রকার ঝগড়া বা     বিতর্কে যাবে না। 
২৫। পরীক্ষার হলে শিক্ষকদের সাথে কোন প্রকার দুর্ব্যবহার বা অমার্জিত আচরণ করবে না।     মনে রাখবে পরীক্ষার হলে এই ৩ (তিন) ঘন্টা মহামূল্যবান সময়ে সম্মানিত এই শিক্ষকই তোমার     অত্যন্ত আপনজন। তিনিই তোমার অনেক সমস্যার সমাধান করে দিতে পারবেন, ইনশাল্লাহ। 
২৬। প্রতিদিন গোসল করে পরীক্ষা দিতে যাবে। তাতে করে সারাদিনে বা রাতে পড়ার চাপে পরিশ্রান্ত     ভাব অনেকটা দূর হবে এবং শরীরে বেশি বেশি অক্সিজেন প্রবেশ করবে, ফলে শরীরে তাপ সহ     ব্রেন কাম্যস্তরে (আলফা লেভেলে) অবস্থান করবে। 
২৭। পরীক্ষার হলে ঢুকার পূর্বেই তোমার পকেট বা মানি ব্যাগ বা ভেনেটি ব্যাগ সব কিছুই চেক করে      নেবে। যাতে করে তোমার সাথে কোন প্রকার অবাঞ্ছিত কাগজপত্র বা মোবাইল বা এ জাতীয়     কোন কিছু না থাকে। 
২৮। পরীক্ষার হলে ঠোঁট মুখ শুঁকিয়ে গেলে বা কান গরম হয়ে গেলে বা কোন প্রকার অস্বস্থি লাগলে-     অল্প একটু পানি খেয়ে নেবে বা মুখটা একটু ধোঁয়ে নেবে। 
২৯। বা-মা, শিক্ষক-শিক্ষিকা ও মুরুব্বীদের দোয়া নেবে। 

লেখক : অধ্যক্ষ, আইডিয়াল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া । 

এ জাতীয় আরও খবর