সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘মুন্না ভাই, সাল্লু ভাই’ নির্মাতাকে সালমানের সতর্কবাণী

বলিউডের প্রভাবশালী দুই তারকা অভিনেতা সঞ্জয় দত্ত ও সালমান খানকে নিয়ে ডকু-ড্রামা ‘মুন্না ভাই, সাল্লু ভাই’ তৈরির কাজ হাতে নিলেও সালমানের সতর্কবাণী পাওয়ার পর কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন নির্মাতা মুয়াজ্জেম বেগ।



‘মুন্না ভাই’ সিরিজের ছবিতে নাম ভূমিকায় অভিনয়ের কল্যাণে তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছেন সঞ্জয় দত্ত। অনেকে তাঁকে ‘মুন্না ভাই’ নামেও ডাকেন। অন্যদিকে, সালমানের নামকে সংক্ষিপ্ত করে অনেকে ‘সাল্লু ভাই’ বলে সম্বোধন করেন। তুমুল জনপ্রিয় এ দুই তারকা ও তাঁদের ভক্তদের কীর্তিকলাপ ফ্রেমবন্দী করার উদ্দেশ্যে ‘মুন্না ভাই, সাল্লু ভাই’ শিরোনামে ডকু-ড্রামা তৈরির কাজ হাতে নেন মুয়াজ্জেম বেগ। তাঁর রচনা ও পরিচালনায় প্রথম ছবি ‘সাদ্দা আড্ডা’ মুক্তি পেয়েছিল ২০১২ সালে। এ ছাড়া রণবীর কাপুর অভিনীত ‘রকস্টার’ ছবির কাহিনি যৌথভাবে লিখেছিলেন মুয়াজ্জেম। 



‘সাল্লু ভাই’ নামটি ব্যঙ্গাত্মক হওয়ায় তা ছবির শিরোনামে ব্যবহারে আপত্তি তুলেছেন ‘দাবাং’ তারকা সালমান। অনুমতি না নিয়েই ছবির শিরোনামে সালমানের নামের অপব্যবহারের কারণ দেখিয়ে সম্প্রতি মুয়াজ্জেমকে সতর্কবাণী পাঠানো হয় সালমানের অফিস থেকে। অন্যথায় আইনি নোটিশ পাঠানো হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ‘মুন্না ভাই, সাল্লু ভাই’য়ের কাজ বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন মুয়াজ্জেম। সম্প্রতি এক খবরে এমনটিই জানিয়েছে মিড-ডে ডটকম। 

এ প্রসঙ্গে সালমানের কাছের একটি সূত্র জানিয়েছে, ‘ছবির প্রচারণা বাড়াতে সালমানের নাম ব্যবহার না করার জন্য প্রথমে ই-মেইলের মাধ্যমে নির্মাতাকে সতর্ক করা হয়। কিন্তু তিনি আমাদের কথা কানেই তোলেননি। পরে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়ে তাঁকে সতর্কবাণী পাঠাই।’ 

এদিকে মুয়াজ্জেম বেগ জানিয়েছেন, ‘এই প্রোজেক্টে আমি ৫০ লাখ রুপি বিনিয়োগ করেছি। ছবিটির ৩০ শতাংশ শুটিংও শেষ। ছবিটির মাধ্যমে সালমানের এক অন্ধ ভক্তের গল্প আমি বলতে চেয়েছিলাম। এর কাজ শেষ করতে পারলে খুব ভালো হত। কিন্তু ছবিটির কাজ বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি।’

মুয়াজ্জেম আরও জানিয়েছেন, ‘সঞ্জয় দত্ত কারাদণ্ড পাওয়ার পরপরই আমি ছবিটির নাম ঘোষণা করেছিলাম। সঞ্জয় দত্তের পক্ষ থেকে কোনো রকম আপত্তি তোলা হয়নি। কিন্তু সালমান খান আপত্তি তুলেছেন। আসলে ভুলটা আমারই। শুটিং শুরুর আগেই ছবিতে তাঁদের নাম ব্যবহার করার অনুমতি নেওয়া উচিত ছিল আমার। তাহলে এত বিপুল অঙ্কের আর্থিক ক্ষতির মুখে আমাকে পড়তে হত না।’