সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লাখো কণ্ঠে সুর মিলিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়লো বাংলাদেশ

amiবিশ্ব ইতিহাসে নাম লেখালো ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালবাসি।’ কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত। রাজধানীর জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে বেলা ১১টা ২০ মিনিটে তিন লাখেরও বেশি কণ্ঠে গাওয়া হলো কালজয়ী, দেশপ্রেমের অনন্য সাধারণ বানী সমৃদ্ধ এই সংগীত। কে কণ্ঠ মেলাননি! প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্য, সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ, বিশিষ্ট নাগরিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, পোশাকশ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ, কেউই বাদ যাননি। পুরো অনুষ্ঠানের সংগীত পরিচালনা করেন বিশিষ্ট সুরকার স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের শব্দসৈনিক সুজেয় শ্যাম। এখন শুরু গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির অপেক্ষা।

‘লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা’ গেয়ে বিশ্ব রেকর্ড করতে ভোর থেকেই জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ড অভিমুখে লাখো মানুষের ঢল নামে। দীর্ঘ লাইন ধরে প্যারেড গ্রাউন্ডের ভেতরে প্রবেশ করেন নানা শ্রেণী-পেশার লাখো মানুষ। ময়দানে প্রতি ৫০ জন লোককে নিয়ে একটি ব্লক করা হয়। মোট ব্লক ছয় হাজার। সাড়ে ১০টার পর উপস্থিত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পর অনুষ্ঠিত হয় মহড়া। বেলা ১১টা আট মিনিটে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী। মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে সবাইকে শুভেচ্ছা জানান তিনি।  মোট দুই লাখ ৫৪ হাজার ৬৮১ জনকে গণনা করা হয়েছে। তবে জাতীয় সংগীত গেয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়তে প্যারেড গ্রাউন্ডে তিন লাখের বেশি মানুষ উপস্থিত হয়েছেন। বেলা ১১টা ২০ মিনিটে তিন লাখেরও বেশি কণ্ঠে গাওয়া হয় গানটি। বিশ্ব দেখলো প্রয়োজনে এক হতে পারে বাঙালি জাতি। কণ্ঠ মেলাতে পারে একসুরে।