সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইতিহাসের অংশ হতে পারবে সবাই

532d9ac8ba9ad-imagesবাংলাদেশের ৪৩তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা অনুষ্ঠানে জাতীয় সংগীত গেয়ে ইতিহাসের অংশ হতে পারবে যে কেউ। ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে রাজধানীর জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে এ আয়োজন।



আজ শনিবার জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে কর্মসূচি নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। অনুষ্ঠানের ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা কমিটির নিয়ন্ত্রক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শরাফত হোসেন সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান।



সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, অনুষ্ঠান স্থলে প্রবেশ শুরু হবে সকাল সাড়ে ছয়টা থেকে। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর পরিবেশনায় দেশবরেণ্য এবং খ্যাতনামা শিল্পীদের অংশগ্রহণে আয়োজন করা হবে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাঝেই গাওয়া হবে জাতীয় সংগীত। সকাল পৌনে ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বেলা ১১টায় লাখো কণ্ঠে ধ্বনিত হবে জাতীয় সংগীত। অনুষ্ঠানে থাকবে কঠোর নিরাপত্তা। অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) সরাসরি সম্প্রচার করবে। অন্য বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বিটিভির মাধ্যমে তাদের নিজস্ব চ্যানেলে অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার করতে পারবে। পাশাপাশি বাংলাদেশ বেতারও অনুষ্ঠানটির সরাসরি সম্প্রচার করবে।



শরাফত হোসেন বলেন, গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে বাংলাদেশের নাম অন্তর্ভুক্তি করাই মূল উদ্দেশ্য। প্রথম তিন লাখ মানুষ জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে সমবেত হওয়ার সুযোগ পাবে। যদি আটটার মধ্যে সেখানে তিন লাখ লোক হয়ে যায়, তাহলে এর একজনও বেশি লোককে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। যে যেখানে থাকবে, সেখান থেকেই অংশ নেবে। তিনি জানান, সশস্ত্র বাহিনী থেকে তিন স্তরের নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার আগেই প্যারেড গ্রাউন্ডে শিল্পকলা একাডেমীর তত্ত্বাবধানে জাতীয় সংগীতের অনুশীলন চলবে।



সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আয়োজনের প্রস্তুতির প্রাথমিক অবস্থায় জাতীয় সংগীত অনুশীলনে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের সদস্য, বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, পোশাকশিল্পের কর্মীসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার প্রতিনিধিরা অংশ নিচ্ছে। জাতীয় সংগীতের প্রমিত পরিবেশন নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোতে জাতীয় শিল্পকলা একাডেমীর তৈরি জাতীয় সংগীতের একটি অডিও সিডি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। জাতীয় চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে এই উদ্যোগটি সফল করতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণার বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।



উদ্যোগটির ফেসবুক পেজে (www.facebook.com/LakhoKonthe) ইতিমধ্যে ৪৭ হাজার ৭৩০ জন অনুসারী আছেন। ‘লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা’র আনুষ্ঠানিক ওয়েবসাইটটি(www.lakhokonthe.com) চালু করার পর ইতিমধ্যেই ৮১ হাজার ৩৯০ জন দর্শক সাইটটি দেখেছেন। জনগণের জন্য প্রমিত গীত জাতীয় সংগীতটি ওই ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়েছে।



সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির কমিশনার বেনজীর আহমেদ বলেন, অনুষ্ঠান সফল করতে পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ এস এম আরিফ, আজমল কবির, মনির আলম, মো. শরাফত হোসেন, লে. কর্নেল কামরুল হাসান প্রমুখ।