বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২২ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় টর্নেডোর ভয়াল স্মৃতির দিন ।

Tornadoডেস্ক রিপোর্ট : 

২২ মার্চ সবে সন্ধ্যা নেমে আসছে। হঠাৎ পশ্চিম দিক থেকে লাল-কালো রঙের দমকা হাওয়া প্রচণ্ড গতিবেগে ধেয়ে আসে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার তিনটি ইউনিয়নে। 



কোন কিছু বোঝার আগেই তিন-চার মিনিটের মধ্যে ভয়াল টর্নেডোর আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় কয়েকটি গ্রামের হাজারো ঘরবাড়ি, গাছপালা, দোকানপাট, স্কুল-কলেজসহ বিভিন্ন স্থাপনা। কিছুক্ষণ পর ধ্বংসস্তুপ আর মরদেহ ছাড়া কিছুই দেখেনি মানুষ।

 

শনিবার (২২ মার্চ) ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, আখাউড়া ও বিজয়নগর উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সেই টর্নেডোর ভয়াল স্মৃতির দিন। ২০১৩ সালের এই দিনে ভয়াল টর্নেডোর আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়েছিল সদর উপজেলার সুলতানপুর, মাছিহাতা ও বাসুদেব ইউনিয়নের ১০টি গ্রাম ছাড়াও আখাউড়া এবং বিজয়নগর উপজেলার দুটি গ্রাম।

 

সরকারি হিসাব মতে, প্রলয়ংকারি এই টর্নেডোতে প্রাণহানি ঘটে ৩৭ জনের। এছাড়া আহত হন দেড় হাজারেরও বেশি মানুষ। সেদিন টর্নেডোর যে তাণ্ডব চলেছিল, তা এই জেলার ইতিহাসে বিরল।



জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, টর্নেডোতে প্রায় ১৬০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। এর ছোবলে জেলার সদর, আখাউড়া ও বিজয়নগর উপজেলার মোট ১৫ বর্গকিলোমিটার এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এসব এলাকার মোট সাড়ে আট হাজার বাসিন্দা ক্ষতির শিকার হন।

 

খুব বেশি ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১৭৩১টি পরিবার। এসব পরিবারের নারী, শিশু ও পুরুষ মিলিয়ে ৩৭ জন নিহত ও ৪৩১ জন আহত হয়েছে।  এর মধ্যে ১৭৭৮ টি বাড়ি সম্পূর্ণরূপে ও ৭৪৪ টি বাড়ি আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। প্রতিবেদনে গবাদি পশু ও হাস-মুরগি বাবদ মোট ৫৫ লাখ টাকা ক্ষতির কথা বলা হয়েছে।

 

সূত্র জানায়, টর্নেডো আক্রান্ত গ্রামগুলোর মোট ১৭৩ একর জমির ৮৩ লাখ টাকার ফসলাদি একেবারে নষ্ট হয়। আংশিক নষ্ট হয় এক হাজার ১১২ একর জমির প্রায় তিন কোটি টাকার ফসল।

 

টর্নেডোর আঘাতে একটি কলেজ এবং নয়টি স্কুল-মাদ্রাসা ও পাঁচটি মসজিদ পুরোপুরি ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। 



টর্নেডোতে ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় প্রায় আড়াই কিলোমিটার পাকা সড়ক। টর্নেডো বিধ্বস্ত গ্রামগুলোর মোট ৩৬৯টি নলকূপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

 

সেদিনের প্রলয়ঙ্কারী এই টর্নেডোর মুখে পড়েছিলেন শহরের কাউতলি এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী কাজী মেসবাহ উদ্দিন জাফরসহ তার তিন বন্ধু। তিনজনই টর্নেডোর ভয়ংকর এই তাণ্ডবলীলা স্বচক্ষে দেখেছেন এবং মুঠোফোনের ক্যামেরায় তা ধারণ করেছেন

। 

জাফর  জানান, লাল-কালো একটা জিনিস উড়ে এসে বাড়ি-ঘরের টিন কাগজের মতো আকাশে উড়াচ্ছে। এটা দেখতে ছিল হাতির শুড়ের মতো। ভয়ঙ্কর শব্দে এটা আকাশ থেকে নেমে এক মিনিটেই সবকিছু তছনছ করে ফেলেছে।