বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তিতাস নদী এখন মরা খালে পরিণত

River pic 1 MBCজহির রায়হান : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তিতাস নদী এখন যৌবন হাড়িয়ে পানি সংকটে মরা খালে পরিনত হয়েছে। পূর্বাঞ্চলের সীমান্ত ভারতের নেমে আসা পানি থেকে প্রচুর পরিমান বালি পড়ে চর জেগে উঠায় পানি প্রবাহ বন্ধ হয়েছে। ফলে তিতাস নদী এখন চরম পানি সংকট দেখা দিয়েছে। এতে নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে বালির চর জেগে উঠায় বন্ধ হয়ে গেছে নৌ-চলাচল। পাশাপাশি নদীর এসব চরে চলছে কৃষি চাষাবাদ।
সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা গেছে, ভারতের ত্রিপুরা-আগরতলা মেলাঘর থেকে নেমে আসা পানি তিতাস নদীর ¯্রােত প্রবাহ এছাড়া ঘোমতী নদী থেকে উৎপত্তি তিতাস নদী পানি শুন্যতায় এখন মরা খালে পরিনত হয়েছে। শুকনো নদী এখন মৎস সম্পদ হাড়িয়ে শত শত জেলে পরিবার বেকার হয়ে পড়েছে। জেলার পূর্বাঞ্চলের সীমান্তবর্তী থানা আখাউড়া, বনগজ, ধরখার হয়ে জেলা শহর ঘেঁষে আশুগঞ্জ, ভৈরব মেঘনা নদীতে মিলিত এই তিতাস নদী। বর্ষাকালে নদীর দু’কূল উপচে পড়ে পানির ¯্রােতধারা।
খবর নিয়ে জানা গেছে, নদীর অস্বাভাবিক নাব্যতা সংকটে কৃষি ও জীব বৈচিত্র আজ হুমকির মূখে, পাশাপাশি মৎস সম্পদও বিলুপ্তির পথে। মৎসহীন তিতাস জেলে পরিবারগুলো বেকার জীবন অতিবাহিত করছেন। অতিতের দিনগুলোতে তিতাস নদীতে চলাচল করত বজড়া আর পালতোলা ডিঙ্গি নৌকা। মৎস জগতে পাওয়া যেত মিঠা পানির রুই, কাতলা, মৃগেল, চিতল, বোয়াল, ট্যাংরা, গোলসা, পুটি, আইড়, চিংড়ি, মলা, ঢেলা, বাইম নাম না জানা রয়েছে এমন দেশী প্রজাতির হাজারও মাছ। জেলেরা এই নদীতে নৌকা দিয়ে জাল ফেলে দিনরাত মাছ ধরত। গত ১৫-২০ বছর আগেও তিতাসের পানি নদীর দু’কূলে উপচে যেত। মৎসজীবী ছাড়াও এলাকার বহু লোকজন রাত জেগে আনন্দে কুপিবাতি, হ্যারিকেন জ্বালিয়ে সারা রাত মাছ ধরতেন। এসব মাছ সকাল হলেই বাজারগুলোতে তাজা মাছের লাফালাফি আর মৎস বেপারীদের উচ্চ স্বরে হাক-ডাক যেন মাছের বাজারকে একেবারে স্বরগরম করে তুলতেন। এখন আর সেদিন নেই। বর্ষা হতে না হতেই কার্তিক অগ্রাহায়ণ মাসের শুরুতেই নদী তার যৌবন হাড়াতে থাকে। দেশের অন্যান্য নদীর মত তিতাস নদী ও এখন মরা খালে পরিণত হয়েছে।
এলাকার কিছু মুরুব্বিয়ান জানান, নদীর এপার থেকে ওপার পর্যন্ত এক সময় জোড়া নৌকা দিয়ে জাল ফেলে জেলেরা মাছ ধরত আর উচ্চ কণ্ঠে ভাটিয়ালী গানের সুর তুলে নদীর দু’কূলবাসীকে আনন্দিত করে তুলত। এখন পানিও নেই, মাছও নেই, সেই হৈ হুল্লোও নেই। এবাবেই দিন দিন বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে আমাদের তিতাস নদী।