সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উপজেলা নির্বাচনে পুলিশ-গোয়েন্দা আরো সক্রিয় হবে’

image_116974প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'উপজেলা পরিষদের পরবর্তী ধাপসমূহের নির্বাচন যেন অবাধ, সুষ্ঠু ও সন্ত্রাসমুক্ত পরিবেশে হতে পারে, সে জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো আরও বেশি সক্রিয় হবে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কেউ যেন অরাজকতা সৃষ্টি করতে না পারে, সে জন্য চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করা হবে, তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন যথাযথ ও কার্যকর ব্যবস্থা নেবে।' আজ বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী তার জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে লক্ষ্মীপুর-১ আসনের এম এ আউয়ালের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে এ সব কথা বলেন। এ সময় তিনি উপজেলা নির্বাচনে সন্ত্রাসী-জঙ্গিবাদীদের ভোট না দিতে এবং তাদের 'না' বলে দেয়ার জন্য জনগণকে আরো সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান।

একই প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, 'বিএনপি-জামায়াত সন্ত্রাসী-জঙ্গিদের লালন করে। এটা খুব দুঃখজনক। নির্বাচনে তারা চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও বহু মামলার আসামিদের মনোনয়ন বা সমর্থন দেয়, এটাও দুর্ভাগ্যের। নির্বাচনের সময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসন থাকে নির্বাচন কমিশনের অধীনে। সে জন্য যেখানেই সমস্যা দেখছে, সেখানেই তারা ব্যবস্থা নিচ্ছে।' 

এই প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে গত ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় বিএনপি-জামায়াতসহ ১৯ দলীয় জোটের আন্দোলনের প্রসঙ্গ টেনে শেখ হাসিনা বলেন, 'ওই নির্বাচন বন্ধের নামে বিএনপি-জামায়াত পাঁচ শর বেশি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আক্রমণ করে, তারা সেগুলো পুড়িয়ে দেয়। আড়াই শর বেশি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভাংচুর করে। আন্দোলনের নামে তারা পুলিশসহ সাধারণ মানুষকে বোমা মেরে ও আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। তারা সন্ত্রাসী ও জঙ্গি কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছে। মানুষকে তারা ভোটকেন্দ্রে যেতে দেয়নি।'

আওয়ামী লীগের ডা. এস এম সিরাজুল আকবরের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'দেশে যখন মিলিটারি ডিক্টেটররা অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে নিয়েছিল, তখনই নির্বাচনে কারচুপির অপসংস্কৃতি শুরু হয়। বিএনপিরও জন্ম হয়েছিল এমন এক মিলিটারি ডিক্টেটরের হাতে। আর জামায়াত ছিল আমাদের স্বাধীনতা-বিরোধী শক্তি। সুতরাং, এই দুটি দল যখন একত্র হয়, তখন দেশে শান্তি আসবে কী-ভাবে! আর আওয়ামী লীগ হচ্ছে গণমানুষের সংগঠন। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে স্বাধীনতার চেতনা বাস্তবায়ন করা। সে জন্য মানুষের ভোটাধিকার প্রয়োগের সাংবিধানিক অধিকার আমরা সব সময়ই রক্ষা করি। আমরা যখনই ক্ষমতায় আসি, তখনই হারি বা জিতি—সেটি বড় কথা নয়, মানুষ যে ভোট দিতে পারে, সেটিই আমাদের কাছে বড় কথা। এ কারণে আমাদের সরকারের সময়ে স্থানীয় সরকার থেকে শুরু করে জাতীয় ও উপনির্বাচন সবগুলোই অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। এখনো উপজেলা পরিষদসহ যতগুলো নির্বাচন হচ্ছে বা হয়েছে, সবগুলোই অবাধ ও নিরপেক্ষ হয়েছে। সামনেও সব নির্বাচন যেন অবাধ হয়, সরকার সে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে।'

শেখ হাসিনা বলেন, 'সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের মাধ্যমে মানুষের ভোটাধিকার হরণের পথ থেকে বিএনপি-জামায়াতকে ফেরানোর ক্ষেত্রে সরকারের কী করার আছে। এটা তাদের চরিত্রগত বিষয়। তারা যদি নিজেদের চরিত্র না পাল্টায়, সরকার সেখানে কী করবে। তবে তাদের এই চরিত্র পাল্টাতে পারে বাংলাদেশের জনগণ। এ দেশের জনগণই তাদের প্রত্যাখ্যান করে নিজেদের ভোটাধিকার সংরক্ষণ করবে।'

এর আগে, এম এ আউয়ালের লিখিত প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'উপজেলা নির্বাচনে দেশের সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশের সকল জেলা ও ইউনিট অবৈধ অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা ও আইনি ব্যবস্থা নেয়া অব্যাহত রেখেছে। অবৈধ অস্ত্রধারীদের প্রতিরোধ, বেআইনি কার্যকলাপ রোধে র্যাব, বিজিবি ও কোস্টগার্ড সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে। এ কারণে সাধারণ ভোটাররা পছন্দের প্রার্থীকে নির্ভয়ে ভোট দেয়ার মাধ্যমে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচনের সুযোগ পাচ্ছে।'