মঙ্গলবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনিয়ম ও দুর্নীতির আখড়া ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা কারাগার

B Jal

জহির রায়হান : ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা কারাগারে প্রতিনিয়ত চলছে নানাবিধ অন্যায়,অবিচার ও ব্যাপক অনিয়ম এ যেন দেখার কেউ নেই? প্রতিদিন শত শত লোক আসে ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা কারাগারে আসামীদের সাথে সাক্ষাত করতে। কারাগারের নিয়মতান্ত্রিক ভাবেই স্ব-স্ব পরিবারের লোকজন বিভিন্ন মামলার আসামীদের সাথে সাক্ষাত করতে যায়। এ সময় কারা কর্তৃপক্ষের বেশকিছু বিধিনিষেধ মেনেই আসামীদের সাথে সাক্ষাত করতে হয়। কারা কর্তৃপক্ষের নিয়মের আওতায় রয়েছে, প্রথমেই দুর থেকে দেখতে আসা আসামীর স্বজনরা আসামীকে দেখার জন্য ১০টাকার একটি টিকেট ক্রয় করতে হবে। এই টিকেট ক্রয় করার পরও দুর দুরা¯ত্ম থেকে দেখতে আসা আসামীর স্বজনদের পড়তে হয় নানা ভোগা¯িত্মতে। শুধুমাত্র কারা কর্তৃপক্ষের অবহেলার জন্য। নাম মাত্র ১০টাকার এই টিকেট শুধুমাত্র লোক দেখানো । দুর থেকে দেখতে আসা ভূক্তভোগীরা ১০টাকার সাধারণ টিকেট ক্রয় করে হতভাগ্যের মত ঘন্টার পর ঘন্টা তীর্থের কাকের মত অপেক্ষমান থাকতে হয়।

সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা যায়, এই ১০টাকার টিকেট ক্রয়ের মধ্যেই রয়েছে বেশ কিছু রহস্যজনক ঘটনা। তারমধ্যে দেখতে আসা সহজ-সরল মানুষদেরকে বিভ্রা¯ত্ম করছে নানা ভাবে। ভিআইপি টিকেট দেওয়ার নাম করে তাদের কাছ থেকে দেড়শত থেকে দুইশত টাকা পর্য¯ত্ম হাতিয়ে নিচ্ছে কারারক্ষীরা। এই ভিআইপি টিকেট ক্রেতারা আসামীর সাথে সাক্ষাতকারে দীর্ঘ সময় পর্য¯ত্ম সুযোগ পাবে এমনটাই বলে থাকেন কারা কর্তৃপক্ষ। ভূক্তভোগীরা বিভিন্নভাবে টিকেট ক্রয় করার পরও আসামীর সাথে থাকা কারারক্ষীরা, কথা বলার সময়ের মেয়াদ আরো বাড়িয়ে দেয়া হবে বলে ভিতর থেকে একটি চিকন কাঠি গ্রীলের ফাঁকে ঢুকিয়ে দিয়ে বারবার টাকা নিতে থাকে এমন অভিযোগও পাওয়া গেছে। কারারক্ষী এবং দর্শনার্থীদের মাঝে রফাদফার মাধ্যমে আসামীদের সাথে লম্বা সময় নিয়ে কথা বলার কারনে অনেকে কথা বলার সুযোগও পায়না। বহু লোকের ভীরে শুরু হয় ধ¯ত্মাধ¯িত্ম,হাতাহাতি এমনকি মারামারির ঘটনাও ঘটে। এমনি একটি মারামারির ঘটনার শিকার হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামের আব্দুর রহমান ও তার পাশে থাকা আরেক দর্শনার্থী রুনা আক্তার এবং তার কোলের এক বছরের শিশু।

আহত ভূক্তভোগী আব্দুর রহমান জানান, গত ১৭-০৩-২০১৪ইং তারিখ সোমবার বেলা এগার টায় ভিআইপি টিকেট কাটা অজ্ঞাত এক ব্যাক্তি সাক্ষাতকারের সময় আব্দুর রহমানের উপর চড়াও হয়ে পাশে থাকা প্রত্যেককেই এলোপাথারী মারধর শুরু করে। এ সময় আরেক দর্শনার্থী রুনা আক্তারও তার কোলের শিশু সোহানী মারাত্বক আহত হয়। এ নিয়ে কারা অভ্য¯ত্মরে সৃষ্টি হয় হৈ-হুল্লও চরম বিশৃঙ্খলতা। গন্ডগোল সৃষ্টিকারী অজ্ঞাতনামা ঐ ব্যক্তিকে কারারক্ষীরা আটক করে। আটকের কিছুক্ষন পরই কারারক্ষীরা আটককৃত ব্যক্তির কাছ থেকে টাকা ঘুষ নিয়ে তাকে ছেড়ে দেয় বলে অভিযোগ করেন ভূক্তভোগী আব্দুর রহমান। তিনি আরো জানান, কারারক্ষীদের দায়িত্বহীনতার কারনেই এই ধরনের ন্যক্কারজনক অপ্রীতিকর ঘটনাটি ঘটেছে। আসামী দেখতে আসা এমন আরো একাধিক পরিবারের সদস্যরা কারা রক্ষীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে বলেন, এমন ঘটনা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কারাগারের নিত্তনৈমিত্তিক। ভূক্তভোগীরা কারা কর্তৃপক্ষের এই উদসীনতার ন্যায় বিচারের জোর দাবী জানান সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিকট।

এই ব্যাপারে কারাগারের জেলার আনোয়ার হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে, তিনি মারামারি ও আটকের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, শুধুমাত্র কথা কাটাকাটি হয়েছে এখানে কোন মারামারি হয়নি। আমরা দু’পক্ষকেই কারা অভ্য¯ত্মর থেকে বাইরে বের করে দিয়েছি। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, টিকেটের কোন টাকা নেওয়া হয়না, মসজিদের জন্য টাকা নেওয়া হয়। 

এ জাতীয় আরও খবর

জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

প্রকাশ্যে চিত্রনায়িকা বুবলীর বেবি বাম্পের ছবি

চোখ ওঠা রোগীদের যে নির্দেশনা দিলো বিমানবন্দর

সেই মরিয়ম ও পরিবারের সদস্যদের গ্রেপ্তার দাবি

টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ে ৭ ধাপ উন্নতি ফারজানার

করতোয়ায় নৌকাডুবিতে মৃত্যু বেড়ে ৬৮, নিখোঁজ ৫

বাজিমাৎ করতে আসছে ‘পন্নিইন সেলভান’

ইরানে নারীর পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে বিক্ষোভে নিহত বেড়ে ৭৬

নিজের জন্য নয়, জনগণের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করেন প্রধানমন্ত্রী: কাদের

ঢাবিতে ছাত্রদলের ওপর ছাত্রলীগের হামলা, আহত ১০

বৈশ্বিক সংকট নিয়ে বিএনপি ফায়দা লুটতে চায়: কাদের

বাংলাদেশ বিপুল পর্যটন সম্ভাবনাময় দেশ: প্রধানমন্ত্রী