শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরাইল উপজেলার পাকশিমুল টহল পুলিশের সামনেই জুয়া খেলা চলছে ।

Juoaসরাইল উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়নের কালিশিমুল গ্রামের জনপ্রতিনিধিসহ কিছু গণ্যমান্য ব্যক্তি মুঠোফোনে স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিকের কাছে সহযোগিতা চান। তারা জানান, গত তিন দিন ধরে প্রতিরাতে স্থানীয় ‘কালা শাহ্’ নামক মাজারে গান-বাজনা চলছে। এর সাথে চলছে জুয়ার আসর। বিষয়টি থানাপুলিশকে একাধিকবার জানিয়েও কোনো সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। তাছাড়া প্রতি রাতেই কিছুক্ষণ পর পর টহলপুলিশ এখানকার গান-বাজনা এলাকায় আসে। কিন্তু জুয়াড়িরা বীরদর্পে পুলিশের উপস্থিতিতেও এখানে জুয়ার আসর চালিয়ে যাচ্ছে। এতে এলাকার যুব সমাজ বিপথগামী হচ্ছে। গ্রামে বেড়েছে চুরি-ছিনতাইয়ের মত নানা অপরাধ। গ্রামবাসীর অভিযোগে, রাত সাড়ে ১০টায় সরেজমিন কালিশিমুল গ্রামের ওই মাজার এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন নারী শিল্পী দিয়ে চলছে গানের আসর। এর পাশেই চলছে দুটি জুয়ার আসর। কিছু দূরেই অবস্থান নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে অরুয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির টহলপুলিশ সদস্যরা। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এখানে গত তিন দিন ধরে এ দুটি জুয়ার আসর চলছে। এর একটির নেতৃত্ব দিচ্ছে সরাইলের জুয়া স¤্রাট বলে খ্যাত জুয়াড়ি আউয়াল মিয়া। অপরটির নেতৃত্ব দিচ্ছে জুয়াড়ি আরজু মিয়া। সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে জুয়াড়িরা কিছুটা সংকুচবোধ করলেও হঠাৎ আড়াল থেকে বেরিয়ে আসে জুয়াড়িদের নেতা আরজু ও আউয়াল মিয়া। তারা সরাসরি বলে উঠেন, এখানে যা হচ্ছে পুলিশের অনুমতি নিয়েই হচ্ছে। পুলিশ সবই জানে …। টাকার বিনিময়ে থানার ওসির সাথে চুক্তি করেই আমরা জুয়ার আসর পরিচালনা করে আসছি। প্রতিরাতে এসে ওসির ভাগের টাকা জুয়া আসর থেকে নিয়ে যায় পুলিশের সোর্স সুমন মিয়া। পরে তারা সাংবাদিকদের এখান থেকে চলে যেতে অনুরোধ জানান। জুয়া আসরের পাশেই দেখা হয় অরুয়াইল ফাঁড়ির কয়েকজন পুলিশ সদস্যের সাথে। তবে জুয়া আসরের ব্যাপারে তারা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন দারোগাসহ একাধিক পুলিশ সদস্য বলেন, জুয়ার ব্যাপারে থানার কর্তাবাবু সবই জানেন। পুলিশের সোর্স নামধারী সুমন থানার ওসির খুব কাছের লোক। তার মাধ্যমেই এখানকার জুয়ার আসর থেকে মাসোহারা উঠানো হয়। আমরা (পুলিশ) ওসির অনুমতি ছাড়া জুয়াড়িদের ধরতে গেলে অসুবিধা আছে। মাজার এলাকায় কথা হয় দর্শনার্থী লোকমান মিয়া ও ফাতেমা বেগমের সাথে। তারা সাংবাদিকদের জানান, এখানে তিন রাত ধরে পুলিশের সামনেই জুয়া খেলা চলছে। মাজারের ওরশে এসব অনৈতিক কাজ তা ভাবতে আমাদের মনে ব্যাথা লাগে। এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সরাইল থানায় ওসি আলী আরশাদ যোগদানের পর থেকে এলাকায় ব্যাপকহারে জুয়া ও মাদক আস্তানাগুলো চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। এসব আস্তানা থেকে ওসির নাম ভাঙ্গিয়ে দৈনিক, সাপ্তাহিক ও মাসিক মাসোহারা নেয় পুলিশের সোর্স সুমন। সে দিনরাত এলাকার বিভিন্ন অপরাধ স্পটে ঘুরে বেড়ায়। স্থানীয়রা জানান, পুলিশের সোর্স সুমন মিয়া সরাইল সদরের প্রাতঃবাজার এলাকায় হাজী ফরিদ মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকেন। তার বাসায় রয়েছে কয়েক লাখ টাকা মূল্যের ফার্নিচার। তাছাড়া তার নিজ বাড়ী পানিশ্বর গ্রামে বিল্ডিং নির্মাণ করেছে সে। তার রয়েছে একটি স্টীলের নৌকাও। এ ব্যাপারে সরাইল থানার ওসি আলী আরশাদের সাথে কথা বলতে (রবিবার রাত ১১.২৪ মিনিটে) থানার ব্যক্তিগত নম্বরে ফোন করা হয়, তবে তিনি কল রিসিভ করেননি 

এ জাতীয় আরও খবর