শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

উপজেলায় জয়ের ধারায় বিএনপিতে উদ্দীপনা

U Electi Resultউপজেলা নির্বাচনে দুই দফা ভোটেও দলীয় প্রার্থীর জয়ের দিক থেকে এগিয়ে রয়েছে বিএনপি। ফেব্র“য়ারি মাসে দুই দফায় অনুষ্ঠিত ২০৯ উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি এককভাবে ৯৪টিতে জয় পেয়েছে। আওয়ামী লীগ পেয়েছে ৭৮টি। দশম সংসদ নির্বাচন প্রতিরোধ করতে গিয়ে বিপর্যস্ত বিএনপি উপজেলা নির্বাচনে জয়ের যে ধারা পেয়েছে তাতে দলটির মধ্যে সাংগঠনিক ও রাজনৈতিকভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। দলের কেন্দ্রীয় অফিস ও গুলশান অফিসে নেতাকর্মীদের পদচারণা বেড়েছে। দলটির কেন্দ থেকে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ দেখা দিয়েছে। অপরদিকে ক্ষমতায় থেকেও উপজেলা নির্বাচনে হেরে যাওয়ার বিষয়টি ভালো চোখে দেখছেন না আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। লক্ষণীয়, রাজনৈতিক অঙ্গনে কোণঠাসা হয়ে থাকা জামায়াতে ইসলামী সমর্থিত ২০ প্রার্থী এ নির্বাচনে জয়ী। আওয়ামী লীগের জন্য বিষয়টি দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে।

এদিকে ২৭ ফেব্র“য়ারি অনুষ্ঠিত ১১৪ উপজেলায় ৬২ দশমিক ১৯ ভাগ ভোট পড়েছে। নির্বাচনে মোট ১ কোটি ৯৫ লাখ ৭০ হাজার ভোটারের মধ্যে এক কোটি ২১ লাখ ৭০ হাজার ৩৬৬ জন ভোটাধিকার ্রয়োগ করেছেন। এর মধ্যে বৈধ ভোটের সংখ্যা এক কোটি ১৬ লাখ ৬ হাজার ৭৯১। বাতিল হয়েছে ৫ লাখ ৬৩ হাজার ৫৭৫ ভোট। সহিংসতার কারণে ভোট গ্রহণ চলাবস্থায় বৃহস্পতিবার দুপুরে নোয়াখালী সদর উপজেলার সব কটি কেন্দে র ভোট গ্রহণ স্থগিত করে দেয় নির্বাচন কমিশন। এছাড়া সহিংসতার কারণে কয়েকটি কেন্দে ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকায় সিরাজগঞ্জের তাড়াশ, কুমিল্লার লাকসাম ও বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। প্রথম দফায় অনুষ্ঠিত ৯৭ উপজেলা নির্বাচনে গড়ে শতকরা ৬২ দশমিক ৪৪ ভাগ ভোট পড়েছিল। ভোটার সংখ্যা হিসাবে ওই নির্বাচনে ১ কোটি ৬২ লাখ ভোটারের মধ্যে ১ কোটি ১ লাখ ১৩ হাজার ৯৬৭ জন ভোট দিয়েছিলেন।

দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে বেসরকারিভাবে ১১২টি উপজেলার ফল পাওয়া গেছে। প্রাপ্ত ফলাফলে দেখা গেছে, প্রথম দফা নির্বাচনের মতো দ্বিতীয় দফায় বিএনপি ও জামায়াত ভালো ফল করেছে। চেয়ারম্যান পদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের চেয়ে বেশি উপজেলায় জয় পেয়েছে। বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ৫০ জন জয়ী হয়েছেন। এছাড়া বিএনপির একজন বিদ্রোহী প্রাথী জয় পেয়েছেন। বিদ্রোহী মিলিয়ে বিএনপির জয়ী চেয়ারম্যানের সংখ্যা ৫১ জন। বিএনপির ৫০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মোট ভোট সংখ্যা প্রায় ২৭ লাখ। প্রথম দফায় বিএনপির জয়ী ৪৩ প্রার্থী প্রায় ২৪ লাখ ভোট পেয়েছিল। এছাড়া বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৯ জোটের অন্যতম শরিক জামায়াতে ইসলামী ৮টি উপজেলায় জয় পেয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। ভোটের সংখ্যা হিসাবে জামায়াতের ৮ প্রার্থী প্রায় ৪ লাখ ৭০ হাজার ভোট পেয়েছে। এছাড়া ১৯ দলীয় জোটের অন্য শরিক দলগুলো এ নির্বাচনে তেমন সাফল্য পায়নি। বিএনপির নেতাদের মতে, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপি আরও ভালো ফল অর্জন করত। তাদের অভিযোগ, অনেক উপজেলায় কারচুপির মাধ্যমে আওয়ামী লীগ জয় ছিনিয়ে নিয়েছে।

আওয়ামী লীগ প্রথম দফা উপজেলা নির্বাচনের তুলনায় দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে পরাজয়ের ব্যবধান কমিয়ে আনতে পেরেছে। দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে ১১২টি উপজেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত ৪৪ জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে জয়ী। ভোটের সংখ্যা হিসাবে আওয়ামী লীগের ৪৪ প্রার্থী প্রায় ২৭ লাখ ভোট পেয়েছে। এর আগে প্রথম দফায় দলটির ৩৪ প্রার্থী প্রায় ১৬ লাখ ভোট পেয়েছিল। এবারের নির্বাচনে দুটি উপজেলায় বিদ্রোহী প্রার্থী জিতেছে। বিদ্রোহীসহ আওয়ামী লীগ ৪৬ জন উপজেলায় জয়ী হয়েছে। জাতীয় পার্টি এবারও একটি উপজেলায় জয় পেয়েছে। অন্যান্যের মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রামের জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) ৩টি, ইউপিডিএফ একটি ও দুটিতে স্বতন্ত্ররা জয়ী হয়েছেন। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দুই মাসের মধ্যে অনুষ্ঠিত দুই দফা উপজেলা নির্বাচনে পরাজয়ের বিষয়টি নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে ভাবিয়ে তুলেছে। দলীয় প্রার্থীদের পরাজয়ের জন্য বিদ্রোহী প্রার্থীদের দায়ী করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। এর আগে ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারি ৪৬৭ উপজেলায় নির্বাচন হয়েছিল। দ্বিতীয় দফায় অনুষ্ঠিত ১১২টি উপজেলার ২০০৯ সালের নির্বাচনী ফলাফল পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা ৭২টিতে জয় পেয়েছিল। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ৮ জন জয়ী হয়। বিদ্রোহীসহ আওয়ামী লীগ ৮০ উপজেলায় জয় পায়। পাঁচ বছরের ব্যবধানে ওই ১১২ উপজেলায় এবার বিদ্রোহীসহ ৪৬টিতে জয় পেয়েছে আওয়ামী লীগ। অর্থাৎ ৩৪ উপজেলায় আওয়ামী লীগের পরাজয় হয়েছে। উল্টোভাবে বলতে গেলে, ২০০৯ সালে এই ১১২ উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত ২২ জন ও দুজন বিদ্রোহী মোট ২৪ জন জয়ী হয়েছিলেন। এবার বিদ্রোহী একজনসহ বিএনপি ৫১টিতে জয় পেয়েছে। ২০০৯ সালের তুলনায় এবার দ্বিগুণের বেশি উপজেলায় জয় পেল বিএনপি। অর্থাৎ আরও ২৭ উপজেলায় বিএনপির জয় হল। রাজনীতিতে কোণঠাসা অবস্থানে থাকা জামায়াত প্রথম দফার মতো দ্বিতীয় দফায় ভালো ফল পেয়েছে। ২০০৯ সালে এই ১১২ উপজেলার ৪টিতে জয় পেয়েছিলেন জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরা। এবার দ্বিগুণ উপজেলায় অর্থাৎ ৮টিতে জয় পেল জামায়াত।

এর আগে ১৯ ফেব্র“য়ারি প্রথম দফায় উপজেলা নির্বাচনের ফলাফলেও এগিয়ে ছিল বিএনপি। ওই নির্বাচনে ফলাফল ঘোষিত ৯৭ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিএনপি ৪৪টি, আওয়ামী লীগ ৩৪টি, জামায়াত ১২টি, জাতীয় পার্টি ১টি ও অন্যান্য ৭টিতে জয় পেয়েছিল। ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপি ৩২টি, আওয়ামী লীগ ২৪টি, জামায়াতে ইসলামী ২৩টি, জাতীয় পার্টি ৩টি ও অন্যান্য ১০টিতে জয় পেয়েছে। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমান সংখ্যক ৩৪টি, জামায়াতে ইসলাম ১০টি, জাতীয় পার্টি ১টি অন্যান্য ৩টিতে জয়ী হয়েছে। প্রথম দফার ৯৭টি ও দ্বিতীয় দফার ১১২টি মোট ২০৯টি উপজেলার ফলাফল একত্র করলে দেখা যায়, বিদ্রোহী প্রার্থীসহ বিএনপি ৯৫ উপজেলা চেয়ারম্যান পদে জয়ী হয়েছে। পক্ষান্তরে বিদ্রোহী প্রার্থীসহ আওয়ামী লীগ ৮০ উপজেলায় জয় পেয়েছে। জামায়াতে ইসলামী ২০ উপজেলায় ও জাতীয় পার্টি ২ উপজেলায় জয় পেয়েছে। অন্যান্য দলের অনেক প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও তেমন সাফল্য আসেনি।

উপজেলা নির্বাচনে জয়ের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, জনগণ বিএনপিকে রায় দিয়েছে। আওয়ামী লীগকে প্রত্যাখ্যান করেছে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন হলে বিএনপি আরও অনেক বেশি উপজেলায় জয় পেত। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা কেন্দ দখল করে সিল মেরে ব্যবধান কমিয়েছে। তাদের প্রভাব-প্রতিপত্তির কারণে নির্বাচনে গোলযোগ হয়েছে। তারপরও বিএনপি ভালো ফল করেছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাচনের জয় তৃণমূল কর্মীরা সুসংগঠিত হওয়ায় আরও উৎসাহ-উদ্দীপনা পেয়েছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, উপজেলা নির্বাচনকে আমরা আন্দোলনের অংশ হিসেবে নিয়েছিলাম। যেখানে আমাদের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে সেখানে সরকারের প্রশাসনিক ও সাংগঠনিক শক্তির অপব্যবহারকে মোকাবেলা করেই জয়ী হচ্ছে। এতে দলের নেতাকর্মী এবং জনগণের মধ্যে আন্দোলনের সাহস ও স্পৃহা বাড়ছে। অন্যদিকে যেখানে রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে সরকার বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের জোর করে হারাচ্ছে সেখানে ভোট বর্জন করে স্থানীয়ভাবে হরতাল কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। মূলত আমরা এটিই চেয়েছিলাম যে, সরকারের অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর উপলক্ষ উপজেলা নির্বাচনের মধ্য দিয়ে জনগণ খুঁজে পাক। আমাদের এ চাওয়া মোটামুটি পূরণ হয়েছে।

তবে উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল মূল্যায়ন নিয়ে দলের অবস্থান জানতে চেয়ে যোগাযোগ করা হলে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা কথা বলতে রাজি হননি। দলের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, এ বিষয়ে কথা বলতে দল থেকে নিষেধ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের এইচটি ইমামকে নির্বাচনের বিষয়ে দেখভাল করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

নির্বাচনের ফল পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, চেয়ারম্যান পদে ২১ জেলার ৩৮ উপজেলায় আওয়ামী লীগ একটিতেও জয় পায়নি। অপরদিকে ফেনীসহ ১১ জেলার ১৮ উপজেলায় বিএনপির কোনো প্রার্থী জয় পায়নি। দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনে ঢাকা ও আশপাশের জেলাগুলোতে মিশ্র ফলাফল এসেছে। ২৭ ফেব্র“য়ারি অনুষ্ঠিত ঢাকার দুটি উপজেলা কেরানীগঞ্জ ও সাভারের নির্বাচনে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ একটি করে চেয়ারম্যান পদ পেয়েছে। মানিকগঞ্জের দুটিতেই বিএনপি। মুন্সীগঞ্জের দুটি উপজেলার একটিতে বিএনপি ও অপরটিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জিতেছে।

আগামী ১৫ মার্চ তৃতীয় দফা, ২৩ মার্চ চতুর্থ দফা ও ৩১ মার্চ পঞ্চম দফায় উপজেলা নির্বাচনের সময় নির্ধারিত রয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

রংপুরে করোনা শনাক্তের হার বাড়ছে  : একদিনে সর্বোচ্চ  ৪৩৮ জন

রংপুর নগরীর প্রধান সড়কগুলো চার্জার ও অটো রিকশার দখলে

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফল

ইতালিতে হাইপোথার্মিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সাত বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে : দূতাবাস

সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর পোশাক কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত বলেই ষড়যন্ত্র-অপপ্রচারে বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী

কাদের টাকায় লবিষ্ট নিয়োগ, ফখরুলকে কাদের

শাবিপ্রবি উপাচার্য ক্যাম্পাস ত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলনের ঘোষণা

রাতে তাপমাত্রা কমতে পারে

ফল ঘোষণা হয়নি, বাইরে বিজয়ের গুজব

রাত ৮টার পর রাজশাহীতে বন্ধ থাকবে সব দোকান

জোড়া সেঞ্চুরির ম্যাচে ঢাকার মধুর প্রতিশোধ