বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি: ‘গুন্ডে’ সংশোধন না হলে ভারতীয় পণ্য বর্জন : গণজাগরণমঞ্চ

 


1365529674b3cd4বলিউডের চলচ্চিত্র ‘গুন্ডে’তে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতিতে ক্ষোভ প্রকাশ করে তা সংশোধন না হলে ভারতীয় পণ্য বর্জনের হুমকি দিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ।
সম্প্রতি মুক্তি পাওয়া গুন্ডেতে ইতিহাস বিকৃতির প্রতিবাদে সোমবার শাহবাগে সমাবেশে এই হুমকি দেন মঞ্চের সমন্বয়ক ইমরান এইচ সরকার।
গুন্ডের ইতিহাস বিকৃতি সংশোধনে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের প্রতি দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে অবিলম্বে ব্যবস্থা না নেওয়া হলে ভারতীয় চলচ্চিত্র, পণ্য ও টিভি চ্যানেল আমরা বাংলাদেশিরা আর দেখব কি না, তা ভেবে দেখব’
গত ১৪ ফেব্র“য়ারি বলিউডি চলচ্চিত্র ‘গুন্ডে’ মুক্তি পাওয়ার পরপরই ব্লগ ও ফেইসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে তীব্র  প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।  এতে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে অবমাননা করার পাশাপাশি ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে।
ইমরান বলেন, ‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে স্বীকৃতি না দিয়ে এতদিন পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধ বলে পাকিস্তানিরা বলে আসছিল। এবার ভারতও সেই পন্থা অবলম্বন করছে।’
মঞ্চের অন্যমত সংগঠক ও ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লাকি আক্তার বলেন, ‘শুধু ভারতীয় চলচ্চিত্রেই নয়, ভারতীয় পাঠ্যপুস্তকসহ পত্রপত্রিকাতেও নানাভাবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছে।’
এর বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিতে বাংলাদেশ সরকারের  প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
ইমরান সরকারের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা ভারতকে জানিয়ে দিন যে, চলচ্চিত্রটির কারণে আমরা ক্ষুব্ধ হয়েছি এবং বিষয়টি সংশোধনের ব্যাপারে আরো জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।’
gundeyবাংলাদেশ সরকার রোববার ‘গুন্ডে’র কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে এর প্রদর্শন বন্ধের দাবি জানিয়েছে ভারতের প্রতি।
গণজাগরণ মঞ্চের সমাবেশ থেকে তিনটি দাবি জানানো হয়, এগলো হল- গুন্ডে সিনেমা থেকে বিকৃত অংশটুকু প্রত্যাহার, সংশোধন না হওয়া পর্যন্ত গুন্ডে সিনেমার বিপণন বাংলাদেশে নিষিদ্ধ করা এবং ভারতীয় সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির সব অপচেষ্টার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের তরফ থেকে যথাযথ প্রতিক্রিয়া জানানো।
মঞ্চের অন্যতম সংগঠক মাহমুদুল হক মুন্সির সঞ্চালনায় সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি হাসান তারেক, জাসদ ছাত্রলীগের সভাপতি শামসুল ইসলাম সুমন, ব্লগার আরিফ জেবতিক প্রমুখ।
 
গুন্ডে নিয়ে ইতোমধ্যে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান যশরাজ ফিল্মসের কাছে ব্যক্তি পর্যায়ে প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। গত ১৯ ফেব্র“য়ারি নিজেদের ব্লগে এক পোস্টে দুঃখও প্রকাশ করে যশরাজ ফিল্মস।
তাদের পোস্টে বলা হয়, ‘চলচ্চিত্রে যেভাবে গল্প তুলে ধরা হয়েছে তাতে অনেক বাংলাদেশি ভাই আপত্তি জানিয়েছেন। তবে এর কাহিনি ও গল্প পুরোপুরি কাল্পনিক। কোনো জাতি, সমাজের বিশেষ কোনো অংশ বা কোনো ব্যক্তির প্রতি অশ্রদ্ধা দেখানোর অভি প্রায় নেই।
‘তারপরেও এতে কেউ আহত হলে বা কারো প্রতি  অশ্রদ্ধা  প্রকাশ করা হয়েছে বলে মনে করলে আমরা তার জন্য ক্ষমা  চাইছি।
যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গুন্ডেতে বাংলাদেশের জš§কে দেখানো হয়েছে ভারত-পাকিস্তানের ১৩ দিনের যুদ্ধের ফল হিসেবে, যা শুরু হয় ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর।
যশরাজ ফিল্মস বলেছে,  ‘মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদদের আত্মত্যাগের বিনিময়েই একটি স্বাধীন দেশের জš§ হয়। এটা কখনোই ভোলার নয়। স্বাধীনতা অর্জনের জন্য বাংলাদেশের মানুষকে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে। বাংলাদেশের মানুষের স্বাধীনতা সংগ্রামের কথা ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা রয়েছে।’ সূত্র: বিডিনিউজ