মঙ্গলবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিনেমাটি দেখতে ইচ্ছে করছে: কবি আল মাহমুদ

বাংলাদেশের প্রখ্যাত কবি আল মাহমুদের ছোটগল্প ‘জলবেশ্যা’ অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে চলচ্চিত্র ‘টান’। কলকাতার পরিচালক মুকুল রায় চৌধুরী ছবিটি নির্মাণ করেছেন। এর প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন বাঙালি বংশোদ্ভূত বলিউডের অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। ছবিটির অন্যান্য চরিত্রে রয়েছেন সুমন্ত চট্টোপাধ্যায়, পামেলা, দেবলীনা দত্ত, দেবদূত প্রমুখ। জল, জঙ্গল আর জলবেশ্যাদের কাহিনি নিয়ে এর চিত্রনাট্য লিখেছেন শিবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। কলকাতায় ‘টান’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছে ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে। ‘টান’ ছবিসহ আরও কিছু বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন কবি আল মাহমুদ।



‘টান’ ছবির পোস্টারআপনার ‘জলবেশ্যা’ ছোটগল্প অবলম্বনে নির্মিত ‘টান’ ছবিটি ২১ ফেব্রুয়ারি কলকাতায় মুক্তি পেয়েছে। আপনার অনুভূতি কেমন?

খুবই ভালো লাগছে। এখনই সিনেমাটি দেখতে আমার খুব ইচ্ছে করছে। জানি না সম্ভব হবে কি না!



কখনো নির্মাতা হওয়ার ইচ্ছে ছিল কি?

আসলে কখনো এরকম ভাবিনি। তবে আমার লেখা অনেক গল্প আছে, যেগুলো থেকে চলচ্চিত্র নির্মাণ করলে অনেক ভালো হবে আশা করি।



সাহিত্য এবং চলচ্চিত্র…

সাহিত্য এবং সিনেমা এক জিনিস নয়। সিনেমার আলাদা একটা ঢং ও ভাষা রয়েছে। পুরোপুরি সাহিত্যের মতো এটা হয়তো হবে না। লেখকের সব কল্পনাও সিনেমায় তুলে ধরা সম্ভব নয়। সাহিত্য চলচ্চিত্রে রূপ দিলে একটু পরিবর্তন হয়। তবে দুটিরই প্রয়োজন আছে। যাঁরা চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন তাঁরা সাহিত্যিকদের কাছ থেকে উপদেশ নিলে ইতিবাচক একটা ফল পাওয়া সম্ভব।



জলবেশ্যা গল্প…

জলবেশ্যা গল্পটি সত্য না হলেও এটা আমার দেখা একটা বাস্তব চিত্র। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার লালপুর গ্রামে মেঘনা নদীর পাড়ে জেলেদের পল্লি আমি দেখেছি। সেই সময় গল্পটি লিখেছিলাম। গল্পটি এতটাই জটিল যে কেউ এটা আন্দাজও করতে পারবে না।



‘টান’ ছবি নিয়ে প্রত্যাশা…

আমি আস্থা রাখি, ‘টান’ সিনেমাটি সবার হূদয় ছুঁয়ে যাবে। আমি খুব আশাবাদী।

এ জাতীয় আরও খবর