শনিবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিটিসিএলের গ্রাহক ক্রমেই কমছে

1_32957

জেসমিন মলি ও সাইফুল অপু: গ্রাহক হারাচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল)। ২০১২ সালে সংস্থাটির সংযোগ কমে আগের বছরের তুলনায় প্রায় সাড়ে ৫ শতাংশ আর গত বছর ৪ শতাংশ। গ্রাহক কমলেও  প্রতি বছরই সংযোগ সক্ষমতা বাড়ানোর বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করছে সংস্থাটি। অথচ সংযোগ সক্ষমতার এক-তৃতীয়াংশ অব্যবহূত থেকে যাচ্ছে।
বিটিসিএলের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী ২০১৩ সালে সংযোগ সক্ষমতা ছিল ১৪ লাখ ৭০ হাজার। সংযোগের বিপরীতে গ্রাহক রয়েছে ৯ লাখ। এক্ষেত্রে সংযোগ সক্ষমতার ৪০ শতাংশই অব্যবহূত থাকছে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বিটিসিএলের চেয়ারম্যান আবুবকর সিদ্দিক বণিক বার্তাকে বলেন, গ্রাহক বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। এসব উদ্যোগ কার্যকর হলে আশা করা যায় গ্রাহক সংকট ধীরে ধীরে কেটে যাবে।
জানা গেছে, টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন, মানোন্নয়ন, সম্প্রসারণ ও সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধির লক্ষে ২০০৭ সালে রাষ্ট্রায়ত্ত এ প্রতিষ্ঠানকে স্বায়ত্তশাসন দেওয়া হয়। তৎকালীন বাংলাদেশ টেলিগ্রাফ অ্যান্ড টেলিফোন বোর্ডের (বিটিটিবি) নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় বিটিসিএল। প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোগত পরিবর্তন হলেও সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য কোনো উন্নতি ঘটাতে পারেনি প্রতিষ্ঠানটি। লাভের যে আশায় বিটিসিএলে রূপান্তর, সে আশা আজ অবধি পূরণ হয়নি।
যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে গ্রাহকসেবায় মানোন্নয়নে ব্যর্থ হওয়ায়  প্রতিষ্ঠানটি তার গ্রাহক সক্ষমতার পুরোপুরি ব্যবহার করতে পারছে না বলে মনে করেন খোদ বিটিসিএলেরই অনেক কর্মকর্তা। প্রতিষ্ঠার পর থেকে রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিযোগাযোগ খাতের একমাত্র এ প্রতিষ্ঠান ঘিরে সবার আগ্রহ ছিল। সামাজিক মর্যাদার অংশ হিসেবেই বাড়িতে টেলিফোন সংযোগ নেয়া হতো। সেলফোনের সহজলভ্যতা এবং বিটিসিএলের সংযোগ গ্রহণ ও পরবর্তী সেবা দিতে সংস্থাটির অপেশাদারি মনোভাব সাধারণের আগ্রহ তলানিতে পৌঁছে দিয়েছে।
যদিও বিটিসিএল ল্যান্ডফোনের নতুন সংযোগ মূল্য আগের তুলনায় অর্ধেকেরও কম করা হয়েছে। ঢাকায় সংযোগ মূল্য ২ হাজার আর চট্টগ্রামে ১ হাজার টাকা। অন্যান্য বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা শহরে ৬০০ টাকা। কলরেটও আগের তুলনায় কমানো হয়েছে। লোকাল কলের ক্ষেত্রে সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রতি মিনিট ৩০ পয়সা ও রাত ৮টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত ১০ পয়সা। বিটিসিএল থেকে অন্যান্য অপারেটরে কলচার্জ প্রতি মিনিট ৮০ পয়সা। মাসিক সংযোগ ফিও আগের তুলনায় কমিয়েছে বিটিসিএল। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনায় প্রতি মাসে ফি ১৬০ টাকা। আর অন্যান্য বিভাগীয় ও জেলা শহরে ১২০ এবং উপজেলা ও গ্রোথ সেন্টারে তা ৮০ টাকা। এত সস্তা সংযোগও আগ্রহ বাড়াতে পারেনি গ্রাহকের।
এদিকে আবার বিটিসিএলের গ্রাহকদের জন্য স্বল্পমূল্যে উচ্চগতির ইন্টারনেট ব্যবহারে সুযোগ দেওয়া হলেও প্রতিষ্ঠানটির উল্লেখযোগ্য অর্জন নেই। যদিও এ সেবা গ্রাম পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। শতাধিক ইউনিয়নে বিটিসিএলের ইন্টারনেট সার্ভিসের মাধ্যমে ই-তথ্যকেন্দ্র পরিচালিত হচ্ছে। বিটিসিএলের ইন্টারনেট সার্ভিস দেশের ৫০০টি প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করছে। এর মধ্যে দুই শতাধিক ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার (আইএসপি) গ্রাহক রয়েছে। এদের ১০ মেগাবাইট থেকে শুরু করে চাহিদা অনুযায়ী ব্যান্ডউইডথ সরবরাহ করা হয়। উচ্চ ব্যান্ডউইডথ গ্রাহকদের জন্য প্রতি এমবিপিএস (মেগা বিটস পার সেকেন্ড) ব্যান্ডউইডথের দাম ৪ হাজার ৮০০ টাকা। ব্যবহারের পরিমাণের ওপর ১৫ থেকে ৩৫ শতাংশ হারে ছাড়ও দেয়া হয়। বিটিসিএলের ইন্টারনেট সার্ভিসের জন্য বর্তমানে সাড়ে ৭ গিগাবিটস ব্যান্ডউইডথ রয়েছে। এখান থেকে সাড়ে ৫ গিগাবিটস ব্যান্ডউইডথ ব্যবহার হচ্ছে। গ্রাহক অভাবে বাকি ব্যান্ডউইডথ রয়েছে অব্যবহূত।
প্রতিষ্ঠানটির প্রতি গ্রাহকের আগ্রহ না থাকলেও প্রতি বছর তার উন্নয়নে নিজস্ব তহবিলসহ সরকারি অর্থায়ন ও বিদেশী ঋণে বড় অঙ্কের প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এসব প্রকল্পে বড় ধরনের দুর্নীতির ঘটনাও ঘটে বলে অভিযোগ রয়েছে। বিটিসিএল কর্মকর্তাদের সহায়তায় ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকলের (ভিওআইপি) মাধ্যমে প্রায় ৬০৮ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সংস্থাটির বর্তমান ও সাবেক পাঁচ এমডিসহ ২২ জনের বিরুদ্ধে চারটি মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের করা মামলায় উল্লেখ করা হয়, বিটিসিএল কর্মকর্তাদের সঙ্গে পরস্পর যোগসাজশে একটি চক্র আন্তর্জাতিক কলের ডাটা মুছে ফেলে রাষ্ট্রের শত শত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।
প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালে বিটিটিবির সংযোগ সক্ষমতা ছিল প্রায় ১০ লাখ। আর বিটিসিএলে রূপান্তর হওয়ার পর ২০০৮ সালে সক্ষমতার ৩৬ দশমিক ৪৬ শতাংশ ছিল অব্যবহূত। এ সময় সংযোগ ছিল ৮ লাখ ৩৬ হাজার ১১১টি। সে বছর সংযোগ কমে যায় ৪ দশমিক ৭২ শতাংশ। ২০০৯ সালে সক্ষমতার ৩৪ শতাংশই ছিল অব্যবহূত। এ সময় সংযোগ ছিল ৮ লাখ ৬৬ হাজার ৭৮৪টি; সংযোগ বৃদ্ধির হার ৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ। ২০১০ সালে সক্ষমতার ২৬ দশমিক ৭২ শতাংশ অব্যবহূত ছিল। ওই সময় সংযোগ ছিল প্রায় ৯ লাখ ৭১ হাজারটি; সংযোগ বৃদ্ধির হার ১২ দশমিক ১১ শতাংশ। ২০১১ সালে সক্ষমতার ২৭ দশমিক ৪৬ শতাংশ অব্যবহূত ছিল। তখন সংযোগ ছিল প্রায় ৯ লাখ ৯০ হাজার। সংযোগ বৃদ্ধির হার ১ দশমিক ৯৩ শতাংশ। ২০১২ সালে সক্ষমতার ৬৫ দশমিক ৫১ শতাংশ অব্যবহূত ছিল। ওই সময় সংযোগ ছিল প্রায় ৯ লাখ ৩৫ হাজার। এ সময় সংযোগ কমে যায় ৫ দশমিক ৫৩ শতাংশ।
সূত্র: বণিক বার্তা

 

এ জাতীয় আরও খবর

যেসব নিয়ম মানলে ঠিকমতো খাবে আপনার শিশু

শামি কাবাব এর সহজ রেসিপি

নতুন ছেলেমেয়েরা চলচ্চিত্রে আসতে চায় না: ইলিয়াস কাঞ্চ

জনপ্রিয় মার্কিন সঙ্গীতশিল্পী মিট লোফ আর নেই

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের প্রতিবাদে অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা

হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে ভারত ফেরত যুবক করোনা পজেটিভ

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প

সবই খোলা, বন্ধ শুধু স্কুল-কলেজ

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে ৬৫ লাখ টাকার ক্যাবল চুরি

শাস্তি থেকে বাঁচতে কলাপাতার ‘মাস্ক’ পরে রাস্তায়, হতবাক পুলিশ

অফিস-আদালতে অর্ধেক লোকবলের প্রজ্ঞাপন শিগগিরই : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মিরপুরে অন্তত মাঝারি স্কোরের প্রত্যাশা বিসিবির