শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

অবশেষে আগাম নির্বাচন ইউক্রেনে

2_71374ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে কয়েক দিন ধরে চলা সরকারবিরোধী আন্দোলনে ব্যাপক হতাহতের ঘটনার জের ধরে দেশটিতে আগাম নির্বাচন দিতে রাজি হয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইয়ানুকোভিচ।

পোল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ডোনাল্ড টাস্ক এ তথ্য জানিয়েছেন। শুক্রবার বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটির চলমান রাজনৈতিক সংঘাত বন্ধ করার জন্য কিয়েভ সফররত ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি দলের কাছে প্রেসিডেন্ট এ নমনীয় অবস্থান ব্যক্ত করেন। ফ্রান্স, জার্মানি ও পোল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সমন্বয়ে ওই প্রতিনিধিদল গঠিত হয়েছে। তারা দেশটির সরকার ও বিরোধীপক্ষের মধ্যে সমঝোতা স্থাপনের চেষ্টা করছেন। প্রতিবেদনে পোল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ডোনাল্ড টাস্কের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট ইয়ানুকোভিচ চলতি বছরেই আগাম নির্বাচনের আয়োজন করতে সম্মত হয়েছেন। এ ব্যাপারে তিনি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিলে ২০১৪ সালেই ইউক্রেনে প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে।

ডোনাল্ড টাস্ক জানান, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট আগামী ১০ দিনের মধ্যে একটি ঐক্যমত্যের সরকার গঠন এবং গ্রীষ্মের আগেই সংবিধানে প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনারও প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন। তার এ প্রতিশ্র“তির বাস্তবায়ন হলে সরকার বিরোধীদের একটি বড় দাবি পূরণ হবে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ইউক্রেনের স্থানীয় সময় বিকেলে প্রতিনিধি দলের সদস্যরা প্রেসিডেন্ট ইয়ানুকোভিচ ও বিরোধীদের সঙ্গে রাজনৈতিক অচলাবস্থা নিরসনে একটি রোডম্যাপ তৈরির পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করেন।

শান্তি চুক্তি

ইউক্রেনে সংকট নিরসনে বিরোধীদের সঙ্গে একটি চুক্তিতে পৌঁছার কথা ঘোষণা করেছেন প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইয়ানুকোভিচ। তিন ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যস্থতায় রাতভর আলোচনার পর ইয়ানুকোভিচ এ ঘোষণা দেন।

তবে চুক্তিটি পরে সই হবে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন তিনি। ওদিকে, চুক্তিটি এখনও চূড়ান্ত হয়নি বলে সতর্ক করেছেন ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ইয়ানুকোভিচের দাবি মেনে নেয়ার বিষয়টি বিরোধীপক্ষ এখনও নিশ্চিত করেনি বলে জানান তিনি। রাজধানী কিয়েভ এখনও অশান্ত। ইয়ানুকোভিচ বিরোধীদের সঙ্গে চুক্তিতে পৌঁছার কথা জানানোর কয়েক ঘণ্টা পরও কিয়েভে আরও সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে। পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে গুলি ছোড়ার কথা জানিয়েছে। ২০১৩ সালের নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট ইয়ানুকোভিচ ইইউ’র সঙ্গে প্রস্তাবিত একটি বাণিজ্য চুক্তির পরিকল্পনা বাতিল করে এর পরিবর্তে রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হলে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হয়। ফ্রান্স, পোল্যান্ড এবং জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা ইউক্রেনের সরকার এবং বিরোধীদের মধ্যে রাতভর আলোচনায় মধ্যস্থতা করেছে।

ইউরোপের নিষেধাজ্ঞা আরোপ

সরকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে সম্মত হয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। কিয়েভের ইতিহাসে সবচেয়ে রক্তাক্ত দিন পার করার পর সহিংসতা ও মাত্রাতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগের জন্য ইইউ এই ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে। খবর বিবিসি’র।

এক বিবৃতিতে ইইউ বলেছে, ইইউ’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা জরুরি ভিত্তিতে (সরকারি কর্মকর্তাদের) সম্পদ জব্দ এবং ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে। ব্রাসেলসে ইউক্রেন পরিস্থিতি নিয়ে ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের জরুরি বৈঠকে দেশটিতে দমন-পীড়নের জন্য ব্যবহার হয় এমন হাতিয়ারের রফতানি লাইসেন্স স্থগিত করতেও তারা একমত হন। স্বাধীনতার ২২ বছরে সবচেয়ে মারাত্মক সহিংস পরিস্থিতির মধ্যদিয়ে যাচ্ছে ইউক্রেন। এ সহিংসতার জন্য সরকার ও বিরোধী পক্ষ একে অপরকে দোষারোপ করছে।

নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০১

চলমান সংঘাত বন্ধে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ও বিরোধীদের মধ্যে শান্তি আলোচনা শুক্রবারেও অব্যাহত রয়েছে। অন্যদিকে, এ সংঘর্ষে দেশটিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০১তে, আহত হয়েছে প্রায় ৫০০ জন। হাফিংটনপোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটির অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষে সেনাবাহিনী নামাতে সম্মত না হওয়ায় প্রেসিডেন্ট সেনাবাহিনীর উপপ্রধান ইয়ুরি দুমানস্কিকে বহিষ্কার করেন। অন্যদিকে বৃহস্পতিবার দেশটির সংসদ ‘সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান’ নিষিদ্ধ করে একটি বিল অনুমোদন করে।