শনিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গণজাগরণ বিতর্ক : মানুষের সমর্থন আছে সমর্থন নেই


Bangladesh Execution Protestsআশিক রহমান : ৫ ফেব্র“য়ারি ২০১৩, মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত আবদুল কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত। চরম হতাশ হয় দেশের সাধারণ মানুষ। হতাশ হন একাত্তরের রণাঙ্গণের সৈনিকেরা। হতাশ হয় মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী তরুণ সমাজ। ওই দিন বিকেলেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী কিছু তরুণ ব্লগার তাদের মনের ক্ষোভ ও দুঃখ প্রকাশ করতে রাজপথে নেমে আসে। শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনেই ছিল তাদের প্রতিবাদের স্থান। তারপরের ইতিহাস তো সবার জানা। ৫ ফেব্র“য়ারির ওই রাত থেকেই শাহবাগ মোড় খ্যাতি লাভ করে ‘গণজাগরণ মঞ্চ’ হিসেবে। স্রোতের মতো মানুষ আসতে থাকে শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চে। হাজারও মানুষ। লাখো মানুষ। মানুষ আর মানুষ। এ এক নতুন ইতিহাস। এ এক নতুন বাংলাদেশ। এমন বাংলাদেশ কেউ কখনো দেখেনি আগে।

একাত্তরের ঘাতকদের সর্বোচ্চ সাজার দাবিতে পুরো বাংলাদেশ হয়ে উঠে উত্তাল। সারা বিশ্বের বাঙালি জেগে ওঠে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নতুন করে দীপ্ত হয়। তারুণ্যে দীপ্ত কণ্ঠে স্লোগান তোলে ‘গ-তে গোলাম আযম তুই রাজাকার তুই রাজাকার’, ‘ক-তে কাদের মোল্লা তুই রাজাকার তুই রাজাকার’, ‘জামায়াতে ইসলাম মেইড বাই পাকিস্তান’, ‘তুমি কে আমি কে বাঙালি বাঙালি’। মানুষের মুখে মুখে ধ্বনিত হতে থাকে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান। কেঁপে ওঠে ঘাতকদের আস্তানা। একটানা ৭২ দিন চলে গণজাগরণ মঞ্চে মানুষের অবস্থান কর্মসূচি। একটা দেশের তারুণ্য এমন শান্তি, প্রগতি ও অপরাধমুক্ত সমাজব্যবস্থার জন্য প্রতিবাদ করতে জানে, তা দেখে তাজ্জব বনে যায় বিশ্ববাসী।

তাজ্জব হয়নি বিএনপি। তাজ্জব হয়নি একাত্তরের দোসরদের কর্মী-সমর্থকেরা। তারা তরুণদের ভাষা বুঝতে পারেনি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দীপ্ত তারুণ্যকে অবহেলা করেছে। তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করেছে। তাদের নষ্ট ও বিভ্রান্ত বলে গালি দিয়েছে। তারা বারবার প্রশ্ন তুলেছে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মকাণ্ড নিয়ে। প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করা হয়েছে। এখনো তাদের সেই চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। বিএনপির ও জামায়াতের এই মতবাদের সঙ্গে কথিত কিছু ভদ্রলোকও রয়েছেন। যারা টেলিভিশন ‘টক শো’তে বসে জায়ামাতের হয়ে ব্যাট করেন। অথচ দাবি করেন নিরপেক্ষ মত প্রদান করেন। দাবি করেন, মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাস করেন। তাদের মতে, গণজাগরণ মঞ্চের গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছে। মানুষ আর আগের মতো গণজাগরণ মঞ্চে যায় না। তাদের যুক্তি, গণজাগরণ মঞ্চ মানুষকে ধোঁকা দিয়েছে! এত দিনে এসে মানুষ তার ভুল বুঝতে পেরেছে! গণজাগরণ মঞ্চের প্রতি মানুষের সেই সমর্থনও আর নেই। আসলেই কি তাই, এতে দেশের মানুষের কোনো সমর্থন নেই? গণজাগরণ বিমুখ হয়ে পড়েছে মানুষ? মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিপক্ষে চলে গেছে দেশের মানুষ? যারা বলছেন, মানুষ গণজাগরণ তার স্বকীয়তা হারিয়েছে, তারাই কি সঠিক? মানুষের মনে অনেক প্রশ্ন জমেছে। অনেক প্রশ্ন সৃষ্টি করেছে। বিভ্রান্তি সৃষ্টি করেছে, করতে তারা পেরেছে। তাদের সে সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। কে বা কারা বিতর্ক তৈরির চেষ্টা করতে চেয়েছে, করতে চায়, ভবিষৎতেও করবেÑ সে ইতিহাস সবার জানা।

তবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিমুহূর্ত বুকে পুষে চলা যুদ্ধাদের মতে, গণজাগরণ সৃষ্টি হয়েছে একটা চেতনা থেকে। চেতনার বহিঃপ্রকাশই হলো শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চ, যা দাবানলের মতো ছড়িয়েছে দেশ-বিদেশে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশে ঘাতকদের আস্ফালন এ দেশের মানুষ সহ্য করতে পারেনি। জনগণের জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। মানুষের মনে ভেতরে যে চেতনা আছে, তা মরেনি। মরবেও না। জনগণ কিন্তু প্রতিদিন মাঠে নামেন না। যখন প্রয়োজন হবে, তখনই রাজপথে নামেন। দেশের প্রয়োজনে আবারও তারা রাজপথে নামবেন। কারও কথায় নয়, বাংলাদেশের প্রয়োজনেই তারা রঁ“খে দাঁড়াবেন। অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবেন। দেশের মানুষ তার ক্ষমতা বায়ান্নতে দেখিয়েছে, ঊনসত্তরে দেখিয়েছে, একাত্তরে দেখিয়েছে। নব্বইয়েও দেখিয়েছে তাদের ক্ষমতা। এবার দেখিয়েছে ২০১৩ সালে। আবার যখন প্রয়োজন পড়বে, তখন বাংলাদেশের বীর জনতা রুখে দাঁড়াবে। দেশকে অশুভ শক্তির হাত থেকে বাঁচাবে। এটাই বাংলাদেশের মানুষের প্রকৃত চরিত্র। এ দেশের মানুষকে তার অসম্প্রদায়িক চেতনার পথ থেকে কখনো সরানো যায়নি। যাবেও না কখনো। এটাই চরম বাস্তবতা। 

একাত্তরে জামায়াত বাংলাদেশের বিপক্ষে ছিল, এখনো আছে। স্বাভাবিক কারণেই তারা গণজাগরণের পক্ষে নেই। থাকবেও না। তাদেরকে ছাড়া দেশের সমস্ত মানুষ গণজাগরণের পাশে ছিল, এখনো আছে। গণজাগরণ ব্যর্থ হয়নি। মানুষের জাগরণ কখনো ব্যর্থ হয় না। হতে পারে না। ব্যর্থ হয়েছে তারাই, যারা ভিন্ন মতলবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিপক্ষে দাঁড়িয়েছিল। নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতেই তারা এখন মানুষের জাগরণের বিপক্ষে কথা বলছেন। তরুণ যোদ্ধাদের মতে, একটানা ৭২ দিন অবস্থান কর্মসূচির পর মানুষ ঘরে ফিরেছে। এর অর্থ এই নয় যে, মানুষ তার মূল চেতনা থেকে সরে গেছে। যারা বলেন গণজাগরণের সঙ্গে মানুষ আর নেই, তারা ভুল বলছেন। অথবা তারা জেনে শুনেই বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু তারা সফল হবেন না। সফল হতে দেবেও না এ দেশের মানুষ। এ দেশের জাগ্রত তরুণ সমাজ। আর যারা বলেন, গণজাগরণ মঞ্চ দিনের পর দিন শাহবাগের রাস্তা বন্ধ করে ভালো করেনি। শাহবাগের রাস্তা বন্ধ করে গণজাগরণ মঞ্চ দেশের ক্ষতি করেছে, তারাও সঠিক বলেননি। মনে রাখতে হবেÑ গণজাগরণ মঞ্চ হরতাল দিয়ে সারা দেশে সহিংসতার আগুন ছড়ায়নি। পেট্রলবোমা মেরে মানুষ হত্যা করেনি। দেশকে অবরুদ্ধ করেনি। অচল করে দেয়নি। হাজার হাজার কোটি টাকার ক্ষতি করেনি। গণজাগরণের আন্দোলন অহিংস আন্দোলন। ন্যায্য দাবি আদায়ের আন্দোলন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিকাশের আন্দোলন, যা তারা শান্তিপূর্ণ উপায়ে আদায়ের চেষ্টা করেছে।

তবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিনাশী শক্তির চেষ্টার কোনো কমতি ছিল না জনগণের জাগরণের শক্তি নষ্ট করার। সেই চেষ্টারই অংশÑ গণজাগরণের বিপরীতে দাঁড় করানো হয় হেফাজতে ইসলামকে। তাদের অর্থ দেওয়া হয়। শক্তিও দেওয়া হয়। কথিত বিভ্রান্তিমূলক ১৩ দফাও তুলে দেওয়া হয় তাদের হাতে। আস্তিক-নাস্তিকতার ধোয়া তুলে মানুষকে বিভ্রান্ত করারও কম চেষ্টা হয়নি। একাত্তরের স্টাইলে ধর্ম গেল গেল চিৎকার করেছিল। একাত্তরে এই একই কর্ম করেছিল জামায়াত। ‘১৩-তে কৌশল বদল করা হয়েছে। ভুঁইফোড় হেফাজতকে সামনে নিয়ে আসা হয়েছে। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। সাময়িক বিভ্রান্তি করা গেলেও চূড়ান্ত বিচারে ওদের উদ্দেশ্য ব্যর্থ। হেফাজত যদিও কখনো তা স্বীকার করেনি, তারা জামায়াত-সমর্থিত। কিন্তু তাদের কাজ ও কর্মপরিকল্পনা সে কথা বলেনি। শান্তি, প্রগতি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিনাশী হেফাজতকে প্রকাশ্য সমর্থন দেয় বিএনপি। তাদের সমাবেশে গিয়ে পাশে থাকার ঘোষণা দেয়। কী দুর্ভাগ্যÑ দলীয়ভাবে বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের আন্দোলনে মাঠে নামেনি। সমর্থনও দেয়নি। বিএনপির কর্মী-সমর্থকেরাও কেন্দ্রের বিভ্রান্তিকর অবস্থানে হতাশ হয়। সাধারণ মানুষ ক্ষুদ্ধ হয়। প্রগতি ও মুক্তচিন্তার মানুষও ভীষণ হতাশ হয়। 

জনগণের জাগরণের পাশে থাকা মানে মুক্তিযুদ্ধের প্রতি শ্রদ্ধা দেখানো। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা দেখানো। আওয়ামী লীগ তা দেখিয়েছে। বাম শক্তিগুলোও দেখিয়েছে। যারাই গণজাগরণের পক্ষে ছিলেন, পাশে ছিলেন, তারাই এর রাজনৈতিক সুবিধা নিয়েছে। বিএনপিও এর সুবিধা নিতে পারত। তা তারা নেয়নি। নিতে পারেনি, ব্যর্থ হয়েছে। অস্বীকার করে বরং বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করেছে। সেই অধিকার তাদের দেয়নি ৩০ লাখ শহীদের রক্ত। দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধারা। একটা কথা সবারই জানাÑ মিথ্যা ও বিভ্রান্তির জয় সাময়িক। সত্য ও সুন্দরের জয় চিরকালীন। যারা তা বুঝেও না বোঝার ভান করে মিথ্যার পথ বেছে নেবেন, বিভ্রান্তিকর যুক্তি দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করবেনÑ তাদের পরাজয় অনিবার্য। ইতিহাস কিন্তু সে কথাই বলে।