মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যেখানে হেরে যাচ্ছে বাংলাদেশ

5303bc280b2f0-Untitled-8আক্ষেপের প্রহর দীর্ঘতর হলো আরেকটু। হতাশার ভারী বাতাস চট্টগ্রাম থেকে দমকা হাওয়া হয়ে এলোমেলো করে দিয়ে গেল ঢাকাকেও। টি-টোয়েন্টি দুটিতে হারের ব্যবধান ছিল কম। তবু আক্ষেপ-হতাশা পরশুর ওয়ানডেকে ঘিরেই যেন আরও বেশি। টি-টোয়েন্টি দুটির ফয়সালা হয়েছে শেষ বলে, জিততে পারত যেকোনো দলই। বড় ভূমিকা ছিল ভাগ্যেরও। কিন্তু পরশু তো বাংলাদেশ জয়টা ফেলে দিল হাতের মুঠো থেকেই! ম্যাচ শেষে

মুশফিকুর রহিমের সরল স্বীকারোক্তি, ‘মনে হলো, যেন ইচ্ছে করেই হারলাম।’

অজুহাত দাঁড় না করানোর জন্য ধন্যবাদ পেতে পারেন অধিনায়ক। তবে সরল স্বীকারোক্তিতে ব্যর্থতা ঠিক আড়াল হচ্ছে না। ‘এত কাছে তবু কত দূরে’, টানা তিন ম্যাচ একই গল্পের চিত্রায়ণে সহানুভূতিগুলো যেমন রূপ নিয়েছে প্রশ্নে। কেন বারবার তীরে এসে ডুবছে তরি? তুলির শেষ আঁচড়টা কেন দিতে পারছে না বাংলাদেশ? কেন প্রতিপক্ষ যতটা না জিতছে, বাংলাদেশ হারছে তার চেয়ে বেশি!

বছর দুয়েক আগে হলে উত্তরটা খুঁজতে গবেষণা করতে হতো না—জয়ের অভ্যাস। বড় দলগুলোর বিপক্ষে তখনো জয়ের অভ্যাস সেভাবে গড়ে ওঠেনি বাংলাদেশের। ২০১০ সালে নিউজিল্যান্ডকে ‘বাংলাওয়াশ’ করা ছাড়া বড় দলগুলোকে নিয়মিত হারাতেও পারেনি। কাল শ্রীলঙ্কার কোচ পল ফারব্রেসও বললেন, জয়ের অভ্যাসটা গড়ে উঠলেই জিততে থাকবে বাংলাদেশ। কিন্তু গত দুই বছরে সেটা তো প্রায় রপ্তই করে ফেলেছিলেন মুশফিকেরা। এশিয়া কাপে ভারত ও শ্রীলঙ্কাকে হারানোর পর ফাইনালে পাকিস্তানকেও প্রায় হারিয়ে দেওয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জয়, শ্রীলঙ্কায় গিয়ে সিরিজ ড্র করে আসা, নিউজিল্যান্ডকে আবার ‘বাংলাওয়াশ’—জয়ের অভ্যাস গড়ে ওঠার প্রমাণ এই গৌরবময় সাম্প্রতিক অতীত। প্রত্যাশার যে প্রবল চাপের সঙ্গে লড়াই করে নিউজিল্যান্ডকে ৩-০ তে হারিয়েছে বাংলাদেশ, তাতে ছিল চাপকে জয় করতে শেখার প্রমাণ। কিন্তু সেই প্রমাণ থেকে অর্জিত বিশ্বাসগুলোকে খানিকটা ধোঁয়াশার সংশয়ে ঢেকে দিল রঙিন পোশাকের গত তিনটি ম্যাচ। শেষে এসে সব তালগোল পাকিয়ে ফেলার মূল ব্যাখ্যা মোটাদাগে একটিই—চাপ নিতে না পারা।

এমনিতে খুব সহজে বলে দেওয়া যায়, ইতিহাস-অভিজ্ঞতা মিলিয়ে চাপকে জয় করার কাজটা বাংলাদেশের চেয়ে শ্রীলঙ্কারই ভালো পারার কথা। কিন্তু টানা তিন ম্যাচে যখন একই পুনরাবৃত্তি, তখন সেটা আর শুধু স্নায়ুর লড়াই থাকে না। পার্থক্যটা হয়ে দাঁড়ায় দক্ষতার। যেটির অংশ চাপের সময় মাথা ঠান্ডা রেখে প্রতিকূল পরিস্থিতিকে অনুকূলে নিয়ে আসাও। শ্রীলঙ্কা সেটির প্রমাণ দিয়েই হারিয়েছে বাংলাদেশকে।

চট্টগ্রামে প্রথম টি-টোয়েন্টির শেষ বলটায় একটু ফিরে যাওয়া যাক। দরকার ৩ রান। বোলারের বোলিং মার্কের কাছে ছোটখাটো একটা সভা হয়ে গেল লঙ্কান সিনিয়রদের। শেষ বলটা কী করা হবে—এই সিদ্ধান্ত নিতে খুব বেশি সময় লাগার কথা নয়। তবু সভার ছলে সময়ক্ষেপণের উদ্দেশ্যই ছিল ব্যাটসম্যানকে ভাবানো। ভাবনার ঘনঘটায় ব্যাটসম্যানের মাথায় জট পাকিয়ে দেওয়া। শেষ বলটা ফুলটস পেয়েও যে এনামুল হক টাইমিং করতে পারলেন না, মূল কারণ কিন্তু মাথাটা পরিষ্কার না থাকা। বলটির আগে প্রতিটি মুহূর্ত গড়িয়েছে আর এনামুলের মাথায় খেলে গেছে, কী বল হতে পারে! পরদিন তিনি স্বীকারও করেছেন, শেষ বলটা নিয়ে ভেবেছিলেন অনেক কিছু।

এক দিন পর দ্বিতীয় ম্যাচে শেষ বলটা করল বাংলাদেশ, কিন্তু শ্রীলঙ্কার কৌশল থেকে শেখার কোনো প্রমাণ পাওয়া গেল না। মন্থর উইকেটে ভেজা বলে নিরীহ গতির ফরহাদ রেজার বাউন্সার করার সিদ্ধান্তটিও ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। তাতে স্নায়ুর কোনো ভূমিকা ছিল না, সমস্যাটি ছিল বোধে।

ফেরা যাক পরশুর ম্যাচে। রানের তাড়ায় জট পাকানোর শুরু খামখেয়ালিপূর্ণ রানআউটে (শামসুর ও সাকিব)। জয় তখনো কঠিন কিছু নয়। কিন্তু প্রতিপক্ষের সেরা স্পিনার সেনানায়েকের শেষ ওভারে অনেক বাইরের বলে অযথাই ড্রাইভ করতে গেলেন নাসির। নতুন ব্যাটসম্যান দেখে একটা শর্ট লেগ রাখা হলো, মাহমুদউল্লাহ বল তুলে দিলেন তাঁর হাতেই। ওভারপ্রতি মাত্র ৩ রান প্রয়োজন থাকার পরও মুশফিক যে স্কুপের মতো আত্মঘাতী শট বেছে নিলেন, সেটিরও কোনো ব্যাখ্যা খুঁজে পাওয়া কঠিন।

দিনের শেষে পার্থক্য গড়ে দেয় এই ছোট ছোট মুহূর্তই। এই মুহূর্তগুলোই জিততে পারছে না বাংলাদেশ। জিততে পারছে না ম্যাচও। শুধু ভাগ্যকে কাঠগড়ায় দাঁড় করালে সেটি তাই অজুহাতের মতোই শোনায়।