সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপজেলা আলীগের কর্মি সভায় সদরের এমপি- দুই বিদ্রোহী প্রার্থীকে বহিস্কারের আল্টিমেটাম

images.7378373ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় নির্দেশনা অমান্য করে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে একাধিক প্রার্থী থাকায় গত শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে কর্মিসভা হয়েছে। কর্মি সভা এক সময় নির্বাচনী সভায় পরিনত হয়। সভায় একজন বিদ্রোহী চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রাথীঁকে  নির্বাচন থেকে সরে দাড়ানোর আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে। ঘোষনা দেওয়া হয়েছে দলীয় প্রার্থীর জয় ছিনিয়ে আনার। আ’লীগ প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করলে স্থানীয় এমপিকে সহযোগীতা না করার ঘোষনা ও দেয়া হয়েছে। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হালিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়া ৩ (সদর-বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আলীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর, ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া পৌর মেয়র ও সহসভাপতি হেলাল উদ্দিন,সাবেক অতিরিক্ত সচিব ফরহাদ রহমান,সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল বারী চৌধুরী,হেলাল উদ্দিন প্রমুখ। প্রধান অতিথি উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলা আলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিক উদ্দিন ঠাকুর (চেয়ারম্যান),শাহজাহান মিয়া (ভাইস চেয়ারম্যান) এবং রোকেয়া বেগম (মাহিলা ভাইস চেয়ারম্যান) জেলা আ’লীগের মনোনিত প্রার্থী। এর বাইরে আলীগের কোন প্রার্থী নেই। প্রধান মন্ত্রীর নির্দেশে তাদেরকে (ভোটের মাধ্যমে) প্রাথীঁ করা হয়েছে। তিনি কঠোর ভাষায় বলেন, ১৬ ফেব্র“য়ারির (গতকাল) মধ্যে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জয়নাল উদ্দিন ও ভাইস চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী শের আলম মিয়াকে নির্বাচন থেকে সরে দাড়নোর জন্য আল্টিমেটাম দেওয়া হল। অন্যথায় তাদের বিরদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষনা দেন তিনি। এমপি বলেন, সরাইলের নির্বাচনে আ’লীগ প্রার্থীর পরাজয়ের কোন সুযোগ নেই। যে কোন মূল্যে বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে। জেলার কোথাও বিএনপি প্রার্থীকে জয়ী হতে দেওয়া যাবে না। তিনি স্থানীয় এমপিকে ইঙ্গিত করে বলেন, চেয়ারম্যান পদে আপনাদের কোন প্রার্থী নেই। আমাদের প্রার্থীকে সমর্থন করে প্রমান করুন আপনারা আ’লীগের সহযোগী। এর ব্যত্যয় ঘটলে আ’লীগ আপনাদের সাথে থাকবে না। গত পাঁচ বছর আমার সহযোগীতা নেননি তাই সরাইলের আশানুরুপ উন্নয়ন হয়নি। আমার সহযোগীতা ছাড়া আগামীতেও উন্নয়নে সুবিধা করতে পারবেন না। প্রসঙ্গত, আগামী ২৭ ফেব্রয়ারি সরাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।