শনিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সিরিয়ার অবরুদ্ধ এলাকায় মানবিক বিপর্যয়

52f3df990412e-21‘জীবন বাঁচানোর তাগিদে আমরা গাছের পাতা, লতা-গুল্ম থেকে শুরু করে ঘাস পর্যন্ত খাচ্ছি। বোমা হামলা বা বন্দুকধারীদের হাত থেকে জীবন বাঁচাতে পারলেও ক্ষুধা ও শীত থেকে জীবন বাঁচাতে পারব না। কেউ অসুস্থ হলে বা হামলায় আহত হলে তাঁর কষ্ট লাঘবের জন্য আমরা সবাই সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করি।’

কথাগুলো সিরিয়ার হোমস শহরের বাসিন্দা বাইবার্স আলতালাবির। স্কাইপের মাধ্যমে বিবিসির সঙ্গে আলাপকালে নিজেদের করুণ অবস্থার কথা বর্ণনা করেন তিনি।

সিরিয়ায় সহিংসতা চলছে আড়াই বছরেরও বেশি সময় ধরে। আর হোমস শহর অবরুদ্ধ রয়েছে প্রায় দেড় বছর ধরে। যার পরিণতি ভোগ করতে হচ্ছে আলতালাবির মতো সাধারণ মানুষকে। এখন চরম মানবিক বিপর্যয়ের মুখে তারা।

হোমসের ১৩টি এলাকা পুরোপুরি অবরুদ্ধ বলে জানান আলতালাবি। সরকারি বাহিনী ওই এলাকাগুলো অবরোধ করে রেখেছে। তারা খাদ্য, ওষুধসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় কোনো কিছুই অবরুদ্ধ এলাকায় ঢুকতে দিচ্ছে না। এসব এলাকায় কাউকে ঢুকতে বা বের হতেও দিচ্ছে না সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর বক্তব্য, সেখানে বিদ্রোহীরা ঘাঁটি গেড়ে বসেছে বলেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

সহিংসতা শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত এক লাখ ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। বাস্তুচ্যুত হয়েছে অন্তত ৫০ লাখ মানুষ। তাদের একটি বড় অংশই প্রতিবেশী দেশগুলোয় আশ্রয় নিয়েছে শরণার্থী হিসেবে।

এই পরিস্থিতিতে সিরিয়ায় চলমান সহিংসতা বন্ধের উপায় খুঁজে বের করতে গত মাসে জেনেভায় শান্তি আলোচনা শুরু হয়। সেদিকেই তাকিয়ে ছিলেন আলতালাবির মতো অনেক সিরীয়। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। বলার মতো কোনো অগ্রগতি ছাড়াই ওই সম্মেলন শেষ হয়েছে।

আলতালাবির ভাষায়, ‘সরকার আসলে “রাজনৈতিক কৌশলের” অংশ হিসেবে জেনেভা সম্মেলনে যোগ দেয়। তারা চাইলে আরও আগেই এই পরিস্থিতি থেকে অবরুদ্ধ মানুষের মুক্তি মিলত। আমরা এখন মৃত্যুর মুখোমুখি। আমাদের হয় হামলায় মরতে হবে, নয়তো আহত হতে হবে। তা না হলে খাদ্য ও ওষুধের অভাবে অসুস্থ হয়ে মরতে হবে। আমরা এ-ও জানি, কেউ এই অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাঁকে অবশ্যই মরতে হবে।’

রাজধানী দামেস্কের শহরতলি মোয়াদামিয়ার পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ। বিদ্রোহীদের ঘাঁটি বলে পরিচিত মোয়াদামিয়া অবরুদ্ধ সাধারণ মানুষকে সরকারি বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ‘বিদ্রোহীদের আমাদের হাতে তুলে দিন, আমরা খাবার সরবরাহ করব। তা না হলে মোয়াদামিয়ায় খাবার নিয়ে যেতে দেওয়া হবে না।’

মোয়াদামিয়ায় অবরুদ্ধ কাজী জাকারিয়া বলেন, ‘আমরা জানি না এখন কী করতে হবে, কোথায় যেতে হবে।’ যুক্তরাজ্যের পত্রিকা টেলিগ্রাফ-এর সঙ্গে স্কাইপে আলাপকালে জাকারিয়া আরও বলেন, ‘মোয়াদামিয়ার সাধারণ মানুষকে বিদ্রোহীদের প্রতি বিমুখ করতে সব ধরনের চেষ্টাই চালিয়ে যাচ্ছে সরকারি বাহিনী। তারা বেসামরিক মানুষের কাছে বার্তা পাঠাচ্ছে, “বিদ্রোহীদের সঙ্গে থাকলে ক্ষুধার জ্বালায় মৃত্যুই হবে তোমাদের একমাত্র উপহার। ওদের সঙ্গ ছাড়ো, খাবার পাবে।”’

মোয়াদামিয়ায় ৫০ হাজার মানুষ বাস করত। এখন তা কমে দাঁড়িয়েছে আট হাজারে। সরকারি বাহিনী ধীরে ধীরে অবরোধ জোরালো করেছে। আর সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে, যারা বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রিত এলাকায় থাকবে তাদের সরকারের শত্রু বলে বিবেচনা করা হবে।

সপ্তাহব্যাপী চলা জেনেভা সম্মেলনে অংশগ্রহণ সিরিয়া সরকারের ‘রাজনৈতিক কৌশল’ ছিল কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে। কিন্তু ওই সম্মেলন যে আলতালাবির মতো মৃত্যুর মুখোমুখি হওয়া মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেনি, এটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়। সম্মেলনে কোনো অগ্রগতি না হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন জাতিসংঘ ও আরব লিগের বিশেষ দূত লাখদার ব্রাহিমি। সিরিয়ার সরকার ও বিদ্রোহীদের আলোচনায় বসাতে মধ্যস্থতাকারীর দায়িত্ব পালন করা ব্রাহিমি জেনেভা সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের জানান, আলোচনার অগ্রগতি হয়েছে অত্যন্ত ধীরগতিতে। তবে দুপক্ষই ইতিবাচক মানসিকতা দেখিয়েছে। আদতে কী অগ্রগতি হয়েছে, তা দুপক্ষের অবস্থান দেখলেই বোঝা যায়। ব্রাহিমি আরও জানান, বিদ্রোহীরা আলোচনায় ফিরতে রাজি থাকলেও সরকারি প্রতিনিধিরা দামেস্কের সঙ্গে আলোচনার পর তাঁদের অবস্থান জানাবেন। শুধু সরকার নয়, বিরোধীরাও রক্তপাত বন্ধে কতটা আন্তরিক, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলা যায়। জেনেভা আলোচনায় দুপক্ষই মূল বিষয়ে এক ইঞ্চিও ছাড় দেওয়ার ইঙ্গিত দেয়নি। সেটি হলো সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের ভবিষ্যৎ। জেনেভায় সরকারের প্রতিনিধিরা বারবার বলেছেন, প্রেসিডেন্ট বাশার সাংবিধানিকভাবে তাঁর ক্ষমতার মেয়াদ পূরণ করবেন। ভবিষ্যৎ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন তিনি। বিরোধীরা বলছে, অন্তর্বর্তী সরকার গঠন করা ছাড়া সিরিয়ার চলমান সংকটের সমাধান সম্ভব নয়।

ওই আলোচনায় হোমসের অবরুদ্ধ আলতালাবির মতো হাজার হাজার মানুষের মানবিক বিপর্যয়ের বিষয়টি উঠলেও তা কখনোই ‘মূল বিষয়’ হয়ে উঠতে পারেনি। তবে একেবারেই কিছু হয়নি, এটা বলা যাচ্ছে না। জাতিসংঘের সহায়তাবিষয়ক প্রধান ভ্যালেরি আমোস জানান, অবরুদ্ধ কিছু এলাকায় সহায়তা পাঠানোর বিষয়ে দুপক্ষ একমত হয়েছে। তবে তা কতটা বাস্তবায়িত হয়, তা এখন দেখার বিষয়।

জেনেভা সম্মেলনে আশানুরূপ অগ্রগতি না হলেও বসে নেই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। অবরুদ্ধ এলাকাগুলো খাদ্য-ওষুধসহ প্রয়োজনীয় সহায়তা পাঠানোর সুযোগ সৃষ্টি করতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ শিগগিরই একটি প্রস্তাব তৈরি করতে যাচ্ছে। সিরিয়ার মানবিক ও রাসায়নিক সংকট বাড়তে থাকায় দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের আবার চাপ বাড়ানো বিষয়টিও বিবেচনা করছে পশ্চিমা দেশগুলো।

সূত্র: বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্স

 

এ জাতীয় আরও খবর

আহসান কবীরকে চাপা দেওয়া সিটি করপোরেশনের গাড়িচালক গ্রেপ্তার

নাসিরনগরে স্থায়ী মন্দিরের নিরাপত্তা বিষয়ক মতবিনিময় সভা

নাসিরনগরে ধান ক্ষেত থেকে অজ্ঞাত ব‍্যাক্তির লাশ উদ্ধার

নাসিরনগরে তৈরি হচ্ছে দেশীয় মাছের নানা জাতের শুটকি

বিয়ের আগেই মা হচ্ছেন স্বরা!

রাস্তা হওয়া উচিত ক্যাটরিনার গালের মতো মসৃণ: রাজস্থানের মন্ত্রী

ঢাকায় বিএনপির মশাল মিছিল

খালেদাকে স্লো পয়জনিং করলে বিএনপির লোকেরাই করতে পারে: কাদের

গণতন্ত্রের কথা বলে যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন দেশকে চাপে রাখতে চায়

লাইসেন্স ছাড়াই ডিএসসিসির গাড়ি চলাচ্ছিলেন হারুন-রাসেল: র‌্যাব

সেই লিটন, এই লিটন

ভোলায় মাঝনদীতে চেয়ারম্যান-মেম্বারদের লক্ষ্য করে গুলি, নিহত ১