শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাক্ষণবাড়িয়া ফকিরাপুল এবং একটি বেদনার স্মৃতি- ঐ ফকির কি তোর বাপ লাগে ?

Tuna007_1317474698_1-images_beggars

 ভিক্ষাবৃত্তিতো এখন পেশা। ভিক্ষুকদের অনেকেরই সামর্থ আছে কাজ করে পয়সা ইনকামের, কিন্তু তারা তা করে না। ইসলামে ফকিরদের চাইতে মিসকিনদের সাহায্য করতে বলা হয়েছে, অর্থাৎ যারা অভাবি, যারা দায়গ্রস্ত। কিন্তু কাজ করার স্বামর্থ থাকা সত্ত্বেও (অনেক খোড়া, অন্ধ মানুষকেও আমি কাজ করতে দেখেছি) যারা ভিক্ষাবৃত্তি করে তারা কিন্তু অভাবি নয় বরং লাভজনক ব্যবসাটাই তারা বেছে নিয়েছে।যাক সেকথা, অনেকদিন আগের কথা।আপনাদের একটা নির্মম সত্যি ঘটনা বলি ।১৯৮৭ সালে আমার দাদু মারা গেলেন । উনি একটা কোরাণ শরীফের গিলাফের ভেতরে টাকা রাখতেন(আমরা কেহই তা আগে জানতাম না)। দাদুর এই কোরাণ শরীফ টা আমার ভাগে পড়ল । সেটা খুলে আমি কিছু টাকা পেলাম । কচি মনে দাদীর বিয়োগ ব্যথায় এমনি কস্ট পাচ্ছিলাম । ভাবলাম টাকাটা দিয়ে কি করা যায় । অনেক ভেবে ঠিক করলাম দাদীর নামে ফকির-মিসকিনদের দান করে দেব ।তখন আমার মনে এলো ফকিরের পুলের কথা । অনেক ফকির আছে যারা সারা বছর এখানে ভিক্ষা করে ।আমি সেখানে গিয়ে যারা সক্ষম তাদের দুজন মিলে এক টাকা এবং যারা অক্ষম তাদের পুরো এক টাকা দিচ্ছিলাম ।এমন সময় এক ফকির(যার ভাগে ৫০পয়সা পড়েছে) বলল, ঐ ফকির তোর বাপ লাগে যে, তারে এক টাকা আর আমারে ৫০পয়সা দিলি ? আমি থ হয়ে গেলাম । ঘটনাটা একজন পথচারী দেখে বললেন, বাবা এদের না দিয়ে সিনেমা দেখলেও টাকাটার সৎকার হবে । সেই দিন থেকে প্রফেশনাল ভিখারীকে ভিক্ষা দিইনা । নিজের আশে-পাশে অনেক আছে যারা লজ্জায় কারো কাছে হাত পাতেন না কিন্তু অভাবী । তাদের যেচে গিয়ে টাকা দিই । বলি সুযোগ পেলে শোধ করে দিও । না পারলে দাবী নেই ।

বিঃদঃ-সব ভিক্ষুক যে এমন নয় সেটা আমি বুঝি। 

http://www.somewhereinblog.net/blog/Tuna007/29675903