মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিল্লির আইনমন্ত্রীর বেআইনি অতীত!

52edfbe37c8f1-Ministerদিল্লির বর্তমান আইনমন্ত্রী সোমনাথ ভারতীর বেআইনি এক কাজের অতীত এখন আলোচনায়। অভিযোগ উঠেছে, তিনি স্প্যামার ছিলেন! রাজনীতিতে আসার আগে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা এবং অবৈধ নানা কাজেও জড়িত ছিলেন তিনি। অবশ্য সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সোমনাথ।

পরিবর্তনের আওয়াজ তুলে দিল্লিতে সরকার গঠন করেছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি। এ দল থেকেই  আইনমন্ত্রী হয়েছেন আইনজীবী সোমনাথ (৩৯)।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, বর্তমানে রাজনীতিতে আসার আগে ওয়েবভিত্তিক একটি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন সোমনাথ। এখন আইনমন্ত্রী হলেও তাঁর অতীতের ব্যবসাটি কিন্তু মোটেও আইনসিদ্ধ কিছু ছিল না। তাঁর নামের সঙ্গে এমন একটি কুখ্যাত স্প্যাম ছড়ানোর ওয়েবসাইটের নাম জড়িয়ে আছে, যা সহজে তাঁর পিছু ছাড়ার নয়।

অভিযোগ উঠেছে, সোমনাথ ২০০৩-০৪ সালে গড়ে তুলেছিলেন টপসাইট এলএলসি নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানটি থেকে স্প্যাম ছড়ানো হতো এবং প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার কাজ চলত। ‘ধূর্ত’ স্প্যামার হিসেবেই পরিচিতি দাঁড়িয়েছিল সোমনাথের। নিজের নামের পাশাপাশি ছদ্মনামেও এর সঙ্গে ছিলেন তিনি।

স্প্যামিং বলতে প্রতারণামূলক মেইল পাঠানোর বিষয়টিকে বোঝানো হয়। স্প্যামিংয়ের মাধ্যমে একই সঙ্গে অসংখ্য ব্যক্তির কাছে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের নামে ভুয়া তথ্য পাঠানো হয়। ১৯৯০ সালের পর ই-মেইলের ব্যবহার বাড়তে শুরু করার পর স্প্যামিং বাড়তে থাকে। ২০০০ সালের দিকে এসে এই অবৈধ ব্যবসা ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় বেশ কিছু সার্ভিস ও ই-মেইল মার্কেটিং সফটওয়্যারও সহজলভ্য হয়ে যায়। অভিযোগ উঠেছে, এ সময়ই বর্তমান দিল্লির আইনমন্ত্রী সোমনাথ ভারতি এই বেআইনি ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়েছিলেন। ভারতের মালভিয়া নগরে গড়ে উঠেছিল তার টপসাইট এলএলসি।

২০০৩-০৪ সালের দিকে ওয়েবসাইট নির্মাতা বা ওয়েব মাস্টাররা তাঁদের সাইট ওপেন ডিরেক্টরিতে নিবন্ধন করাতেন। ওপেন ডিরেক্টরি হচ্ছে ইন্টারনেট রিসোর্সের একটি ওয়েব ডিরেক্টরি। এই ওপেন ডিরেক্টরি থেকে তথ্য সংগ্রহ করে ওয়েবমাস্টার বরাবর ভুয়া মেইল পাঠানো বা ফোন কল করার কাজ করত টপসাইট। এসব মেইলে বলা হতো, বিনা মূল্যে ওপেন ডিরেক্টরিতে নিবন্ধন করলেও নাম তালিকায় রাখার জন্য অর্থ পরিশোধ করতে হবে। অনেকেই এই প্রতারণা বুঝতে না পেরে অর্থ খুইয়েছেন। তবে, যাঁরা অর্থ পরিশোধের পরও এ ধরনের মেইল বারবার পাঠানোর ফলে টপসাইটের পরিচয় ফাঁস হয়ে যায়। 

এ ধরনের স্প্যামিং করতে গিয়ে ধরাও খেয়েছিলেন সোমনাথ। কনরাড লংমোর নামে যুক্তরাজ্যের এক ওপেন ডিরেক্টরি সম্পাদক ২০০৪ সালে টপসাইট এলএলসিকে স্প্যামিং সাইট হিসেবে চিহ্নিত করেন।

সোমনাথের ওপর খেপেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের আইনজীবী ড্যান বালসাম। ২০০৩-০৪ সালের দিকে বালসামের মেইলবক্সে ২৪টি স্প্যাম মেইল পাঠিয়েছিল টপসাইট। ২০০৪ সালের জুনে টপসাইট ও এর মালিক সোমনাথ ভারতির বিরুদ্ধে মামলা করেন বালসাম। বালসামের আইনজীবী টিমোথি ওয়ালটন টাইমস অব ইন্ডিয়াকে সম্প্রতি জানিয়েছেন, এ মামলাটি পাঁচ হাজার ডলারে মীমাংসা হয়েছিল এবং টপসাইট থেকে আর কোনো স্প্যাম মেইল বালসামের অ্যাকাউন্টে যাবে না তার নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছিল।

টপসাইটের সঙ্গে জড়িয়ে থাকার কথা সোমনাথ অস্বীকার করলেও টাইমস অব ইন্ডিয়া তাদের অনুসন্ধানে দেখেছে যে টপসাইটের ব্যবসা দেখাশোনার ভার ছিল সোমনাথের ওপর। এর পরিচালকও ছিলেন তিনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টপসাইটের সাবেক এক কর্মী দাবি করেছেন, ছয়-সাতজন কর্মী নিয়ে বিভিন্ন দেশে স্প্যামিংয়ের কাজ পরিচালিত হতো।

২০০৫ সাল পর্যন্ত স্প্যাম ছড়ানোর প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিশ্বে শীর্ষ ১০০-এর তালিকায় টপসাইট স্থান পেয়েছিল। সেই সঙ্গে কুখ্যাত হয়েছিলেন ‘সোমনাথ’।

বর্তমানে টপসাইটের অস্তিত্ব নেই। কিন্তু ওয়েব ডিরেক্টরি ঘাঁটলে এখনো সোমনাথকে খুঁজে পেতে সমস্যা হয় না।