মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সৌদি আরবে ৩০ হাজার বাংলাদেশি শ্রমিকের ভবিষ্যত অনিশ্চিত

foreign-labourসৌদি আরবে নতুন করে শুরু হওয়া অবৈধ শ্রমিক ধরপাকড়ে বিড়ম্বনার মুখে পড়তে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রায় ৩০ হাজার শ্রমিক। এতে করে এইসব শ্রমিকের ভবিষ্যত অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে।

আজ রোববার থেকে নতুন করে অবৈধ শ্রমিকদের ধরতে অভিযান শুরু করছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। এতে করে চরম আতঙ্কে মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রায় ৩০ হাজার শ্রমিক। কারণ তারা সৌদি সরকারের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নিজেদের কাগজপত্র বৈধ করতে পারেনি।

সৌদি পাসপোর্ট কর্তৃপক্ষর হিসাব অনুযায়ী গত নভেম্বরের পর থেকে এখন পর্যšত্ম ৭১ হাজার ১১৮ অবৈধ শ্রমিকদের ফেরত পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের কয়েক হাজার শ্রমিক ছিলেন। বর্তমানে সৌদি আরবে বাংলাদেশের প্রায় ২০ লাখ শ্রমিক রয়েছেন।

এই বিষয়ে বাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘সৌদি আরবে কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিকদের পূণঃনবায়ন ও বৈধ কাগজপত্র সরবরাহের জন্য বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের চেষ্টা-তদবির চালানো হয়েছে। এরই মধ্যে প্রায় ৮ দশমিক ২ লাখ শ্রমিক তাদের কাগজ-পত্র নবায়ন করেছেন।’

সৌদি সরকারের দেওয়া সাত মাসের মধ্যেও অনেক বাংলাদেশি শ্রমিক তাদের কাগজপত্র নবায়ন করতে পারেনি এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘কত জন বাংলাদেশি শ্রমিক বৈধ কাগজ-পত্র ছাড়া সৌদি আরবে অবস্থান করছেন এই বিষয়ে সুস্পষ্ট করে কিছু বলতে পারছিনা।’

তবে মন্ত্রণালয়ের এক জন কর্মকর্তা বলেন, ‘প্রায় ৩০ হাজার বাংলাদেশি শ্রমিক বৈধ কাগজ ছাড়াই সৌদি আরবে কাজ করছেন। সৌদি সরকার তাদের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ নিলে বাংলাদেশ তেমন উল্লেখযোগ্য কিছু করতে পারবেনা।’

তবে মন্ত্রী জানিয়েছেন নিরাপদে দেশে ফিরে আসার জন্য বাংলাদেশি দূতাবাসকে শ্রমিকদের সব ধরনের সহযোগিতা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অবৈধ শ্রমিকদের বৈধ করার ব্যাপারে কোন সুযোগ রয়েছে কি না এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘অবৈধ শ্রমিকদের বৈধ করার জন্য সৌদি সরকার যথেষ্ট সময় দিয়েছিল। আমরা বাংলাদেশি অবৈধ শ্রমিকদের বৈধ করার জন্য সব ধরনের চেষ্টা করেছি। এর মধ্যে যাদের কাগজ-পত্রে সমস্যা ছিল তাদের সমস্যা সমাধান করা হয়েছে। যেহেতু সৌদি কর্তৃপক্ষের দেওয়া নির্দিষ্ট সময় শেষ হয়ে গেছে, তাই তাদের কাছে আর সময় বাড়িয়ে নেওয়ার কোন সুযোগ নেই।’  

বাংলাদেশ রিক্রুটিং এজেন্সি (বায়রা) সভাপতি শাহজালাল মজুমদার বলেন, ‘সৌদি আরবে অবৈধ শ্রমিক পাঠানোর কোন রকম সুযোগ নেই। সৌদিতে যারা অবৈধ হয়েছেন তারা সময়মত কাগজপত্র নবায়ন করে বৈধ হতে পারেননি। এটি তাদের ব্যর্থতা। অনেক শ্রমিক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই কাজ পরিবর্তন করেছেন। যেটি সৌদি আইনের পরিপন্থী।’

মজার বিষয় হল দেশটিতে অবৈধ শ্রমিকদের বিতাড়নের ফলে অভ্যšত্মরীণ সমালোচনার মুখে পড়েছে সৌদি সরকার। সৌদি আরবের কয়েকটি গণমাধমের হিসাব অনুযায়ী অবৈধ শ্রমিকরা দেশ ছেড়ে চলে যাওয়ায় অভ্যšত্মরীণ কাজকর্ম বিশেষ করে নির্মাণ সম্পর্কিত কাজে ব্যাপক সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। শুধুমাত্র নির্মাণ খাতে ২৬ দশমিক ৬৬ বিলিয়ন বিনিয়োগ হুমকির মুখে পড়েছে।

সৌদি জাদওয়া ইনভেস্টমেন্ট এর তথ্য অনুযায়ী গত সাত মাসে অবৈধ শ্রমিকদের বের করে দেওয়ার ফলে শ্রমিক সংকটের কারণে দেশটির প্রধান তিনটি খাত যথা জ্বালানি বহির্ভূত বিভাগ, নির্মাণ ও যোগাযোগ খাত ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্র¯ত্ম হয়েছে।

অবৈধ শ্রমিকদের বের করে দেওয়ার কারণে গত নভেম্বর মাসে দেশটির নির্মাণ খাতে চরম অসঙ্গতি দেখা গেছে। শতকরা ১৯ ভাগ কাজ অগ্রগতি হয়নি। ফলে জাতীয় বার্ষিক উন্নয়নে কিছুটা স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। বিগত ২০১৩ সালে বার্ষিক উন্নয়নের পরিমাণ ছিল ৪ দশমিক ৮৯ ভাগ। সে তুলানায় এ বছর তা নেমে এসেছে ৪ দশমিক ৭২ ভাগে। বর্তমানে এই লোকসান থেকে কিছুটা ফিরে আসতে শুরু করেছে সৌদি কর্তৃপক্ষ।

এই বিষয়ে জাদওয়া ইনভেস্টমেন্টের গবেষণা বিভাগের প্রধান ফাহাদ আল তুকরি বলেন, ‘অবৈধ শ্রমিকদের থেকে বের করে দেওয়ায় সৌদি আরব সাময়িক বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। কারণ সৌদিতে কর্মরত ৯০ লাখ বিদেশি শ্রমিকদের মধ্যে ১০ লাখ শ্রমিকদের বের করে দেয়া হয়েছে। এই শ্রমিক ঘাটতি পূরণ করতে কিছুটা সময় দরকার। তবে এই সংকট দীর্ঘস্থায়ী নয়।’

উল্লেখ্য সৌদি আরবে বেকারত্বের সংখ্যা হল মোট জনসংখ্যার ১২ ভাগ। এর মধ্যে প্রাপ্ত বয়ষ্ক দুই তৃতীয়াংশ মানুষ কাজ করে না। দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট 

এ জাতীয় আরও খবর