মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বায়তুল মোকাররম অডিটরিয়ামে মুনিরীয়া যুব তবলীগের আলোচনা সভায় বক্তারা আলোকিত মানুষ তৈরীর দর্শন কাগতিয়া দরবারে

NEWSPAPER-SSআজ থেকে ১৪০০ বছর পূর্বে অন্ধকার মানুষের অন্ধকার কলবকে আলোকিত করার জন্য প্রিয় নবী (দঃ) এর আবির্ভাব ঘটেছিল। মানুষ তার মনুষ্যত্ব ভুলে পশুত্বের মধ্যে হাবুডুবু খাচ্ছিল ঠিক তখনই আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে সারা জগত আলোকিতকারী এক মহান নূর আগমন করেন, যার নাম মুহাম্মদুর রাসুল্লাহ (দঃ)। যে নূরে নূরান্বিত হয়েছিল লক্ষ লক্ষ কলুষিত অন্তর। পথহারা মানব জাতি পেয়েছিলেন আলোর সন্ধান। ঠিক ১৪০০ বছর পরে এসে যুব সমাজ যখন নৈতিকতার অবক্ষয় হতে চলছে ঠিক তখন তারা সন্ধান পেল কাগতিয়া আলীয়া গাউছুল আজম দরবার শরীফ। যে দরবারের মহান মোর্শেদ আওলাদে মোস্তফা, খলীফায়ে রাসুল, হযরত শায়খ ছৈয়দ গাউছুল আজম মাদ্দাজিল্লুহুল আলীর ছোহবতে এসে লক্ষ লক্ষ যুব সমাজ নামাজী হয়েছে, রোজাদার হয়েছে, দৈনিক ১,১১১ (এগার শত এগার) বার দরূদে মোস্তফা আদায় করতেছে, তাহাজ্জোদ নামাজ আদায় করেছে। এই দর্শনেই কাগতিয়া দরবার আলোকিত মানুষ তৈরী করে যাচ্ছে। 
    ৩১ জানুয়ারি/১৪ইং শুক্রবার ঢাকার বায়তুল মোকাররম ইসলামিক ফাউন্ডেশন অডিটরিয়ামে মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি  বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর সম্মিলিত শিক্ষাঙ্গন শাখার উদ্যোগে পবিত্র “ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) ও নবী প্রেমে কাগতিয়া আলীয়া গাউছুল আজম দরবার শরীফের দর্শন” শীর্ষক এক আলোচনা সভায় বক্তারা একথা বলেন।এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক প্রধান বিচারপতি মুহাম্মদ ফজলুল করিম। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশের মহাসচিব অধ্যাপক মোহাম্মদ ফোরকান মিয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড.এ.আর.এম আলী হায়দার ,জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আহমেদ আবুল কালাম, ড. ঈশা শাহেদী,  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, কাগতিয়া এশাতুল উলুম কামিল এম, এ মাদ্রাসার মুহাদ্দিস আল্ল¬ামা মুহাম্মদ আশেকুর রহমান ।
মিলাদ-কিয়াম শেষে বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি এবং দরবারের প্রতিষ্ঠাতা কাগতিয়ার গাউছুল আজমের দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ মুনাজাত পরিচালনা করা হয়।