মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি পরীক্ষা

primary examএপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ থেকে ২০১৪ সালের উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে। সে লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে বোর্ডগুলো। তবে ১লা এপ্রিল থেকে পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে কর্তৃপক্ষের। এর আগে ৯ই ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা। রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে নির্দিষ্ট সময়েই পরীক্ষা নেবে কর্তৃপক্ষ। এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষে চলছে ফরম পূরণের কাজ। জরিমানাসহ আগামী ১৯শে জানুয়ারি ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০১৪ শিক্ষাবর্ষের উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) ও ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ (ডিআইবিএস) পরীক্ষার জরিমানাসহ আবেদন ফরম পূরণের শেষ তারিখ। ১৯শে জানুয়ারি পর আর কোনভাবেই আবেদন ফরম পূরণ করা যাবে না। তা ছাড়া অনলাইনে ফরম পূরণ ছাড়া ম্যানুয়ালি কোন আবেদন ফরম পূরণ করা যাবে না। ১লা এপ্রিল থেকে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরুর প্রস্তুতি নিয়ে আন্তঃবোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি এইচএসসি পরীক্ষার রুটিন চূড়ান্ত করার কাজ শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামান। তিনি বলেন, এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হচ্ছে কয়েক দিন বিলম্বে। তাই বলে এইচএসএস ও সমমানের পরীক্ষা পেছানোর কোন সম্ভাবনা নেই। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, আসন্ন এসএসসি পরীক্ষা ঘোষিত সময়ের মধ্যে সমাপ্ত করা গেলে এইচএসসি’র সময়সূচিতে পরিবর্তন আনার বা পিছিয়ে দেয়ার প্রয়োজন হবে না। এ ছাড়া শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বোর্ড সংশ্লিষ্টরা বলেন, দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি আগামী কয়েক দিনের মধ্যে আরও শান্ত হয়ে আসতে পারে। সে ক্ষেত্রে আসন্ন এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা সময়মতোই শেষ হবে। উল্লেখ্য, আসন্ন এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হচ্ছে ফেব্রুয়ারি মাসের ৯ তারিখ থেকে। লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ১৩ই মার্চ। ১৭ই মার্চ থেকে ব্যবহারিক পরীক্ষা শুরু করে ২২শে মার্চের মধ্যে শেষ করতে বলা হয়েছে ঘোষিত রুটিনে। ফলে পরেত আরেকটি পাবলিক পরীক্ষা শুরুর আগে পর্যাপ্ত সময় পাওয়া যাবে। সে ক্ষেত্র ১লা এপ্রিল থেকেই এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু করতে সমস্যা হবে না। উল্লেখ্য, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার জন্য জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা, জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা ও প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা সঠিক সময়ে অনুষ্ঠিত হয়নি। একাধিকবার তারিখ পরিবর্তন করতে হয়েছে। যার প্রভাব পড়ে ফল প্রকাশেও। একই কারণে বিভিন্ন শ্রেণীর বার্ষিক পরীক্ষা নিতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। যার কারণে পরীক্ষা না নিয়েই পরবর্তী শ্রেণীতে পদোন্নতি দেয়া হয়। অভিভাবক ঐক্য ফোরামের সভাপতি জিয়াউল হক দুলু বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন। এর আগে বেশির ভাগ পরীক্ষাই সঠিক সময়ে নেয়া সম্ভব হয়নি। তিনি বলেন, রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে বড় দলগুলোর সমঝোতায় আসা দরকার। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তাসলিমা বেগম বলেন, তিনি বলেন, আমাদের সব প্রস্তুতি শেষ। আশা করি, রাজনৈতিক গোলযোগ না হলে সঠিক সময়েই পরীক্ষা হবে। তিনি বলেন, রাজনৈতিক কারণে গত কয়েকটি পরীক্ষা সঠিকভাবে নেয়া সম্ভব হয়নি।