শনিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হরতাল-অবরোধে পরিবহন সংকট : আশুগঞ্জে ৪০০ চাতালের অর্ধেকই বন্ধ : ১০ হাজার শ্রমিক বেকার

imgresব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জের ৪০০ চাতাল কলের প্রায় অর্ধেক বন্ধ হয়ে গেছে। টানা অবরোধ চলতে থাকায় পরিবহন সংকটসহ দেশে অস্থিরতার কারণে ধান ও চাল সরবরাহ করতে না পারায় এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। এতে চাতাল কল মালিক ও চাল ব্যবসায়ীদের এখন দৈনিক প্রায় অর্ধকোটি টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে। ৪০০ চাতাল কলের মধ্যে ২০০ চাতাল কল বন্ধ থাকায় প্রায় ২০ হাজার শ্রমিকের মধ্যে ১০ হাজার শ্রমিক ইতোমধ্যে বেকার হয়ে পড়েছে। কাজ না থাকায় তাদের দিন কাটছে অর্ধাহারে-অনাহারে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, আশুগঞ্জের চাতাল কল ও চালের পাইকারি বাজারে এখন সর্বত্রই সুনসান নীরবতা। প্রায় ২০০ চাতাল বন্ধ থাকায় অলস সময় কাটাচ্ছেন শ্রমিকরা। চালের দোকানে ক্রেতা না থাকায় গল্প করে ও আড্ডায় সময় পার করছেন ব্যবসায়ীরা। অবরোধে পরিবহন সংকট দেখা দেয়ায় চালের দাম প্রতিনিয়তই বাড়ছে। টানা অবরোধের কারণে ক্ষতির আশঙ্কায় ট্রাক চালকরা ঝুঁকি নিতে চান না। আবার কেউ পণ্য পরিবহনে রাজি হলেও ভাড়া দিতে হয় ক্ষেত্র ভেদে দুই থেকে তিনগুণ। একই সঙ্গে ট্রাকের ক্ষতি হলে তা বহনের অঙ্গীকারও করতে হয়।
আশুগঞ্জ উপজেলার আলমনগর, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পার্শ্ববর্তী সোনারামপুর, বাহাদুরপুর, কামাউড়া ও খড়িয়ালা এলাকায় গিয়ে দেখা যায় অধিকাংশ চাতাল কল বন্ধ রয়েছে। শ্রমিকরা বেকার হয়ে বসে আছে।
চাতাল কল ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান রিপন জানান, পরিবহন সংকটের কারণে আশুগঞ্জের চালের পাইকারি বাজারে দামের প্রভাব পড়েছে। এখন প্রতি মণ আমন প্রায় ১০০ টাকা বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে। বর্তমানে মোটা আমন ১ হাজার ১৮০ থেকে ১ হাজার ২০০ ও চিকন আমন ১ হাজার ৩০০ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে। আগে প্রতিদিন আশুগঞ্জে চাতাল থেকে প্রায় এক হাজার টন চাল সরবরাহ হলেও এখন তা ১০ ভাগের এক ভাগে নেমে এসেছে।
চাতাল কল ব্যবসায়ী মহিউদ্দিন খান শ্যামল জানান, বর্তমানে ব্যবসায় যেভাবে লোকসান হচ্ছে এ অবস্থা চলতে থাকলে আমাদের পথে বসা ছাড়া আর কোনো গতি থাকবে না। ব্যবসায় লোকসান হওয়ায় এরই মধ্যে আশুগঞ্জে অনেক ব্যবসায়ী ব্যবসা গুটিয়ে চলে গেছেন।
আশুগঞ্জের আজমির রাইস মিল ও হাজি রাইস মিলের মালিক মোঃ উজ্জ্বল মিয়া বলেন, আমাদের লোকসানের শেষ নেই। কাজ না থাকলে শ্রমিকরা চলে যাবে। অথচ আমরা একেকজন শ্রমিককে অগ্রিম দাদন দিয়ে কাজে আনি। আমরা এ অবস্থা থেকে উত্তরণ চাই। আগে প্রতিদিন আমার দুটি চাতাল কল থেকে প্রায় ৮০০ মণ চাল উৎপাদন হলেও এখন ২০০ থেকে ৩০০ মণের বেশি উৎপাদন করা যাচ্ছে না।
চাতাল শ্রমিক রফিক মিয়া, আব্দুর রহমান ও জাবেদ মিয়া বলেন, চাতাল কল বন্ধ থাকায় মালিকদের থেকে শ্রমিকরা দায়-দেনা বেশি করে চলছে। এতে আমাদের ঋণ বেড়েই চলেছে। এ অবস্থা যদি আরো কিছুদিন চলতে থাকে আর মিল বন্ধ থাকে তাহলে আমাদের ঋণের পাল্লা আরো বাড়তে থাকবে। চাতাল শ্রমিক নাজমুল বলেন, আমরা কোনো রাজনীতি বুঝি না। কিন্তু আমরা কেন কষ্ট করবো। এ অবস্থা থেকে আমরা মুক্তি চাই। ব্রাহ্মণবাড়িয়া চালকল মালিক সমিতির অর্থ সম্পাদক মোঃ আলাউদ্দিন খান ক্ষোভের সঙ্গে বললেন,
দুই নেত্রীর যাঁতাকলে পড়ে আমরা শেষ হয়ে যাচ্ছি। অবরোধে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পরিবহন। যে কারণে ট্রাক চালকরা ভয়ে যেতে চান না। ফলে আমরা দূরের কোনো জেলায় চাল সরবরাহ করতে পারছি না। এ অবস্থা চলতে থাকলে আমাদের পথে বসতে হবে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও আশুগঞ্জে প্রায় ২০০ চাতাল কল এখন বন্ধ আছে। বন্ধ থাকা অবস্থায়ও একেকটি চাতাল কলকে প্রতিদিন ৮-১০ হাজার টাকা লোকসান গুনতে হয়।
আশুগঞ্জ শহর শিল্প ও বণিক সমিতির সভাপতি গোলাম হোসেন ইপটি বলেন, হরতাল-অবরোধের কারণে আশুগঞ্জ বন্দরের চাতাল কল ব্যবসায়ীদের ইতোমধ্যে ২২ কোটি টাকার মতো লোকসান হয়েছে। আগামী দিনে এ অবস্থা চলতে থাকলে ব্যবসায়ীরা আর টিকে থাকতে পারবেন না। অধিকাংশ ব্যবসায়ীকেই পথে বসতে হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

আহসান কবীরকে চাপা দেওয়া সিটি করপোরেশনের গাড়িচালক গ্রেপ্তার

নাসিরনগরে স্থায়ী মন্দিরের নিরাপত্তা বিষয়ক মতবিনিময় সভা

নাসিরনগরে ধান ক্ষেত থেকে অজ্ঞাত ব‍্যাক্তির লাশ উদ্ধার

নাসিরনগরে তৈরি হচ্ছে দেশীয় মাছের নানা জাতের শুটকি

বিয়ের আগেই মা হচ্ছেন স্বরা!

রাস্তা হওয়া উচিত ক্যাটরিনার গালের মতো মসৃণ: রাজস্থানের মন্ত্রী

ঢাকায় বিএনপির মশাল মিছিল

খালেদাকে স্লো পয়জনিং করলে বিএনপির লোকেরাই করতে পারে: কাদের

গণতন্ত্রের কথা বলে যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন দেশকে চাপে রাখতে চায়

লাইসেন্স ছাড়াই ডিএসসিসির গাড়ি চলাচ্ছিলেন হারুন-রাসেল: র‌্যাব

সেই লিটন, এই লিটন

ভোলায় মাঝনদীতে চেয়ারম্যান-মেম্বারদের লক্ষ্য করে গুলি, নিহত ১