মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঢাকায় সংঘর্ষ, ইনাম আহমেদ চৌধুরিসহ আটক দুইশত, নিহত এক

Attackবিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮ দলের জোটের ডাকা ‘গণতন্ত্রের অভিযাত্রা’ কর্মসুচিকে ঘিরে ঢাকায় দফায় দফায় ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। আজ রোববার রাজধানীর সুপ্রিম কোর্ট, জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকায় বিক্ষোভ, সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। দুপুরের পর আটক হন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ইনাম আহমেদ চৌধুরি।

‘গণতন্ত্রের অভিযাত্রা’ কর্মসূচিতে শামিল হতে গিয়ে রোববার মালিবাগে জামায়াত, শিবিরের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে মানসুর প্রধানীয় নামের একজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন পাঁচ পুলিশ সদস্য। রাজধানীর বিভিন্ন থানায় রোববার সকাল থেকে বিকেল তিনটা পর্যন্ত আটক হন দুই শত জন।

সুপ্রিম কোর্ট এলাকায় বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের ওপর জলকামান থেকে রঙিন, গরম পানি ছিটানো হয়। বিরোধী দলের কর্মসূচিতে যোগ দিতে সুপ্রিম কোর্ট থেকে বেরোনোর পর বিএনপি, জামায়াতপন্থী আইনজীবীদের মিছিলে বাধা দেন পুলিশ।

আইনজীবীরা পুলিশের ওপর ইট, পাটকেল ছুড়লে পুলিশ একপর্যায়ে জলকামান ব্যবহার করেন। কয়েকট সাউন্ড গ্রেনেডও নিক্ষেপ করেন পুলিশ। সেখানে আইনজীবীদের বিক্ষোভ এখনও চলছে।

প্রেস ক্লাবের সামনে বিএনপি, আওয়ালামীলীগপন্থী সাংবাদিকদের মধ্যে ইট, পাটকেল ছোঁড়ার ঘটনা ঘটে। দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা চলছে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন পুলিশ।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে আজ বিএনপিপন্থী সাংবাদিকদের একটি বিক্ষোভ সমাবেশ পণ্ড করে দেন আওয়ামী লীগের সহযোগী বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা। প্রেস ক্লাবের বাইরে থেকে ইট, পাটকেল ছুড়লে সমাবেশটি পণ্ড হয়ে যায়।

পরে আওয়ামী লীগপন্থী সাংবাদিকদের আরেকটি সমাবেশ করলে সেখানে হামলা হয়। ইটের আঘাত মাথা ফেটে যায় একজন সাংবাদিকের। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাংবাদিকদের অভিযোগ, বিএনপিপন্থী সাংবাদিকদের ছোড়া ইটের আঘাতে ওই সাংবাদিক আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের নেতাকর্মীরা সকাল থেকে প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন। তাদের ব্যানারে লিখা ছিল ‘বন্ধ গণমাধ্যমের খুলে দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ’।

দুপুর বারোটার দিকে আওয়ামী লীগের সহযোগী বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা একটি মিছিল নিয়ে প্রেস ক্লাবের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় সমাবেশ থেকে সরকারবিরোধী স্লোগান দেয়া হয়। এই পরিস্থিতিতে মিছিল থেকে সমাবেশে ইটপাটকেল ছুড়লে সাংবাদিক নেতারাও পাল্টা ইটপাটকেল ছোড়েন। প্রায় ১৫ থেকে ২০ মিনিট এই অবস্থা চলতে থাকে। একপর্যায়ে সাংবাদিক নেতারা প্রেস ক্লাবের ভেতরে আশ্রয় নেন। এ সময় পুলিশকে খানিকটা নিষ্ক্রিয় অবস্থায় দেখা গেছে।

প্রধানমন্ত্রীর গণমাধ্যমবিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরি পরে সাংবাদিকদেরক বলেন, ‘প্রেস ক্লাবকে কোনো রাজনৈতিক দলের কর্মসূচিতে ব্যবহার কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। সাংবাদিক, প্রেস ক্লাবের সদস্যদের জন্য এটি একটি অরাজনৈতিক, নিরপেক্ষ জায়গা। এ চত্বরকে দলীয় কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য ব্যবহার করা অনৈতিক। এর মাধ্যমে ক্লাবের সদস্যদের নিরাপত্তা, সম্মান ক্ষুণ্ন হয়। জাতির কাছে নিরপেক্ষ ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়। যারা দলীয় রাজনৈতিক কর্মসূচিতে প্রেস ক্লাবকে ব্যবহার করছেন, তারা এর বিরোধীপক্ষকে প্রতিবাদ জানানোর সুযোগ করে দিচ্ছেন। এ ধরনের কর্মকাণ্ড কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়।’

এরপর পৌনে একটার দিকে প্রেসক্লাবের ভেতরে ইকবাল সোবহান, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি শাবান মাহমুদসহ আওয়ামীপন্থী সাংবাদিকরা একটি সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন। ঠিক তাদের পাশেই সরকারবিরোধী স্লোগানে মুখর ছিল বিএনপিপন্থী সাংবাদিকদের আরেক অংশ। এ সময় ইকবাল সোবহান চৌধুরির পাশে দাঁড়ানো মফিজুল ইসলামের মাথায় এসে একটি ইটের টুকরো পড়ে। এতে তার মাথা ফেটে যায়। পরে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।  তিনি ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের কোষাধ্যক্ষ।

আওয়ামী সমর্থিত সাংবাদিকদের অভিযোগ, বিএনপিপন্থী সাংবাদিকদের ছোড়া  ইটের আঘাতে মফিজুল আহত হয়েছেন। সাংবাদিক নামধারী কিছু বহিরাগত প্রেস ক্লাবে ঢুকে এ ধরনের নাশকতা চালাচ্ছেন বলে তারা অভিযোগ করেন।

ঢাকায় জায়গায় জায়গায় তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। বিভিন্ন সড়ক, মোড়, গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে বিজিবি, র‍্যাবের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। নিরাপত্তাব্যবস্থার কড়াকড়িতে সাধারণ মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রাজধানীর গাবতলি, পুরান ঢাকা, উত্তরা এলাকায় যুবলীগ, ছাত্রলীগ কর্মীদেরকেও তল্লাশি চালাতে দেখা গেছে। সমাবেশ বিরোধী লাঠি মিছিলও করেছেন আওয়ামী সমর্থকরা।

এ জাতীয় আরও খবর