শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভিডিওবার্তায় খুনের দায় স্বীকার করা রোহিঙ্গা যুবক দীর্ঘদিন ‘নিখোঁজ’

কক্সবাজার প্রতিনিধি : কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ৪ মাঝিকে (নেতা) খুনের দায় স্বীকার করে ভিডিওবার্তা দেওয়া যুবক মো. হাসিম (২১) দীর্ঘদিন ধরে ক্যাম্প থেকে নিখোঁজ রয়েছেন।

ভিডিও বার্তায় দেওয়া ঠিকানা সঠিক হলেও খুনের তথ্যটি সঠিক নয় বলে দাবি করছে পুলিশ।

এপিবিএন পুলিশ বলছে, প্রকৃত খুনিদের আড়াল করতে ভিডিও বার্তায় মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছে ওই যুবক। ভিডিও বার্তা প্রকাশকারী যুবক মো. হাসিমের বাবা আব্দুল জব্বার বলেন, ছেলে হাসিম সন্ত্রাসী হয়ে গেছে। সে দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ রয়েছে। ভিডিও বার্তায় যেসব তথ্য প্রকাশ করেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। তাকে হয়তো কেউ জোর করে ভিডিও করে কথাগুলো প্রকাশ করে।

এ জন্য তিনি ছেলেকে গ্রেপ্তারের দাবি জানান।

এ বিষয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দায়িত্বরত ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ জানান, অপরাধের দায় স্বীকার করে ফেসবুকে প্রচারিত জনৈক যুবক মো. হাসিম রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সংঘটিত কয়েকটি হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত এমন একটি স্বীকারোক্তিমূলক বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হয়।

পরে বিষয়টি যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে রোহিঙ্গা ক্যাম্প-১৮ তে অবস্থিত হাসিমের ঠিকানায় তার নিকট আত্মীয়দের সঙ্গে কথা বলে তার নাম-ঠিকানা সঠিক পাওয়া গেছে। তার নিকট আত্মীয়ের কাছে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, হাসিম গত কয়েক মাস থেকে তার নিজস্ব শেল্টারের বাইরে অবস্থান করছে।

তিনি আরও জানান, বিভিন্ন উৎস থেকে প্রাপ্ত অপরাধ গোয়েন্দা তথ্য যাচাই-বাছাই করে প্রাথমিকভাবে জানা যায়, হাসিমের প্রদেয় বক্তব্য সঠিক নয়। প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করতে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে বা কারও প্ররোচনায় হাসিম এ ধরনের অপপ্রচার চালিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

‘তবুও হাসিমের দেওয়া বক্তব্যকে গুরুত্ব সহকারে যাচাই-বাছাই করে তাকে আইনের আওতায় এনে প্রকৃত রহস্য উদ্‌ঘাটনের চেষ্টা অব্যাহত আছে। সকল দুষ্কৃতকারীদের গ্রেপ্তারের লক্ষ্যে এপিবিএন পুলিশ সদা তৎপর রয়েছে। বর্তমানে ক্যাম্পের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে’ বলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারে উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চার মাঝিকে হত্যার দায় স্বীকার করে একটি ভিডিও বার্তা প্রকাশ করে মো. হাসিম নামের এক যুবক। পরে ভিডিও বার্তাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।