শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শাবিতে জাফর ইকবালের ভূমিকা প্রশংসনীয় : জাফরুল্লাহ

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের অনশনের ঘটনায় ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল যে ভূমিকা নিয়েছেন তা অত্যন্ত প্রশংসনীয় বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার পাগলা বাজার গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে ‘বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা ক্যাম্প ও অপারেশন উদ্বোধন শেষে’ সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশ ডাকা ঠিক হয়নি। এখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকরা ভূমিকা পালন করতে পারতেন। কিন্তু প্রথমে কেউ এগিয়ে আসেনি। ছাত্র-ছাত্রীদের যে সমস্যা ছিল, তা সমাধান করা উচিত ছিল। তবে বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক অধ্যাপক ও জনপ্রিয় লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল যে ভূমিকা নিয়েছেন- তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়।

সরকার সব সময় ভুল পথে হাটে মন্তব্য করে জাফরুল্লাহ বলেন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনা এতো দূর পর্যন্ত গড়াত না যদি শিক্ষামন্ত্রী সঠিক সময়ে ভূমিকা পালন করতেন। আন্দোলন শুরু হওয়ার সাথে সাথেই শিক্ষামন্ত্রীকে এখানে আসা উচিত ছিল। সরকার ঐ সময় অন্ধ হয়ে যায়। ছাত্র-ছাত্রীদের যারা সহায়তা করেছে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই কাজটি ঠিক হয়নি। আমার টাকা, আমি সাহায্য করতেই পারি। কিন্তু আমাকে কি এখন ধরে নিয়ে যাবে?

‘একজন ভিসির জন্য সরকার অন্ধ হয়ে গিয়ে জনগণের চিন্তা করে না। মানুষের অনুভূতি বুঝতে চায় না। এ সকল ব্যপারে সরকার ভুল করাতে ঝামেলার সৃষ্টি হয়।’

র‍্যাবের কর্মকাণ্ডের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, র‍্যাব তৈরি করেছিল বিএনপি। কিন্তু তারা বিতর্কিত কাজ করেছে। ইয়াবা দিয়ে ধরে নিয়ে যায়। ইয়াবা তো ডাক্তার প্রেসক্রিপশন দিলে দাম পড়ে মাত্র তিন টাকা। কিন্তু এটা নেশা হিসেবে ব্যবহার করায় আমাদের দেশে সমস্যা হচ্ছে। এজন্য যদি একজন লোককে ধরে নিয়ে গিয়ে গুম করে ফেলা হয় তা হলে কেমনে হবে! বর্তমানে র‍্যাব খুব বিতর্কিত হয়ে গেছে।

এসময়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, পাগলা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পরিচালক আব্দুল আউয়াল, জগন্নাথপুর উপজেলার সমাজসেবক হাজী সোয়েল আহমেদ খান টুনু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। চিকিৎসা টিমের নেতৃত্ব দেন গ্রামীণ স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. একে এম হালিমুর রেজা মিলন।

এছাড়া ডা. এইচ এম শাহারিয়ার সাবেদ, ডা. এ কে মোস্তফা, ডা. মো. আব্দুস সাত্তার চৌধুরী, ডা. মো. ইকবাল হোসেন, ডা. এরশাদ জাহান নাসরিন. ডা. মিঠুন রাজবংশী, অধ্যাপক ডা. গৌড় গোপাল সাহা, ডা. মিলন খান, ডা. শহিদুল ইসলাম, সাইম ভূইয়া, দীপংকর চৌধুরী, ডা. মিম, ডা. সজিব, ডা. প্রিয়াংকা, ডা. মনিরা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

এ জাতীয় আরও খবর