রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সেই নারীর প্রতি মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের খোলা চিঠি

 

 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :ক্যালিফোর্নিয়ায় স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ধর্ষণ মামলার বাদী সেই নারীর প্রতি একটি খোলা চিঠি লিখেছেন যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বিডেন। সেই চিঠিতে মেয়েটির সাহসের প্রশংসা করেছেন তিনি।তিনি লিখেছেন, ‘আমি তোমার নাম জানি না, কিন্তু তোমার কথা আমার আত্মাকে স্পর্শ করেছে। এই কথাগুলো সব বয়সের নারী পুরুষের পড়া উচিত। আমি অন্তরের অন্তস্থল থেকে অনুভব করছি, আহা, তোমার যদি এই কথাগুলো লিখতে না হতো!’

image_96576_0.gif

 

তার অভিজ্ঞতা ও বিচার ব্যবস্থায় ধর্ষিত নারীর প্রতি সমাজের নির্মিত মনোভাব তুলে ধরার জন্য তাকে সাধুবাদ জানান ভাইস প্রেসিডেন্ট।তিনি লেখেন, ‘কলেজ ক্যাম্পাসের ধর্ষণের সংস্কৃতি এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছে গেছে যে, প্রতি পাঁচজনে একজন নারী শিক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হন। বছরের পর বছরের পর বছর।’

 

 

ভাইস প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, ‘যে লক্ষ লক্ষ মানুষ তোমার লেখাটি পড়েছে, তাদের কেউ তোমাকে কখনও ভুলবে না। তুমি একজন যোদ্ধা।’প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের জানুয়ারি মাসে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের তারকা সাতারু ব্রুক টার্নার এক পার্টি শেষে অচৈতন্য ও মদমত্ত অবস্থায় থাকা লেসলি রাসমোসেনকে যৌন হয়রানি করেন ও ধর্ষণের চেষ্টা করেন। সম্প্রতি ওই মামলায় তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড ও পর্যবেক্ষণে রাখার রায় দেয় এক আদালত।

 

 

রায়ের প্রেক্ষিতে ব্রুক টার্নারের বাবা ড্যান টার্নার দাবি করেন, মাত্র ‘২০ মিনিটের কাজে’র জন্য জেলে যেতে পারে না তার ছেলে। রায়ের পর ব্রুকের যৌন আক্রমণের লক্ষ্য এক বিবৃতিতে লেসলি নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন। তাতে ধর্ষণ মামলায় ধর্ষিত নারীর ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া প্রবল সামাজিক, রাজনৈতিক ও আইনি চাপের হৃদয়গ্রাহী বর্ণনা পাওয়া যায়।

 

 

এই মামলার রায় দিয়েছিলেন সান্তা ক্লারা কাউন্টি কোর্টের বিচারক অ্যারন পারস্কি। অচেতন ও মাতাল এক নারীর ওপর যৌন নিগ্রহের দায়ে আসামী ব্রুক টার্নারকে মাত্র ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন তিনি। লেসলির বিবৃতির ভিত্তিতে অ্যারন পারস্কির বিরুদ্ধে ক্ষোভের সঞ্চার হয় ও তার অপসারণের দাবি নিয়ে এক গণস্বাক্ষর প্রচার অভিযানে লক্ষ লক্ষ সমর্থক সই করেন। এই পরিস্থিতিতে নতুন করে এক বিবৃতি দেন লেসলি। তাতে ব্রুকের শাস্তির বিষয়ে নিজের অবস্থান পরিবর্তন করেন তিনি।