রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্যাপক উদ্দীপনায় কসবা সীমান্ত হাটের কার্যক্রম শুরু

news-image

শেখ কামাল উদ্দিন : বাংলাদেশ-ভারত সরকারের যৌথ উদ্যোগে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সিপাহীজলা জেলার কমলাসাগর এবং বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার তারাপুর সীমান্ত হাট গতকাল বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে শুভ সুচনা হয়েছে। বৈরি আবহাওয়া উপেক্ষা করে দু‘দেশের ক্রেতারা হাটে পণ্য কেনাকাটায় অংশ নেন।
গতকাল বৃহস্পতিবার (১১ জুন) হাটের প্রথম দিন উপলক্ষে সীমান্ত হাটে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। দু‘দেশের শিল্পীদের সংগীত পরিবেশনের পর শিখা প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে হাটের আনুষ্ঠানিক সুচনা করা হয়।
ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের শিল্প ও বাণিজ্য দপ্তরের প্রধান সচিব ডি.সি.এস আইয়াঙ্গার এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন; ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন, ভারতের সিপাহীজলার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট প্রদীপ চক্রবর্তী, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম)  নাজমা বেগম, সিপাহীজলা জেলার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) ডি. কে চাকমা, সিপাহীজলা জেলার সভাধিপতি ফখরউদ্দিন আহাম্মদ, কসবা পৌরসভার মেয়র মুহাম্মদ ইলিয়াছ।  
এ সময় বাংলাদেশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন; বিজিবির ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্ণেল নজরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম. এ মাসুদ, কুমিল্লার কাস্টমস কর্তকর্তা রাশেদুল আলম, কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আনিছুল হক ভূইয়া, কসবা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ আরিফুল ইসলাম, কসবা থানার অফিসার ইন চার্জ মো. গোলাম মোর্সেদ, বিজিবির কম্পানী কমান্ডার সুবেদার মো. আমিনুল ইসলাম, কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা ইয়াছমিন আক্তার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী হাকিম সোহেল আহমেদ।
ভারতের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন, বিশালঘর পঞ্চায়েত সমিতির চেয়ারপার্সন দুলন সরকার হাজারী, বিশালঘর সাব ডিবিশনের সাব-ডিবিশনাল ম্যাজিস্ট্রেট প্রসুন দে,  বিশালঘরের এস.ডি.পিও অরুণ সরকার, বিএসএফের কমান্ডার রণবির সিং, কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা সন্দিপ দাস, ভূমি কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার দেব, কর্মকর্তা সুব্রত দাস,  শিল্প ও বাণিজ্য উন্নয়ন কর্পোরেশনের অতিরিক্ত পরিচালক স্বপন মিত্র, জেনারেল ম্যানেজার শ্যামল কুমার দেব।  
সীমান্ত হাট বাস্তবায়ন সূত্রে জানা গেছে; সীমান্তের ২০৩৯ পিলারের কাছে কসবা পৌর এলাকার তারাপুর এবং ত্রিপুরা রাজ্যের সিপাহীজলা জেলার কমলাসাগর এলাকায়  দু‘দেশের সমপরিমান ১ একর ৫০ শতক জায়গায় সীমান্ত হাট নির্মাণ হয়েছে।
 দু‘দেশের ২৫টি করে ৫০টি দোকান বসবে। প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টা থেকে শুরু করে বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত এ হাট চলবে। সীমান্ত হাটে এক সাথে ১শ’ ৫০ জন করে দু’দেশের ৩শ’ ক্রেতা কেনাকাটা করতে পারবে।
সীমান্ত হাটে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ১৫ ধরণে ও ভারতের ১৫ ধরণের পণ্য বেচাকেনা হয়।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক বলেন; দু’দেশের নাগরিকের আস্থা ও ভালোবাসার বন্ধন সুদৃঢ় করার জন্য এ সীমান্ত হাট। এ হাটের মাধ্যমে  দু‘দেশের সর্ম্পক আরো বৃদ্ধি পাবে।
হাটে প্রথম দিনের সূচনা লগ্নে দু’দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ পারস্পারিক মতবিনিময়ে অংশ নেন। অতীতের স্মৃতিচারণে অনেকেই আবেগতারিত হয়ে পড়েন।

 

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

দুদকের মামলা স্থগিতে বদির আবেদন খারিজ

সকালে তীব্র, দুপুরে সহনীয় যানজট

অর্থ আত্মসাৎ: নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টিকে গ্রেফতারের নির্দেশ

‘মুজিব’ সিনেমার ট্রেলার দেখে সবাই কেন হতাশ তার কারণ পাচ্ছেনা পরিচালক

হয়রানির শিকার বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা

অ্যান্থনি নরম্যান আলবানিজকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

উত্তরায় নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু

কাশিমপুর কারাগারে নারী হাজতির মৃত্যু

সিঙ্গাপুরের হেড কোচ হলেন সালমান বাট

ধানুশের আসল বাবা-মা নাকি তারাই! মানতে নারাজ অভিনেতা

পাকিস্তানি নারীর ‘প্রেমের ফাঁদে’ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার, ভারতীয় সেনা গ্রেপ্তার