রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রগতিশীল ছাত্র সংঘ, হাবলাউচ্চ (Progressive student club, Hablauchcha) এর ইতিকথা

news-image

শামসুর রহমান বকুল : বর্তমানে হাবলাউচ্চ আদশ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের সাথে একটি সংগঠন অংগাঅঙ্গী ভাবে জড়িত। আর এই সংগঠনটির নাম প্রগতিশীল ছাত্র সংঘ (Progressive student club)। জাতীয় দিবসগুলি পালন এবং সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্য নিয়ে ১৯৯০ সালে এর যাত্রা শুরু হয়। এখন যারা এই সংগঠনের সাথে জড়িত তাদের অনেকেই জানেনা এর জন্ম ইতিহাস।

আমরা যখন ছোট ছিলাম, সত্তরের দশকে হাবলা উচ্চ স্কুল প্রাঙ্গণে জাতীয় দিবস গুলি পালন করা হতো সীমিত পরিসরে । কিন্তু কোন এক অজানা কারনে আশির দশকে এসে বন্ধ হয়ে যায়। তখন বিরাম পুরের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে বিরাম পুর প্রাইমারী স্কুলে জাতীয় দিবসগুলি পালন হতো।

১৯৮৭ সালে তেমনি এক একুশে ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠানে বিরাম পুর গিয়েছিলাম বন্ধুদের দাওয়াত পেয়ে। সেখানে যাওয়ার পর কবিতা আবৃতি এবং উপস্থিত বক্তৃতার দুটি ইভেন্টে অংশ গ্রহণ করে প্রথম হই । পুরস্কার নিয়ে আসার সময় সারাটা পথ মনে মনে ভেবেছি একটা হাই স্কুল থাকতে আমরা কেন প্রাইমারী স্কুলের অনুষ্ঠানে যাই? ঠিক করি যেইভাবেই হোক একটা সংগঠন দাড় করাবোই।

সেই ভাবনাকে বাস্তবে রূপ দিতে আর ৩ বছর লেগে যায়। ১৯৯০ সালে আমি তখন এইচ এস সি পরীক্ষার্থী । একুশে ফেব্রুয়ারিকে সামনে রেখে গঠন করি প্রগতিশীল ছাত্র সংঘ (Progressive student club)। আমাকে নির্বাচিত করা হয় প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। এই সংগঠনটিকে বাস্তবে রূপ দিতে যারা শ্রম দিয়েছে তাদের কয়েকজনের নাম না বললেই নয়। তারা হলঃ জাকির হোসেন, শেখ সাচ্চু মিয়া, শেখ হামদু মিয়া, মুসা মিয়া,এরশাদুল ইসলাম, সৈয়দ সারোয়ার আলম প্রমুখ।
মূল্যবান উপদেশ এবং আর্থিক সহায়তা দিয়েছেনঃ জনাব জসীম উদ্দিন আহ্মদ, শ্রী দিলিপ কুমার ভট্রাচারয, শ্রী সন্তোষ ভৌমিক, জনাবা রেহানা গুলশান রুনু।

আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন পূর্ব পাড়ার জনাব আবুল কাশেম(বেকারি কাশেম নামে সমধিক পরিচিত), জনাব আব্দুল কাইউম (বেকারি কাইউম নামে সমধিক পরিচিত) এবং অনেকে। হাবলা উচ্চ হাই স্কুল এবং প্রাইমারী স্কুলের ছাত্র ছাত্রীরা ও চাঁদা দিয়েছিল।

প্রথমবার আমরা বাঁশ এবং বেত দিয়ে শহীদ মিনার বানাই। কাজটা করেছিল দীঘির পাড়ের মুসা ভাই এবং এরশাদুল ইসলাম। মাত্র ২০০০ (দুই হাজার) টাকা টোটাল বাজেটে আমরা সব কাজ সম্পন্ন করেও ১৫০ টাকা ব্যালেন্স ছিল। যা দিয়ে পরবর্তী বছরের জন্য ৫০০ রিসিট ছাপিয়ে ছিলাম। এই স্বল্প টাকা দিয়ে অনুষ্ঠান এবং খেলাধুলার পুরস্কারও কেনা হয়েছিল। ছোট একটি নাটিকাও মঞ্চস্থ করা হয়।

সুলতানপুর ইউনিয়ন ছাত্র দলের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে তৎকালীন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য এবং মন্ত্রী এডভোকেট হারুন আল রশিদ সাহেব থেকে প্রগতিশীল ছাত্র সংঘের আনুকুলে আনুদান বাবদ ৪০০০ (চার হাজার) টাকা আনতে সমর্থ হই। তার সাথে এলাকার শিক্ষানুরাগীদের সহযোগিতায় পরের বছর একুশে ফেব্রুয়ারির আগেই প্রথমবারের মতো হাবলা উচ্চ স্কুল প্রাঙ্গণে পাকা শহীদ মিনার তৈরি করি। যা স্কুলের সম্প্রসারনের জন্য ভেঙ্গে ফেলার আগ পর্যন্ত বিদ্যমান ছিল।

বর্তমানে এই সংগঠনটি নতুন প্রজন্মের হাত ধরে এগিয়ে যাচ্ছে। ভবিষ্যতে আমরা এটিকে সমাজ বদলের হাতিয়ার হিসাবে গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখি। এবং আগামী ২০১৭ সালে হাবলা উচ্চ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানটি আয়োজনের আশা রাখি। ইনশাল্লাহ আগামী বছরের শুরু থেকেই এ লক্ষ্যে কাজ শুরু হবে। সবাইকে এব্যাপারে মূল্যবান পরামর্শ দিয়ে অনুষ্ঠানটিকে সাফল্য মণ্ডিত করার অনুরোধ রইলো।

শুভ কামনা এই বিদ্যাপীঠের সকল অতীত এবং বর্তমান শিক্ষার্থীদের জন্য।


হাবলাউচ্চ আদশ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের ফেসবুক ফ্যান পেইজে লাইক দিতে ভুলবেন না।

ফ্যান পেইজের কি ওয়ার্ডঃ  Hablauchcha Adarsha High School / হাবলাউচ্চ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়

 

ধন্যবাদান্তে –

শামসুর রহমান বকুল

প্রতিষ্ঠাতা/ সাবেক সভাপতি

প্রগতিশীল ছাত্র সংঘ (Progressive student club)

এ জাতীয় আরও খবর

দুদকের মামলা স্থগিতে বদির আবেদন খারিজ

সকালে তীব্র, দুপুরে সহনীয় যানজট

অর্থ আত্মসাৎ: নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টিকে গ্রেফতারের নির্দেশ

‘মুজিব’ সিনেমার ট্রেলার দেখে সবাই কেন হতাশ তার কারণ পাচ্ছেনা পরিচালক

হয়রানির শিকার বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা

অ্যান্থনি নরম্যান আলবানিজকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

উত্তরায় নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু

কাশিমপুর কারাগারে নারী হাজতির মৃত্যু

সিঙ্গাপুরের হেড কোচ হলেন সালমান বাট

ধানুশের আসল বাবা-মা নাকি তারাই! মানতে নারাজ অভিনেতা

পাকিস্তানি নারীর ‘প্রেমের ফাঁদে’ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার, ভারতীয় সেনা গ্রেপ্তার