মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভর্তিযুদ্ধ: সত্তর হাজার আসনের বিপরীতে পরীক্ষার্থী ৭ লাখ

pablic unডেস্ক রির্পোট : পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এবার ৭০ হাজার আসনের বিপরীতে ভর্তি যুদ্ধে নামছে প্রায় ৭ লাখ শিক্ষার্থী। ফলে এবারো অনেক শিক্ষার্থী ভর্তিবঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মানসম্মত উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সীমিত আসন সংখ্যা, অধিকাংশ প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের আস্থাহীনতা ও চড়া টিউশন ফি এবং সবচেয়ে বেশি আসনবহুল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের কম আকর্ষণই এ পরিস্থিতি তৈরি করেছে।
এবার এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় বিভিন্ন গ্রেডে মোট পাস করেছে ৮ লাখ ৮৫ হাজার ৭০ জন। এদের মধ্যে ১০টি শিক্ষা বোর্ডে জিপিএ-৫ লাভ করেছে ৭০ হাজার ৬০২ জন। জিপিএ-৫ থেকে জিপিএ-৩ পেয়েছে প্রায় ৬ লাখ ৬৬ হাজার ৭২১ শিক্ষার্থী।
এর বাইরে গত বছর পাস করা কিন্তু পছন্দের প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারেনি এমন কমপক্ষে অর্ধলাখ শিক্ষার্থী দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষা দেবে। সবমিলে এ বছর অন্তত ৭ লাখের বেশি শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তিযুদ্ধে লিপ্ত হবে।
উচ্চ মাধ্যমিকে ভালো রেজাল্ট করা বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরই স্বপ্ন থাকে মেডিকেল কলেজ, বুয়েট বা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার। কিন্তু আকর্ষণের কেন্দ্রে থাকা দেশের ৩৫টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ও ইন্সটিটিউট মিলে আসন মাত্র ৭০ হাজারের কিছু বেশি।
এর মধ্যে বুয়েট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৮ হাজার, সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ৮ হাজার ৩৫০টি, পছন্দের শীর্ষে থাকা ৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ২১ হাজার আসন রয়েছে।
উন্মুক্ত ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ লাখ ৪২ হাজার আসন রয়েছে। এর মধ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন ১৯৯টি কলেজে স্নাতকে (সম্মান) ১ লাখ ৭৬ হাজার ৫টি এবং ১ হাজার ৪৭৪টি কলেজে পাস কোর্সে প্রায় আড়াই লাখ, কলেজ অব লেদার টেকনোলজি ও কলেজ অব টেক্সটাইল টেকনোলজিতে ৪৫৫টি, ১৬টি ইন্সটিটিউট অব হেলথ টেকনোলজিতে (বিএসসি) ১ হাজার ৬৫টি আসন রয়েছে বলে জানা গেছে।
তবে ভর্তির জন্য মূল যুদ্ধটা হবে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় আর মেডিকেল কলেজের ৪৬ হাজার আসনের বিপরীতেই।
উচ্চশিক্ষায় এবার ভর্তি মৌসুম গত বছরের তুলনায় কয়েক মাস এগিয়ে এসেছে। ইতিমধ্যে ১৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, ৮৫টি মেডিকেল কলেজ ও ১৯টি ডেন্টাল কলেজের পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনে আবেদনের মাধ্যমে এবং ১৮ আগস্ট থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন প্রক্রিয়াও শুরু হতে যাচ্ছে।
একই সঙ্গে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের আবেদন প্রক্রিয়াও এ মাসে শুরু হচ্ছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সাধারণত পছন্দের তালিকার শীর্ষে থাকে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, জাহাঙ্গীরনগর এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।
বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ৭৯ টি হলেও এর মধ্যে নর্থসাউথ, ইস্টওয়েস্ট, ব্র্যাক, আহছানউল্লাহ, ইন্ডিপেনডেন্ট এবং আমেরিকান ইন্টারন্যাশনালসহ হাতেগোনা কয়েকটি ইউনিভার্সিটি শিক্ষার্থীদের বেশি আকর্ষণ করে থাকে, যদিও এগুলোর ব্যয় কাঠামো সাধারণের নাগালের বাইরে।
এর বাইরে ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষায় বুয়েট, কৃষি শিক্ষার জন্য বাংলাদেশ কৃষি এবং শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় পছন্দের তালিকায় শীর্ষে থাকে। ইতিমধ্যে কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় তাদের ভর্তি প্রক্রিয়ার সময়সূচি ঘোষণা করেছে।
ভর্তি প্রক্রিয়া আগে শুরুর ক্ষেত্রে বরাবরই এগিয়ে থাকে দেশের অন্যতম সেরা প্রতিষ্ঠান বুয়েট। এ প্রতিষ্ঠানটি অবশ্য এবার এখনও তাদের ভর্তি প্রক্রিয়ার দিনক্ষণ ঘোষণা করেনি।
ভর্তি প্রক্রিয়া সবসময়ই বিলম্বে শুরু করে থাকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। জানা গেছে, এবারও তারা অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে তাকিয়ে রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ জানান, এরপরও এবার তারা তুলনামূলক আগেভাগেই কার্যক্রম শুরুর চিন্তা-ভাবনা করছেন।
এদিকে গত কয়েক বছর ধরে সরকার গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তির ব্যবস্থার জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে আসছে। কিন্তু এবারও সরকার তাতে সফল হয়নি।
শিক্ষামন্ত্রী বলছেন, ভর্তির জন্য আসনের কোনো সংকট নেই। দেশে উচ্চশিক্ষায় পর্যাপ্ত আসন ব্যবস্থা রয়েছে। শিক্ষার্থীদের ভর্তিতে কোনো সমস্যা হবে না। তবে মানসম্মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অভাবের কথা স্বিকার করেন তিনি। সব বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সমানভাবে আকর্ষণ করতে পারে না। সেই বিচারে গুটিকয় বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ভিড় লক্ষ্য করা যায়। মন্ত্রী বলেন, আমরা এ কারণে এখন শিক্ষার মানের ওপর জোর দিচ্ছি।