শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রাথমিক শিক্ষায় শিশুদের নজরুল সঙ্গীত চর্চার প্রয়োজনীয়তা–কবিতা ভূঁইয়া

Kazi-Nazrul-Islamসঙ্গীত মনের খোরাক। প্রতিটি মানুষকেই সঙ্গীত আকর্ষণ করে। জীবনের এমন কোন ক্ষেত্র নেই যেখানে সঙ্গীতের পদচারণা ঘটেনা। শিল্পের এমন কোন অঙ্গন নেই যেখানে সঙ্গীতের প্রয়োজন পড়েনা। কি নাচে, কি অভিনয়ে, কি আবৃত্তিতে, কি চারুকলায়, কি মিছিলে, কি গালিতে, কি প্রতিবাদে, কি প্রেমে, কি বিরহে, কি হাসিতে, কি কান্নায়, কি যুদ্ধে, কি শাস্তিতে, কি জন্মে, কি মৃত্যুতে……….।
যিনি কবিতা লেখেন তিনি কবি। যিনি গান লেখেন তিনি গীতিকার। যিনি গান সুর করেন তিনি সুরকার। যিনি গল্প লেখেন তিনি গল্পকার। নাটক যিনি লেখেন তিনি নাট্যকার। যিনি উপন্যাস লেখেন তিনি উপন্যাসিক। যিনি ছড়া লেখেন তিনি ছড়াকার। তবে যার মধ্যে উপরোক্ত সমস্ত প্রতিভা ই বিদ্যমান তিনি তাহলে কী? এক কথায় তিনি অসাধারণ। সমালোচনাকে পদদলিত করে উর্ধ্বে উঠে যে নিজেকে প্রতিষ্ঠত করতে পারেন তিনি নিঃসন্দেহে শ্রেষ্ঠ। আমার কাছে শ্রেষ্ঠ কবি কাজী নজরুল ইসলাম। অসাধারণ কবির অসাধারণ গান আমার প্রিয়। আর প্রিয় ৬-১০ বছর বয়সী প্রাথমিক শিক্ষার উপযোগী কোমলমতি শিশুরা। শিশুরা মাটির ঢেলার মত। প্রাথমিক স্তরে তারা যে শিক্ষা পায় সে শিক্ষাই হৃদয়ে গাঁথা হয়ে যায়। উচ্চ শিক্ষিত, রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ ডিগ্রীধারী একজন ব্যক্তির কার্যক্রমের মধ্যে যখন স্বদেশ প্রেমের কোন পরিচয় পাওয়া যায় না তখন শুধুমাত্র ব্যথিত হওয়া ছাড়া কিছু করণীয় থাকে না। কারণ বিশ্ব বিদ্যালয়ের ঐ সর্বোচ্চ ডিগ্রীধারী ব্যক্তিটি তখন আর মাটির ঢেলার পর্যায়ে নেই। তখন তিনি মানব প্রেমহীন, স্বদেশ প্রেমহীন মূর্তিমান পাথরের ঢেলা। যে হীন স্বার্থ চরিতার্থ করতে হানাহানিতে লিপ্ত। হাস্যকর হলেও সত্য যে ঐ পাথরের ঢেলার ভেতরে প্রবেশ করানোর কোন সুযোগ থাকে না। আর তার মনে স্বদেশ প্রেম জাগানো অসম্ভব। শরীরের ঘাম জড়িয়ে মনে স্বদেশ প্রেম জাগানোর কাজটি প্রথমেই করতে হবে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষকদের। যারা মাটির ঢেলার শিক্ষক। তারপর পর্যায়ক্রমে মাধ্যমিক স্তর, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়। আর এ জন্য সর্বপ্রথম প্রয়োজন বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষায় আবহমান বাংলার মৌলিক সংস্কতির চর্চা বাধ্যতামূলক করা। শিশুদের স্বদেশ প্রেমে উদ্বুদ্ধ করণে এই মৌলিক সংস্কৃতির প্রথম ধারা হিসেবে আমি জাতীয় কবি কাজী নজরুলের কবিতা এবং গানকেই শিশুদের সামনে উপস্থাপন করার অধিকতর পক্ষপাতি। এর স্ব-পক্ষে আমি কিছু মতামত সংক্ষিপ্ত আকারে ব্যক্ত করছি। ধরা যাক, কবি নজরুলের ‘মানুষ’ কবিতার চরণ দুটো-
“গাহি সাম্যের গান
মানুষের চেয়ে বড় কিছু নাই, নহে কিছু মহীয়ান
নাই দেশ-কাল-পাত্রের ভেদ, অভেদ ধর্ম জাতি”
এই কবিতার বাণী গুলোর সঠিক ব্যাখ্যা শিখে যখন একটা শিশু চর্চা করবে তখন সে একজন মানুষকেই বড় করে দেখবে। কে হিন্দু, কে মুসলিম ই বিভেদ শিশুর মন থেকে অনেক দূরে অবস্থান করবে।
তবে অসাধারণ এই কবির প্রকৃত পরিচয় নিহিত তার গানে, তার সংগীতে। ফলে তার কাব্য প্রতিভা স্ফুরনের মূলধারা বলা চলে সংগীতে। কবি নজরুল তার গানের মর্মবাণী তিনি নিজেই উপলব্ধি করেছিলেন। তাই তিনি নিজেই সমালোচকদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, “আপনারা আমার কবিতা সম্পর্কে যা ইচ্ছা বলুন কিন্তু গান সম্পর্কে নয়। গান আমার আত্মার উপলব্ধি।” তাইতো নজরুলের গান কালকে জয় করে হয়ে উঠেছে কালজ্বয়ী। কালজ্বয়ী হলেও নজরুলের গান হয়নি সার্বজনীন। নজরুলের আত্মার উপলব্ধি যদি প্রাথমিক স্তরের শিশুদের আত্মায় আত্মস্থ হয় তা হবে সার্বজনীন। শিশুদের মনে জাগবে স্বদেশ প্রেমের চেতনা। প্রাথমিক শিক্ষা হল মৌলিক শিক্ষা, বুনিয়াদী শিক্ষা। বাধ্যতামূলক সার্বজনীন এই মৌলিক শিক্ষার একমাত্র উদ্দেশ্য শিশু বয়স থেকে শিশু মনে স্বদেশ প্রেমের চেতনা জাগ্রত করে আদর্শ যোগ্য অর্থাৎ সুনাগরিক হিসাবে শিশুদের গড়ে তোলা। আর এ লক্ষ্যে নজরুলের গানকেই সর্বাধিক প্রাধান্য দেওয়াকে আমি যুক্তিযুক্ত মনে করি। কেননা নজরুলের গানের প্রকৃতিতে রয়েছে দেশাত্মবোধক গান, মানবপ্রেম গীতি, হাসির গান। নজরুলের স্বদেশ প্রেমের গানে রয়েছে নব জাগরণের আহ্বান, দেশ প্রেমের উম্মাদনা, পরাধীনতার জ্বালা ও বৈপ্লবিক চেতনা। শিশুদের প্রাথমিক পর্যায়েই যদি তাদের মননে, চিন্তা-চেতনায় সঙ্গীতের এদিকগুলো প্রবেশ করানো যায় তাহলেই একটা শিশু দেশপ্রেমিক আদর্শ নাগরিক হয়ে গড়ে উঠবে। আর তা সম্ভব নজরুল সঙ্গীত চর্চার মাধ্যমে। নজরুলের গানে মূর্ত হয়ে উঠেছে জনগণের স্বাধীনতার আকাঙ্খা ও মুক্তি সংগ্রামের স্পৃহা। তাইতো তিনি জেল কর্তৃপক্ষকে বিদ্রুপবান নিক্ষেপ করেছিলেন-
“তোমারই জেলে পালিছ ঠেলে
তুমি ধন্য ধন্য হে,
আমার এ গান তোমারই ধ্যান,
তুমি ধন্য ধন্য হে।
রেখেছ সান্ত্রী পাহারা দোরে
আধার কক্ষে জামাই আদরে
বেঁধেছ শিকল প্রণয় ডোরে,
তুমি ধন্য ধন্য হে,
আকাড়া চালের অন্ন লবন
করেছ আমার রসনা লোভন
বুড়ো ডাটা-ঘাটা লাপসী শোভন
তুমি ধন্য ধন্য হে”
এ গানটির বাণী গুলো প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের যদি শেখানো হয় ঐ শিশু শুলো পরবর্তী জীবনে স্বদেশ প্রেমের চেতনায় কখনো কথা ও কলম ব্যতিত কাউকে ঘায়েল করার জন্য কোন অস্ত্র ব্যবহার করবে না। মানব প্রেমের গান সৃষ্টিতে নজরুল এবং অবিসংবাদিত গীতি কবি। প্রেম সঙ্গীত রচনায় তিনি অপ্রতিদ্ব›দ্ধী। তার প্রেম সংগীতে মানুষের হৃদয়ের অনুভূতি সার্থক রুপে প্রকাশিত হয়েছে। ধরা যাক,
“আমার গানের মালা আমি করব কারে দান
মালার ফুলে জড়িয়ে আছে করুন অভিমান”
এ গানের বাণী এবং সুর একটা শিশুমনে বদ্ধমূল হলে তার মনে ভালবাসার বোধ জন্মাবে। পারিবারিক এবং সামাজিক জীবনে তার পাশের প্রতিটি মানুষকেই সে ভালবাসবে। প্রকৃতি প্রেম নজরুল তার গানে রূপায়িত করেছেন অত্যন্ত সার্থকভাবে। ধরুন-
“শ্যামা তন্বী আমি মেঘ বরণা
দৃষ্টিতে বৃষ্টির ঝরে ঝরনা”
এ গানের চর্চায় একটা শিশুর মনে প্রকৃতিপ্রেম জাগ্রত হয়ে প্রকৃতির মতো করে নিজেকে সাজানোর মনোভাব তৈরি হবে। প্রকৃতির রঙে নিজেকে মেলাবে। পরবর্তী সময়ে সে হবে প্রকৃতি প্রেমী।
এখন নজরুলের ইসলামী গানের কথায় আসা যাক। ইসলামী গান নজরুল ইসলাম ধর্র্মের প্রকৃত ব্যাখ্যা অত্যন্ত সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন। ধর্মীয় আচরণ অনুষ্ঠানেও প্রকৃত মুসলমানের স্বরুপ কি হবে তা বলেছেন।
যেমন-
“নামাজ পড় রোজা রাখ কলমা পড় ভাই

তোর আখেরের কাজ করে নে সময় যে আর নাই”
ওহ….. কি অপূর্ব সৃষ্টি নজরুলের। এ গান এই বুনিয়াদী শিক্ষার শিশুরা শিখলে ঐ শিশুরা বড় হয়ে ধর্মের নামে হত্যাযঞ্জ, জ্বালাও, পোড়াও নামক ধর্মীয় উম্মাদনার অপসংস্কৃতিতে লিপ্ত হবে না।
আরেকটি গানের কথা না বললেই নয়
“ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে
এল খুশির ঈদ,
তুই আপনাকে আজ বিলিয়ে দে
শোন ইসলামী তাকীদ”
স্বার্থপরতা ত্যাগ করে নিজেকে বিলিয়ে দিয়ে পরোপকার করার জন্য ইসলাম যে তাকীদ দিয়েছেন তা অত্যন্ত সুন্দরভাবে নজরুল তার এই গানটিতে রূপায়ন করেছেন। এই গানের বাণী প্রাথমিক স্তরেই যদি শিশু মনে অনুপ্রবেশ ঘটে তাহলে পরবর্তী স্তরে ধর্মীয় অপব্যাখ্যা দানকারীকে সে প্রতিহত করতে পারবে। ধর্মীয় অপব্যাখ্যা দানকারীদের থেকে সে দূরে থাকবে। হীন স্বার্থে নিজেকে সংঘাত জড়ানোর অপচেষ্টা থেকে বিতর থাকবে।

নজরুল নিজে সাম্প্রদায়িকতার উর্ধ্বে উঠে মানব ধর্মের বিশ্বজনীন প্রাঙ্গনে অধিষ্ঠিত হয়েছেন। ফলে সকল ধর্মের মর্মবাণীকে উপলব্ধির মাধ্যমে, তিনি রচনা করেছেন অনেক আধ্যাতিক গান, শ্যামা সঙ্গীত, কীর্তন, ভজন। যে গুলোর যথাযথ শিক্ষায় এবং র্চ্চায় শিশুদের মন থেকে ধর্মীয় গোড়ামী কেটে যাবে।
ধরা যাক, নজরুলের এ গানটি-

“মোরা এক বৃন্তে দুটি কুসুম হিন্দু মুসলমান
 মুসলিম তার নয়ন মনি হিন্দু তাহার প্রাণ”
এ গানের বাণী গুলোর যথাযথ ব্যাখ্যা প্রাথমিক স্তরেই শিশুরা যদি পায় তাহলে আমৃত্যু কোন হিন্দু ধর্মাবলম্বী মসজিদ ভাঙ্গাবেনা আর মুসলমান ধর্মাবলম্বী মন্দির পোড়াবেনা, তা আমি হলফ করে বলতে পারি।
বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষার কারিকুলামে হাতে গোনা দু/তিনটি নজরুলের গান অর্ন্তুভ’ক্ত রয়েছে যা প্রয়োজনের তুলনায় নগন্য। আর সঙ্গীত বিষয়টি সহ-পাঠ্যক্রমিক বিষয় হওয়ায় তা শিক্ষকদের কাছে গুরুত্বহীন। তাই প্রাথমিক শিক্ষার কারিকুলামে নজরুলের সঙ্গীত শিক্ষা এবং চর্চা বাধ্যতামূলক করলেই অনুধাবনমূলক এবং প্রয়োগমূলক শিক্ষার সাফলতা আসবে। সম্প্রসারিত হবে জাতির জন্য একটি ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গীর। শিশুর চিন্তা চেতনায় আসবে পরিবর্ধন। পরিবর্ধন ঘটবে মননশীলতার। প্রাথমিক স্তর থেকেই প্রয়োজন অনুভব করবে সংস্কারের। পরিবার সমাজ এবং রাষ্ট্রের জন্য তৈরি হবে দেশপ্রেমিক নাগরিক। তাই প্রাথমিক স্তরে নজরুল সঙ্গীত চর্চার প্রয়োজনীয়তা অত্যাধিক গুরুত্বপূর্ণ। আর এজন্য প্রাথমিক শিক্ষায় নজরুল সঙ্গীত চর্চা বাধ্যতামূলক করা প্রয়োজন।