রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারতের এ কী লজ্জা!

taskinমিরপুরে বৃষ্টি এল। পেসার সংকটে ভুগতে থাকা বাংলাদেশের জন্য এরপর স্বস্তির বৃষ্টি নিয়ে এলেন তাসকিন আহমেদও। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ওয়ানডে অভিষেকে নিলেন ৫ উইকেট। ভারতের বিপক্ষেই সব দেশ মিলিয়ে অভিষেকে সেরা বোলিংয়ের নতুন রেকর্ড হলো। দশ ওভার বোলিংয়ের সুযোগ পাননি। পেলে হয়তো ফিদেল এডওয়ার্ডের রেকর্ডটা অন্যভাবে ছুঁতে পারতেন। ওয়ানডে ইতিহাসে অভিষেকে ছয় উইকেট আছে কেবল ক্যারিবীয় এই বোলারের।
বাংলাদেশের সামনে সুযোগ ছিল ভারতে বড় এক লজ্জায় ফেলার। ৮৮৭টি ওয়ানডে খেলা ভারত এর আগে মাত্র ছয়বার ১০০ রানের নিচে অলআউট হয়েছে। ৮৬ রানে ভারতের ৯ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর মনে হচ্ছিল ‘লাকি সেভেন’ সাত নম্বর অভিজ্ঞতাটাও হতে চলেছে তাদের। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ১০৫ রানে গিয়ে থাকল সুরেশ রায়নার দল।
‘সুরেশ রায়না’ লেখা হলো বটে, এও সত্যি ভারতের এটি দ্বিতীয় সারির দল। কিন্তু পরিসংখ্যাদের দায় নেই সেসব হিসেবে আনার। বরং বহুদিন ভারতের লজ্জা হয়ে থাকবে বাংলাদেশের বিপক্ষে তাদের আজকের এই ব্যাটিং। ১০৫ রানে অলআউট হওয়া তো আর কম লজ্জার নয়!
এই ধ্বংসযজ্ঞে নেতৃত্ব দিলেন ১৯ বছর বয়সী তাসকিনই। ওয়ানডে ইতিহাসে অভিষেকে পঞ্চম সেরা বোলিংয়ের কীর্তি গড়ে। ভাঙলেন অ্যালান ডোনাল্ডের রেকর্ড। ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেকে ২৯ রানে ৫ উইকে নিয়েছিলেন ডোনাল্ড। প্রোটিয়া সাদা বিদ্যুত্ পরে কিংবদন্তির কাতারে নিয়ে গেছেন নিজেকে। তাসকিন শুরুতেই শোনাচ্ছেন আশার গান।
তরুণ কাঁধের সঙ্গে মিলল পোড় খাওয়া অভিজ্ঞ কাঁধও। ভারতের বিপক্ষে বরাবরই দুর্দান্ত খেলা মাশরাফিও দুর্দান্ত বোলিং করেছেন। ‘ধরে দিবানি’ তত্ত্বের জনক নড়াইল এক্সপ্রেস ৯ ওভার বোলিং করে ৩৫ রানে নিয়েছেন ২টি উইকেট। নামের পাশে নেই, তবে আরেকটি উইকেটের কৃতিত্বও তাঁর। রায়নাকে যে রান আউটে ফিরিয়েছেন মাশরাফিই। রায়নার বিদায় এবং ৬৬ রানে ৬ উইকেট পড়ে যাওয়ার পরই নিশ্চিত হয়ে যায়, ব্যাটিংয়ে ভারতের আর ঘুরে দাঁড়ানোর সম্ভাবনা নেই।

শুরুর আঘাতটাও মাশরাফিই দিয়েছিলেন। দিনের দ্বিতীয় বলে অজিঙ্কা রাহানেকে উপহার দিয়েছেন ‘গোল্ডেন ডাক’। এরপরই দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও হানা দিয়েছিল বৃষ্টি। দুই ঘণ্টার বেশি সময় খেলা বন্ধ থাকায় ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমিয়ে ৪১ ওভারে নামিয়ে আনা হয়।

খেলা শুরু হতেই তাসকিন চমক। দ্বিতীয়, তৃতীয় ও পঞ্চম—নিজের টানা ৪ ওভারে তিন উইকেট তুলে নিয়ে কাঁপিয়ে দেন ভারতকে। পেস আর সুইংয়ে ভারত তখন দিশেহারা। ৫০ পেরোতে না পেরোতেই নেই ভারতের ৪ উইকেট। বৃষ্টি থামার পর তাসকিন তুলে নেন ফর্মের তুঙ্গে থাকা রবিন উথাপ্পাকে। দুর্দান্ত ইনসুইংয়ে এলবিডব্লু করেন রাইডুকে। এরপর পূজারাকেও সাজঘরে ফেরান এই ১৯ বছর বয়সী।

এরপর স্টুয়ার্ট বিনিকে মুশফিকের ক্যাচ বানিয়ে আর অমিত মিশ্রকে এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলে পূর্ণ করেন নিজের ৫ উইকেট। বাংলাদেশের পক্ষে সব মিলিয়ে এটি তৃতীয় সেরা বোলিং। মেঘলা কন্ডিশন কীভাবে কাজে লাগিয়েছেন বোঝা যাবে এই তথ্যে—৫ উইকেটের চারটিই এলবিডব্লু থেকে তুলে নেওয়া।