শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উল্টো গাড়ি ‘প্রতিরোধ ডিভাইস’ একদিনেই অকেজো!

gaari-300x195ডেস্ক রির্পোট : উল্টোপথের গাড়ি প্রতিরোধের জন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগের স্থাপিত ‘প্রতিরোধ ডিভাইস’ উদ্বোধনের একদিনের মাথায় প্রায় অকেজো হয়ে পড়েছে। এর ত্রুটির কারণে সঠিক পথে গিয়েও গাড়ির চাকা ফুটো হয়েছে। এছাড়া সারাদিন এক সার্জেন্টসহ পাঁচজন ট্রাফিক পুলিশকে দাঁড়িয়ে ডিভাইসটি পাহারা দিতে দেখা গেছে। শনিবার রাজধানীর হেয়ার রোডে সরেজমিনে দেখা যায় উল্টো পথের গাড়ি প্রতিরোধের জন্য স্থাপিত ‘প্রতিরোধ ডিভাইসের’ বেশ কয়েকটি কাঁটা ভেঙে গেছে। বাঁকা হয়ে আছে আরো অনেকগুলো কাঁটা। উদ্বোধনের এক দিনের মাথায় অকেজো হয়ে গেছে যন্ত্রটি। যদিও প্রতিরোধ ডিভাইসটি দেখা-শোনার জন্য সেখানে দু’জন পুলিশ সার্জেন্টসহ আরো কয়েকজনকে নিয়োজিত থাকতে দেখা যায়।

শনিবার বিকেল ৩ টা ৫০ মিনিটে সঠিক পথে ডিভাইসটির উপর দিয়ে একটি গাড়ির যাওয়ার সময় সেটির চাকা অকেজো হতে দেখা যায়। সাদা রঙের প্রাইভেটকারটি (ঢাকা মেট্রো-গ ৩৭-০২৫১) সঠিক পথে এসেও চাকা অকেজো হয়ে যাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন মালিক। সঠিক পথে আসা গাড়ির চাকা ফুটো হয়ে যাওয়ায় সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরাও এ সময় পড়েন বিব্রতকর অবস্থায়।

গাড়িটির চালক শাহীন  বলেন, ‘গাড়ির সঠিক রাস্তায় চালিয়ে আসা হয়েছে কিন্তু কি কারণে চাকাটি পাঙচার হলো তার কিছুই বুঝে উঠতে পারলাম না।’

মালিক নাসির আহমেদ ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, ‘সঠিক পথে গাড়ি চালিয়েও যদি চাকা পাঙচার হয়; এর ক্ষতিপূরণ কে দেবে?

তিনি আরো বলেন, ‘পদ্ধতিটি ভালো কিন্তু এর মেটারিয়ালসগুলো হয়তো ততোটা উন্নত নয়। আমরা চাই এই পদ্ধতিতে এমন ভাল প্রকৃতির মেটারিয়ালস ব্যবহার করা হোক যাতে কাঁটাগুলো ভেঙে না যায়, কিংবা বেঁকে না পড়ে। তাহলে হয়তো সঠিক পথে আসা গাড়িগুলোকে এমন ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে না।

সঠিক পথে আসার পরও যে গাড়িটির (ঢাকা মেট্রো-গ ৩৭-০২৫১) চাকা পাঙচার হয়ে যায় কর্তব্যরত পুলিশ সার্জেন্ট সেটির নাম্বার ও চালকের নামসহ মুঠোফোন নম্বর লিখে রাখেন।

এ বিষয়ে কর্তব্যরত পুলিশ সার্জেন্ট পীজুষ শীর্ষ নিউজকে বলেন, ‘শুক্রবার থেকেই আমি এখানে দায়িত্ব পালন করছি। এটাই প্রথম, এর আগে আর সঠিক পথে এসে চাকা অকেজো হয়নি। গাড়িটি সম্ভবত কাঁটার উপর এসে স্থির হয়ে চাকা ঘুরিয়েছিল যে কারণে এই ঘটনা ঘটেছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এর উপর দিয়ে যাওয়ার নিয়ম হলো স্থির না হয়ে দ্রুত বেগে এসে এটি ক্রস করে চলে যাওয়া।’

কাঁটা ভাঙা ও বেঁকে যাওয়ার ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে দায়িত্বে থাকা পুলিশের এই সার্জেন্ট বলেন, ‘এখানকার এই প্রতিরোধ ডিভাইসটি বসানো হয়েছে হালকা যানবাহন চলাচলের উপযোগী করে কিন্তু রাতে এর উপর দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচলের কারণে কাঁটাগুলো বেঁকে গেছে। তবে এটি আরো মজবুত করা হলে আশা করি আর সমস্যা হবে না।’

এ বিষয়ে কয়েকজন গাড়ি চালকের সঙ্গে কথা বললে তারা দাবি করেন, ‘এই পদ্ধতি অব্যশ্যই ভালো কিন্তু রাস্তায় যে পরিমাণ যানজট থাকে এমন পরিস্থিতিতে এটি নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। কারণ যানজটের কারণে যখন কোনো গাড়ি এটির উপর স্থির হয়ে থাকবে তখন চাকা অকেজো হওয়ার সম্ভাবনা আছে।’

উল্লেখ্য, রাজধানীর সড়কগুলোতে উল্টোপথের গাড়ি প্রতিরোধ করতে প্রাথমিকভাবে শুক্রবার হেয়ার রোডে একটি স্বয়ংক্রিয় ‘প্রতিরোধ ডিভাইস‘ স্থাপন করে ডিএমপির ট্রাফিক দক্ষিণ বিভাগ। পুলিশ মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার যার উদ্বোধন করেন।