মঙ্গলবার, ৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তরমুজ লাল করতে বিষাক্ত কেমিক্যালের ইনজেকশন

tormoz=2এই গরমে একটু প্রশান্তি পেতে আমরা প্রতিনিয়ত যা খাচ্ছি এর মধ্যে তরমুজ উল্লেখযোগ্য। আতঙ্কের বিষয় এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী আমাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় অনেক কিছুতেই বিষাক্ত ফরমালিন বা কেমিক্যাল মেশাচ্ছে। যা মানবদেহের জন্য মারাত্দক ক্ষতিকর। এদেরই একটি অংশ গ্রীষ্মের অসহ্য তাপদাহে অতিষ্ঠ মানুষের স্বস্তির ভরসা হিসেবে খ্যাত তরমুজে মেশাচ্ছে বিষাক্ত ফরমালিন ও কেমিক্যাল। সম্প্রতি কেমিক্যাল যুক্ত তরমুজ খেয়ে কুষ্টিয়ায় দুই সহোদরের করুণ মৃত্যু এবং মানিকগঞ্জে সাত শিশু অসুস্থ হয়েছে। সাধারণত ভেতরের অংশ লাল দেখেই গ্রাহকরা তরমুজ কেনে। তরমুজের ভিতরের এই লাল অংশের প্রতি কোমলমতি শিশুদেরও আগ্রহ বেশি। আর এই সুযোগে অসাধু ব্যবসায়ীরা তরমুজের ভেতরের অংশ টকটকে লাল করতে এক জাতীয় বিষাক্ত রঙ ইনজেকশনের সিরিজ দিয়ে তরমুজের ভেতরের অংশে প্রবেশ করায়। আর এই রঙের সঙ্গে এক প্রকার বিষাক্ত কেমিক্যালও মেশানো হয়, যাতে সহজেই পচন ধরবে না তরমুজে। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের তরমুজ ব্যবসায়ীরা অতি লাভের আশায় তরমুজে বিষাক্ত ফরমালিন ও কেমিক্যাল মেশাচ্ছে। কোনো মহলের নূ্যনতম নজরদারি না থাকায় দেশের অসাধু ব্যবসায়ীরা মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা খেলছে অবাধে। এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. সাহেদুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, এসব বিষাক্ত কেমিক্যাল মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতি করে। এর ফলে হার্ট ফেইলিউরও হতে পারে। বিশেষ করে শিশুদের বেশি ক্ষতি হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গাজীপুরের আওড়াখালি বাজারের এক ব্যবসায়ী জানান, কি করব, সবাই তো মেশাচ্ছে। আমি করলে দোষ কি। মিরপুর সরকারি শিশু হাসপাতালের প্রধান প্রফেসর ডা. রতন নাজির তরমুজ খেয়ে শিশুদের মৃত্যুর বিষয়ে বলেন, ধারণা করা হচ্ছে তরমুজে কেমিক্যাল দেওয়ার ফলে এর বিষক্রিয়া শিশুদের দেহ মেনে নিতে পারেনি। আর এরফলে বিষক্রিয়া হয়ে শিশুদের মৃত্যু হচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে নিজের জমিতে চাষাবাদ করা ব্যতীত অন্য কোনো ফল-ফলাদি শিশু কিংবা বড়দেরও গ্রহণ করা উচিত নয়। খাদ্যপণ্যে ভেজাল প্রতিরোধের মূল দায়িত্বে রয়েছে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউট (বিএসটিআই)। এছাড়া সিটি করপোরেশন-পৌরসভার স্বাস্থ্য বিভাগ, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, স্বাস্থ্য অধিদফতর, জেলা প্রশাসন, র‌্যাব, পুলিশসহ ছয় মন্ত্রণালয়ের ১০টি বিভাগের প্রতি রয়েছে ভেজাল রোধে বিশেষ নির্দেশনা। কিন্তু এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সমন্বয় বলতে কিছুই নেই। যে কারণে মাঝে মধ্যে মোবাইল কোর্ট বা ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে টাকা জরিমানা আদায় করা হলেও নিশ্চিত করা যাচ্ছে না ভেজালমুক্ত খাদ্যপণ্য। ভোক্তা অধিকার কর্মীরা মনে করেন, খাদ্যপণ্যের সবই বাধ্যতামূলকভাবে বিএসটিআইয়ের তালিকায় এনে তা নিয়ন্ত্রণে রাখা। দেশের সাধারণ মানুষ প্রতিনিয়ত যেসব খাবার গ্রহণ করছে, বিশেষ করে খোলা বাজারে যা বিক্রি হচ্ছে তা তদারকি করাও দরকার। এছাড়া যেসব পণ্যে প্রতারণা হয় বেশি এমন সব পণ্যের ওপর নিয়মিত অধিক তদারকি থাকা উচিত। ভোক্তার নির্বাহী পরিচালক খলিলুর রহমান মনে করেন কোনো খাদ্যপণ্যই বিএসটিআইয়ের বাধ্যতামূলক তালিকার বাইরে থাকা উচিত নয়।

এ জাতীয় আরও খবর