বৃহস্পতিবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে কোন্দল : নেতা-কর্মীরা হতাশ ও ক্ষুব্ধ

 

timthumbজাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ এবং তার স্ত্রী, ১০ম জাতীয় সংসদের বিরোধদলীয় নেতা রওশন এরশাদের নেতৃত্বের কোন্দলে তৃণমূল নেতাকর্মীরা হতাশ ও ক্ষুব্ধ। উপজেলা নির্বাচনে ভরাডুবিতে নেতাকর্মীদের এ হতাশা ও ক্ষোভ আরো তীব্র আকার ধারণ করেছে। যদিও এইচএম এরশাদই এদেশে প্রথম উপজেলা পরিষদকে স্থানীয় সরকারের প্রাণ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু দেশের চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনের ফলাফলে দলটির অবস্থান খুবই শোচনীয়। এজন্য তৃণমূল নেতাকর্মীরা এরশাদ ও রওশনের নেতৃত্বের কোন্দলকে দায়ি করছেন। তাদের মতে, ক্ষমতার ভাগাভাগিতে এরশাদ ও রওশনের দ্বন্দ্বের নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে সারাদেশের তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে। জাপা সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।
জাপা সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল সূত্র জানান, জাতীয় পার্টি প্রকৃতপক্ষে কার নেতৃত্বে চলছে তা নিয়ে তৃণমূল নেতাকর্মীরা বিভ্রান্তিতে ভুগছে। দলের শীর্ষ নেতৃত্ব নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর এ টানাপোড়েনই উপজেলা নির্বাচনে দলের ভরাডুবি হয়েছে। দু’দফায় ২ শতাধিক উপজেলায় নির্বাচনে জাপা সমর্থিত মাত্র ২ জন চেয়ারম্যান বিজয়ী হয়েছেন। এ পরিস্থিতিতে কর্মীদের মাঝে প্রশ্ন- কার নেতৃত্বে চলবে জাতীয় পার্টি বিষয়টি পরিস্কার হওয়া দরকার। কারণ তাদের দ্বন্দ্বের কারণে দলের কেন্দ্রীয় কমিটিও কোনো সঠিক নির্দেশনা পাচ্ছে না। ফলে পথ হাঁটতে গিয়ে দলটি অস্তিত্ব সঙ্কটের আশঙ্কা তীব্র হচ্ছে। নানা নাটকীয়তার মধ্যে গত দশম জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টি প্রধান বিরোধী দল হলেও উপজেলা নির্বাচনে ফলাফল খুবই হতাশাজনক। তাছাড়া এরশাদ ও রওশনের কর্মকাণ্ড নিয়ে তৃণমূলে নানা বিতর্ক উঠেছে। পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ কয়েকজন ত্যাগী নেতাকে নিয়ে একাই চলছেন। তিনি একেকবার একেক কথা বলছেন। তাতে দ্বন্দ্বের আভাস পাওয়া গেলেও পরবর্তীতে তা আবার কথার মারপ্যাঁচে খোদ এরশাদই ঘুরিয়ে দিচ্ছেন। আর সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার আকাঙ্খায় অধিকাংশ কেন্দ্রীয় নেতাই এখন রওশনমুখী। এরশাদ তার আপন ছোট ভাই জিএম কাদেরকে ক্ষমতার কাছাকাছি রাখতে সরকারের কাছে বার বার ধর্ণা দিয়েও সফল হচ্ছেন না। রংপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেড়ে দেওয়া আসনে জিএম কাদেরকে সংসদ সদস্য করতে না পেরে এখন তাকে টেকনোক্যাট কোটায় মন্ত্রিসভায় সুযোগ সরকারের কাছে জোর লবিং অব্যাহত রেখেছেন এইচএম এরশাদ। কিন্তু রওশন নিশ্চুপ।
সূত্র জানান, জাপা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ ও বর্তমান ১০ম সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ সরকারের সঙ্গে পৃথকভাবে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। আর ক্ষমতার স্বাদ অব্যাহত রাখতে জাপার অনেক কেন্দ্রীয় নেতাই এখন সুযোগ বুঝে চলছেন। এরশাদের সাথে সকালে আর রওশনের সাথে বিকালে দেখা করে তারা তাদের অবস্থান ঠিক রাখছেন। অথচ চলমান উপজেলা নির্বাচন নিয়ে যখন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি এবং জামায়াত মাঠে উঠেপড়ে নেমেছে সেক্ষেত্রে জাপা অনেকটাই চুপ। এরশাদ এবং রওশন কেউ এ বিষয়ে কোনো কথা বলেননি। ফলে ফলাফলে দলের ব্যাপক ভরাডুবি। এতে ক্ষুব্ধ তৃণমূল নেতাদের অভিযোগ- এরশাদ এবং রওশন দলের দিকে না তাকিয়ে সরকার থেকে সুযোগ-সুবিধা আদায়েই বেশি ব্যস্ত। আর এ ধারা অব্যাহত থাকলে তৃণমূলে জাতীয় পার্টি অস্তিত্বের সঙ্কটে পড়বে।
এদিকে সরকারের দলের পক্ষ থেকে জাতীয় পার্টির বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাচনে জামায়াত ও বিএনপিকে সহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে। সরকারের বাণিজ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, জাতীয় পার্টি বিএনপিকে সমর্থন করায় আওয়ামী লীগের এমন ভরাডুবি ঘটছে। আর বিএনপির প্রার্থীরা বিজয়ী হচ্ছেন। তোফায়েল আহমেদ বলেন, উপজেলা নির্বাচনের মধ্য দিয়ে একটি রাজনৈতিক মেরুকরণ হয়েছে। সেটা হলো রংপুরের মতো জায়গায় বিএনপি জিতেছে। হয়তোবা এ নির্বাচনে জাতীয় পার্টিও বিএনপির সাথে ছিল এবং থাকছে।
অন্যদিকে প্রথম দফা উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি ৪৩টি এবং তাদের মিত্র জামায়াত ১৩টি চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেছে। আর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ৩৩টি এবং তাদের মিত্র ও সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি ১টি মাত্র উপজেলায় জয় পেয়েছে। ২৭ ফেব্র“য়ারি অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনেও বিএনপি ৫১ এবং জামায়াত ৯টি চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেছে। বিপরীতে আওয়ামী লীগ ৪৫টি এবং জাতীয় পার্টি মাত্র ১টি উপজেলায় বিজয়ী হয়েছে। উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের পাশাপাশি ভাইস চেয়ারম্যান পদেও বিএনপি ও জামায়াত ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ জোট থেকে এগিয়ে রয়েছে। এ পদে আওয়ামী লীগ জামায়াতের সমান পদেও  জিততে পারেনি। জামায়াত দ্বিতীয় দফায় ৩০টি ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করে।
উপজেলা নির্বাচনে জাতীয় পার্টির ভরাডুবি প্রসঙ্গে দলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান ও দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা জানান, এরশাদ ও রওশনের দ্বন্দ্বেই মূলত দলটির তৃণমূল পর্যায়ে দুরবস্থা বিরাজ করছে। এরশাদ বা রওশন কেউই উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কোনো নির্দেশনা দেননি। এ কারণ দলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান হয়েও তিনি উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কিছুই বলতে পারছেন না। এবিনিউজ

এ জাতীয় আরও খবর

পোল্যান্ডকে উড়িয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা

ফের আর্জেন্টিনার গোল, ২-০ গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা

পেনাল্টি মিস করলেন মেসি, প্রথমার্ধ গোলশূন্য

পরিবহন ধর্মঘট থাকায় রাতেই মাঠে চলে এসেছেন বিএনপি নেতারা

শাহজালাল বিমানবন্দর : টার্মিনাল এলাকায় যানজট, লাগেজ মাথায় নিয়ে হাঁটছেন বিদেশগামীরা

আপনার শর্ত দেওয়ার দিন শেষ, এখন শর্ত দেবে বিএনপি : গয়েশ্বর

‘আগুন সন্ত্রাসে বিএনপি নয়, আ.লীগই অভ্যস্ত’

আবাহনীকে হারিয়ে ফাইনালে শেখ রাসেল

ষোলো বছরের অপেক্ষা অবসান অস্ট্রেলিয়ার

আন্দোলন দমনে মরিয়া সরকার: ফখরুল

পাকিস্তান প্রেমীদের পাকিস্তানে পাঠিয়ে দেওয়া হবে: শেখ সেলিম

বিএনপির মঞ্চে ‘হেলমেট বাহিনী’র হামলা, পুলিশ বলছে ‘কোন্দল’