শনিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শুরু হলো জাতীয় কবিতা উৎসব

DSC_0256কবিতার রয়েছে অমিত তেজোদ্দীপ্ত এক শক্তি। আর এই শক্তিকে সঙ্গী করে স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের আওয়াজ তোলেন কাব্য সৈনিকরা। ১৯৮৭ সালে শৃঙ্খলমুক্তির ডাক দিয়ে শুরু হয় কবিতার জয়যাত্রা। সেই থেকে পথচলার শুরু। তখন থেকেই কবিতার নমিত উচ্চারণে শুরু হয় কবিতা উৎসব। কালের পথপরিক্রমায় দেশের বিভিন্ন ক্রান্তিলগ্নে স্বাধীনতার পক্ষে-মানবতার পক্ষে-দেশের স্বার্থে-দেশের মানুষের কল্যাণে এবং সর্বোপরি সকল মানবের শান্তির কামনা থাকে কবিতার এই আয়োজনে। সাম্প্রতিক সময়েও জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা ও মানবতাবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে এবং শান্তির পক্ষে জাতীয় কবিতা উৎসব এখনো সমান সোচ্চার। কবিতার এমন তেজোদ্দীপ্ত আওয়াজের মধ্য দিয়ে শুরু হলো দুদিনব্যাপী ২৮তম জাতীয় কবিতা উৎসব। আর এর আয়োজনে রয়েছে জাতীয় কবিতা পরিষদ। ‘কবিতা সহে না দানব-যাতনা’ এই সেøাগানকে সামনে রেখে দুদিনের এই কাব্যায়োজনে সমবেত হয়েছেন দেশী-বিদেশী কবি ও কাব্যপ্রেমীরা। এবারের উৎসব উৎসর্গ করা হয়েছে জাতীয় কবিতা পরিষদের উপদেষ্টা সদস্য ব্যাংকার ও কবি লুৎফর রহমান সরকার এবং পরিষদের সভাপতিম-লীর সদস্য কবি দিলওয়ারকে।
গতকাল শনিবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি চত্বরে এই উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়। জাতীয় পতাকা ও জাতীয় কবিতা উৎসবের পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক এই উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন।
উৎসবের প্রথম দিন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের পাশাপাশি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন ও শিল্পী পটুয়া কামরুল হাসানের সমাধিতেও পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। উদ্বোধনী আয়োজনে একুশের গান ও উৎসব সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়।
উৎসবের উদ্বোধন ঘোষণা করে সৈয়দ শামসুল হক বলেন, জাতীয় কবিতা উৎসবের শুরু হয়েছিল স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে। এরপর বিভন্ন সময়ে জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা ও মানবতাবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে এবং শান্তির পক্ষে জাতীয় কবিতা উৎসব নিয়মিত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
জাতীয় কবিতা পরিষদের সভাপতি কবি হাবিবুল্লাহ সিরাজীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলী, সংস্কৃতি সচিব ড. রণজিৎ কুমার বিশ্বাস, জাতীয় জাদুঘরের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সভাপতি আজিজুর রহমান, জাতীয় কবিতা উৎসবের আহ্বায়ক ড. মুহাম্মদ সামাদ, যুগ্ম আহ্বায়ক তারিক সুজাত, সাধারণ সম্পাদক আসলাম সানী। এছাড়া উদ্বোধনী আয়োজনে সুইডেন, নরওয়ে, ভারত, ফিলিপাইন. নেপাল, অস্ট্রিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আগত কবি এবং জাতীয় কবিতা উৎসবের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
কবিতার জয়যাত্রা ঘোষণা করে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলমুক্তির ডাক দিয়ে যে কবিতা উৎসবের শুরু হয়েছিল ১৯৮৭ সালে, কালের পরিক্রমায় সে আজ ২৭ বছর অতিক্রম করছে। ভাষা আন্দোলন, স্বাধিকার আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ ও গণতন্ত্রের সংগ্রামে বাংলাদেশের কবিরা প্রগতির পক্ষে অবস্থান নিয়েছে।
বক্তারা বলেন, সাম্প্রদায়িকতা একটি মানবতাবিরোধী প্রয়াস। বিভেদ, সন্দেহ, স্বার্থ উসকে দেয় সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প। নিদারুণ হলেও সত্য, বাংলাদেশে আজ আমরা তা প্রত্যক্ষ করছি। আমরা যে কোনো মূল্যে এর থেকে পরিত্রাণ চাই। স্বপ্ন ও সাহসের মাধ্যমে উজ্জীবিত হয়ে প্রাণ ও প্রীতির মিলিত আহ্বানে নির্মূল হোক সাম্প্রদায়িকতা ও সন্ত্রাসের এই বিষবাষ্প।
দুদিনের এই উৎসবে থাকছে বিভিন্ন ভাষার কবিদের মিলনমেলা, স্বরচিত কবিতা পাঠ, আবৃত্তি, কবিতার গান, কবিতা নিয়ে একাধিক সেমিনার ও প্রদর্শনী। এছাড়াও রয়েছে দেশের ভিন্নভাষী নাগরিকদের জন্য অন্য ভাষার কবিতা শিরোনামের একটি পৃথক অধিবেশন।