শনিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মাছ বৃষ্টি!

raining-fish11_3691বৃষ্টি মানে আমরা বুঝি পানির ফোয়ারা পড়বে আকাশ থেকে। কিন্তু পানির সঙ্গে যদি মাছও পড়ে সমান পরিমানে তবে কেমন হয় ব্যাপারটা? আমাদের এই মহাবিশ্বে কত কিছুই না ঘটে থাকে, এর মধ্যেও এমন কিছু ঘটনা ঘটে যা গোটা বিশ্ববাসীকে মুহুর্তেই অবাক করে দেয় । এ রকম অবিশ্বাস্য কিছু ঘটনার ব্যাখ্যা বিজ্ঞানীরা দিতে পেরেছেন, হয়তোবা এর কিছু এখনও রয়ে গেছে অজানা রহস্য। তেমনই এক অদ্ভুত রহস্য হন্ডুরাসের মাছ বৃষ্টি ।

তবে, বিজ্ঞানের সংস্পর্শে হন্ডুরাসের লোকাচার বিদ্যায় মাছ বৃষ্টি এখন একটি সাধারণ ঘটনা। প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, এ অবিশ্বাস্য প্রাকৃতিক ঘটনা ঘটে মে মাস থেকে জুলাই মাসের মাঝামাঝি। প্রথমে আকাশে কালো মেঘ জমে। এরপর শুরু হয় তুমুল বৃষ্টি, সে সঙ্গে প্রবল বাতাস, বিদ্যুৎ চমক আর বজ্রপাত। অবিরাম এই বৃষ্টির সাথে মাটিতে আছড়ে পরে অসংখ্য জীবন্ত মাছ । এ রকম চলে প্রায় ২-৩ ঘণ্টা। আর বৃষ্টি থেমে যাওয়ার পর শত শত জীবন্ত মাছ পড়ে থাকতে দেখা যায় মাটির ওপরে। লোকজন এসব মাছ কুড়িয়ে নিয়ে রান্না করে খায়।

১৯৯৮ সাল থেকে স্থানীয় লোকজন এ প্রাকৃতিক ঘটনার ওপর ভিত্তি করে প্রতি বছর উৎসবেরও আয়োজন করে। ফ্রান্সের প্রকৃতিবিজ্ঞানী এন্দ্রে মেরি এমপেরের মতে, আটলান্টিক মহাসাগরে সংঘটিত টর্নেডো উঠিয়ে নিয়ে আসে এই মাছগুলো এবং ২০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত হন্ডুরাসের ইউরো শহরে ফেলে। তবে প্রতি বছর একই সময় টর্নেডো আটলান্টিক মহাসাগর থেকে মাছ উঠিয়ে এনে ইউরোতেই ফেলবে-এ ধরনের কাকতালীয় ঘটনা অনেকের মতে অসম্ভব। অনেকের মতে এ মাছগুলো স্বাদু পানির এবং সাঁতরে কাছের নদী কিংবা জলাশয় থেকে ভূগর্ভস্থ জলাধারে আশ্রয় নেয়। ভারী বৃষ্টিতে মাটি ধুয়ে গেলে মাছগুলো উন্মুক্ত হয়ে পড়ে। অনেকের মতে, ১৮৫৬-১৮৬৪ সালে হন্ডুরাসে আসা এক সাধুর কারণে এ মাছ বৃষ্টি হয়। কথিত আছে, অনেক অভাবী লোক দেখে সেই সাধু তিন দিন, তিন রাত সৃষ্টিকর্তার কাছে অভাবীদের খাবারের চাহিদা মেটানোর মতো কোনো অলৌকিক ঘটনার জন্য প্রার্থনা করেছিলেন। সেই অলৌকিক ঘটনাই হচ্ছে এই মাছ বৃষ্টি, এমনটাই তাদের বিশ্বাস।

এই অতি-প্রাকৃতিক ঘটনাটির বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা হলো কোন স্হানের জলভাগের ভাগের তাপমাত্রা তৎসংলগ্ন স্হল ভাগের চেয়ে প্রচন্ড ভাবে বৃদ্ধি পেলে সেখানে নিম্নচাপের সৃষ্টি হয় এবং প্রচন্ড বেগে সেই জল উপরে উঠতে থাকে এই বিষয়টাকে আবহাওয়া পদার্থ বিজ্ঞানে Waterspout বলে।

একই বিষয়টি স্হল ভাগে সংঘটিত হলে যেটাকে আমরা বলি টর্নেডো। টর্নেডো খুব শক্তিশালি হলে যেমন অনেক বড়-বড় বস্তুও আকাশে উড়িয়ে নিয়ে যায় ঠিক একই ভাবে Waterspout জল ভাগ থেকে মাছ-ব্যাঙ সহ অন্যান্য জলজ প্রানী আকাশে উঠিয়ে নিয়ে যায়।

Waterspout এর ফলে সৃষ্ট জ্বলীয় বাষ্প যখন অন্য স্হানে বৃষ্টি হিসাবে ভূমিতে পতিত হয় তখন আমরা বৃষ্টির সাথে ঐ সকল মাছ ও ব্যাঙ ও পেয়ে থাকি। তাই মাঝে মাঝে আকাশ থেকে বৃষ্টির সাথে মাছ ও ব্যাঙ ও দেখতে পেলে সেটাকে বিধাতার লিলা-খেলা না বলে প্রাকৃতিক ঘটান বলে মনে করবেন।

এ পর্যন্ত আকাশ থাকে পড়া সবচেয়ে বড় মাছটি ছিল প্রায় ৬ পাউন্ড যা আমাদের প্রতিবেশি দেশ ভারতের কোন স্হানে রেকর্ড করা হয়েছে বলে বিখ্যাত বিজ্ঞান গবেষনা পত্র সাইন্সে পাওয়া যায়।

কিভাবে Waterspout এর কারনে পুকুর, লেক বা জলাভূমি থেকে মাছ সহ অন্যান্য জলজ প্রানী আকাশে উঠে যায় বিবিসি এর একটি ভিডিওতে খুব সুন্দর করে সেটা ব্যাখ্যা করা হয়েছে।ঢাকাটাইমস

এ জাতীয় আরও খবর

আহসান কবীরকে চাপা দেওয়া সিটি করপোরেশনের গাড়িচালক গ্রেপ্তার

নাসিরনগরে স্থায়ী মন্দিরের নিরাপত্তা বিষয়ক মতবিনিময় সভা

নাসিরনগরে ধান ক্ষেত থেকে অজ্ঞাত ব‍্যাক্তির লাশ উদ্ধার

নাসিরনগরে তৈরি হচ্ছে দেশীয় মাছের নানা জাতের শুটকি

বিয়ের আগেই মা হচ্ছেন স্বরা!

রাস্তা হওয়া উচিত ক্যাটরিনার গালের মতো মসৃণ: রাজস্থানের মন্ত্রী

ঢাকায় বিএনপির মশাল মিছিল

খালেদাকে স্লো পয়জনিং করলে বিএনপির লোকেরাই করতে পারে: কাদের

গণতন্ত্রের কথা বলে যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন দেশকে চাপে রাখতে চায়

লাইসেন্স ছাড়াই ডিএসসিসির গাড়ি চলাচ্ছিলেন হারুন-রাসেল: র‌্যাব

সেই লিটন, এই লিটন

ভোলায় মাঝনদীতে চেয়ারম্যান-মেম্বারদের লক্ষ্য করে গুলি, নিহত ১