শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাইসির মৃত্যু নিয়ে যেসব প্রশ্ন

news-image

ইরান কর্তৃপক্ষ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দেশের সর্বোচ্চ ও সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থ হচ্ছে। এর আগে দু’টি ভিন্ন ঘটনায় ইরাক ও সিরিয়ায় তাদের শীর্ষ দু’জন জেনারেল যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েলের হামলায় নিহত হয়েছেন। সর্বশেষ দেশটির প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির হেলিকপ্টার দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু কতগুলো প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে

১. দুর্যোগপূর্ণ ও বৈরী আবহাওয়ার মধ্যে প্রেসিডেন্টকে হেলিকপ্টারে করে অনুষ্ঠানস্থলে নিয়ে যাওয়া হল কেন ?

২. মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, দূর্ঘটনাস্থল আজারবাইজান সীমান্তে যে দু’টি বাঁধের উদ্বোধন করতে তিনি গিয়েছিলেন সেই অঞ্চলের আবহাওয়া বৈরী ছিল। তাহলে প্রশ্ন আসে, আবহাওয়া অধিদপ্তর বিষয়টি আগেই অবহিত করেনি কেন?

৩. হেলিকপ্টারের পাইলট যিনি এর দায়িত্বে ছিলেন তিনি উড্ডয়নের পর বৈরী আবহাওয়া বুঝতে পেরে কেন ফিরে আসলেন না ? যদিও তিনি পরবর্তীতে জরুরি অবতরণ করেন। আর তখনই দুর্ঘটনা ঘটে। এই হেলিকপ্টারের পাইলট কে ছিলেন? তাহলে কি ধরে নেয়া যায়, তিনি ইরানের শত্রুপক্ষের আয়ত্তে ছিলেন?

৪. ভিভিআইপিদের হেলিকপ্টার যাত্রার ক্ষেত্রে সাধারণত প্রেসিডেন্টের সাথে আর কোনও ভিআইপি সফরসঙ্গী হন না। প্রেসিডেন্টের সাথে তার ব্যক্তিগত সহকারীরাই থাকে। কিন্তু এক্ষেত্রে প্রেসিডেন্টের সাথে পররাষ্ট্রমন্ত্রী কেন একই হেলিকপ্টারে সফরসঙ্গী হলেন?

৫. প্রেসিডেন্টকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত। বহরের বাকি দু’টি রাশিয়া নির্মিত হেলিকপ্টার ছিল। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন আসে, অপেক্ষাকৃত কম পুরোনো এই হেলিকপ্টারের যন্ত্রকৌশল দেখভালে নিয়োজিতরা কি ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল? যেখানে যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েলের সাথে সর্বোচ্চ বৈরী সম্পর্ক চলমান, সেসময় কেন ইরানের সর্বোচ্চ গুরুত্বপূর্ণ নেতা যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত হেলিকপ্টার ব্যবহার করছেন?

তাহলে কি আমরা ধরে নিতে পারি, যুক্তরাষ্ট্র-ইজরায়েল ও পশ্চিমা দেশগুলোর বিরুদ্ধে ইরান তাদের সীমানার বাইরে নিজস্ব সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোকে যতবেশি সাহায্য সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে আর অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার ক্ষেত্রে ঠিক ততটাই উদাসীন থাকছে?