মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

news-image

জালিয়াতি করে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ও ফাস ফাইন্যান্স থেকে ৩ হাজার ৪০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে প্রশান্ত কুমার হালদারসহ (পি কে হালদার) ৮৬ জনকে আসামি করে ৫২টি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ওই সব মামলার মধ্যে একটির চার্জশিট দাখিল হচ্ছে শিগগিরই।

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে মামলায় এটি দুদকের প্রথম চার্জশিট। দুদকের উপপরিচালক ও তদন্ত কর্মকর্তা গুলশান আনোয়ার প্রধান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘৫২টি মামলার মধ্যে ৪ নম্বর মামলার চার্জশিট দাখিল হচ্ছে।’ ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে ৭০ কোটি ৮২ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০২১ সালের ২১ জানুয়ারি এ মামলা করেন দুদকের প্রধান কার্যালয়ের উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান। মামলায় আসামি করা হয় পি কে হালদারসহ ২৩ জনকে। মামলাটি তদন্ত করেন তিনি নিজেই। গুলশান আনোয়ার বলেন, ‘গত ২০ মার্চ চার্জশিটের প্রতিবেদন কমিশনে জমা দেওয়া হয়। এরপর কমিশন প্রতিবেদনটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে গত ৭ এপ্রিল চার্জশিট দায়েরের অনুমোদন দেয়। কমিশনের নিজস্ব ফরমেটে চার্জশিট তৈরি হচ্ছে। কাজটি শেষ হলে শিগগিরই তা আদালতে পেশ করা হবে।’ পর্যায়ক্রমে অন্যান্য মামলার চার্জশিট আদালতে দেওয়া হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

দুদক সূত্রে জানা যায়, তদন্তে পি কে হালদারের বিরুদ্ধে জালিয়াতি করে অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে ৭০ কোটি ৮২ লাখ টাকা আত্মসাতের প্রমাণ মিলেছে। সে অনুযায়ী চার্জশিট দাখিলের প্রস্তুতি চলছে। চার্জশিটে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক ও রিলায়েন্স ফাইন্যান্সের সাবেক এমডি পি কে হালদারসহ ২৩ জনকে আসামি করা হচ্ছে। পি কে হালদার বর্তমানে ভারতের জেলে রয়েছেন।

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে যে ৫২টি মামলা হয়েছে, তার সবকটিতে তিনি প্রধান আসামি। গুলশান আনোয়ার প্রধানের নেতৃত্বে দুদকের একটি বিশেষ টিম বাকি মামলাগুলো তদন্ত করছে।

পি কে হালদার এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) থাকাকালে নানা আর্থিক অনিয়মে জড়িয়ে পড়েন। কৌশলে রিলায়েন্স ফাইন্যান্সের এমডি হন তিনি। একাধিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদে নিজের লোক বসান। জালিয়াতি করে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ও ফাস ফাইন্যান্স থেকে ৩ হাজার ৪০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেন।

দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা জানান, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে পি কে হালদার কীভাবে ৭০ কোটি ৮২ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন, তার বিবরণ চার্জশিটে তুলে ধরা হবে। তিনি জানান, ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক এমডি মো. রাশেদুল হক ২০০০ সালে প্রতিষ্ঠানটিতে শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। ২০০৬-০৭ সালে ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যান্ড ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট ফাইন্যান্স কোম্পানিতে (আইআইডিএফসি) এভিপি পদে পি কে হালদারের অধীনে চাকরি করেন তিনি। ২০১১-১২ সময়ে রিলায়েন্স ফাইন্যান্সের এসভিপি হন। পি কে হালদার তখন প্রতিষ্ঠানটির এমডি।

ওই সময় গ্রাহকের ট্রেড লাইসেন্স ব্যবহার করে অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ অনুমোদন করে প্রতিষ্ঠানটি। এভাবে ঋণের নামে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করা হয়। এই কাজে পি কে হালদারকে সহায়তা করেন রিলায়েন্স ফাইন্যান্সের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা রুনাই আহমেদ, আল মামুন সোহাগ ও রাফসান আহমেদ চৌধুরী। পি কে হালদার তখন তাঁর আত্মীয়স্বজনকে অস্তিত্বহীন কোম্পানির মালিক সাজিয়ে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের গ্রাহক করেন। তারা প্রথমে ঋণপ্রস্তাব জমা দেন। পরে সোহাগ, রাফসানসহ অন্যরা সেগুলো সাবেক এমডি রাশেদুল হকের কছে পাঠান। যাচাই-বাছাই ও জামানত ছাড়াই পি কে হালদারের নির্দেশে ওইসব ঋণপ্রস্তাব অনুমোদন করেন রাশেদুল হক। এরপর পি কে হালদার প্রতিষ্ঠানটির বোর্ড সভায় উপস্থিত থেকে প্রভাব খাটিয়ে প্রস্তাবগুলো অনুমোদন করান।

দুদকের মামলায় জেলে রয়েছেন ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক এমডি রাশেদুল হক। আদালতে জবানবন্দিতে তিনি বলেছেন, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং পর্ষদের সদস্যরা ছিলেন পি কে হালদারের লোক। তাঁর আত্মীয় ও ঘনিষ্ঠদের মধ্যে মো. নওশের উল ইসলাম, মমতাজ বেগম, পাপিয়া ব্যানার্জি, বাসুদেব ব্যানার্জি ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের পরিচালক ছিলেন। তারা নিজেদের ভুয়া প্রতিষ্ঠান এমএসটি মেরিন, এমএসটি ফার্মা, নিউট্রিক্যাল ও জিএন্ডজি এন্টারপ্রাইজের নামে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে ঋণ নিয়ে ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাবে স্থানান্তর করেন। পি কে হালদার পরে সেই অর্থ তাঁর ব্যাংক হিসাবে নেন এবং বিদেশে পাচার করেন। সাবেক এমডি রাশেদুল হক ও তাঁর সহকর্মীরা অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠান আনাম কেমিক্যাল, রহমান কেমিক্যাল, নর্দান জুটসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামেও ঋণ অনুমোদন করেন। পরে ওই টাকাও স্থানান্তর হয় পি কে হালদারের হিসাব নম্বরে।

দুদক কর্মকর্তারা জানান, অমিতাভ অধিকারী হলেন পি কে হালদারের খালাতো ভাই এবং উজ্জ্বল কুমার নন্দী তাঁর সহকর্মী। এর মধ্যে উজ্জ্বল ছিলেন পিপলস লিজিংয়ে চেয়ারম্যান ও অমিতাভ পরিচালক। ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত তারা দায়িত্ব পালন করেন। জালিয়াতি করে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে ঋণ নিয়ে সেই টাকায় পিপলস লিজিংয়ের চেয়ারম্যান ও পরিচালক হয়েছিলেন তারা। পরে একই কায়দায় পিপলস লিজিং থেকে অর্থ আত্মসাৎ করেন।

দুদক যে মামলায় চার্জশিট দিতে যাচ্ছে, তাতে প্রধান আসামি করা হচ্ছে অস্তিত্বহীন সুখাদা প্রপার্টিজের পরিচালক ও রিলায়েন্স ফাইন্যান্সের এমডি পি কে হালদারকে। অন্য আসামিরা হলেন– আনান কেমিক্যালসের এমডি অমিতাভ অধিকারী, আনান কেমিক্যালসের পরিচালক প্রিতিশ কুমার হালদার, উজ্জ্বল কুমার নন্দী, পূর্ণিমা রানী হালদার, রাজীব সোম, রতন কুমার বিশ্বাস ও ওমর শরীফ; ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের পরিচালক মো. নুরুল আলম, নাসিম আনোয়ার, মো. নুরুজ্জামান, এম এ হাশেম, মোহাম্মদ আবুল হাসেম, জহিরুল আলম, মো. আনোয়ারুল কবীর, মো. নওশেরুল ইসলাম ও বাসুদেব ব্যানার্জি; ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক এমডি রাশেদুল হক, সাবেক ভারপ্রাপ্ত এমডি সৈয়দ আবেদ হাসান, ভিপি নাহিদা রুনাই, এভিপি আল মামুন সোহাগ, সিনিয়র ম্যানেজার রাফসান রিয়াদ চৌধুরী ও কোম্পানি সচিব রফিকুল ইসলাম খান। আসামিরা প্রতারণা ও জাল-জালিয়াতি করে ঋণের নামে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের ৭০ কোটি ৮২ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে চার্জশিটে উল্লেখ থাকছে।