সোমবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

২ আগস্ট রংপুরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

news-image

হারুন উর রশিদ সোহেল,রংপুর : আগামী ২রা আগস্ট বুধবার রংপুর সফরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। এদিন দুপুরে রংপুরের ঐতিহাসিক জিলা স্কুল মাঠে বিভাগীয় জনসভায় তার বক্তব্য রাখার কথা রয়েছে। এতে তিনি আবারো রংপুরের উন্নয়নে সুখবর দিবেন বলে দলীয় সূত্রে জানাগেছে।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার আগমন ও জনসভা সফল করতে মাইকিং, লিফলেট বিতরণ, প্রস্তুুতি সভা সহ নানা কর্মকান্ড পরিচলনা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই তাকে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানানোর জন্য সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন দলীয় নেতাকর্মীরা। ব্যাপক লোক সমাগমের টার্গেটও নেয়া হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, দীর্ঘদিন পর রংপুরে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার আগমন ও জনসভা উপলক্ষ্যে নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসবের আমেজ লক্ষ্য করা গেছে। রংপুর মহানগরীসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলা-গ্রাম ও বিভাগের আট জেলার বিভিন্ন স্থানে বিলবোর্ড, ব্যানার ও ফেস্টুন দেয়ার হিড়িক পড়েছে। চলছে মাইকিং, লিফলেট বিতরণ। দলীয় সংসদ সদস্য, মনোনয়ন প্রত্যাশীসহ শীর্ষ নেতারা গ্রাম-গঞ্জে গণসংযোগ ও মতবিনিময় সভা করে দলটির নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষজনকে বিভাগীয় জনসভায় উপস্থিত থাকার আহ্বান জানাচ্ছেন। বসে নেই আওয়ামী লীগের মিত্র দলগুলোর নেতরা। তারাও নিজেদের মতো করে প্রচারণা করছেন।

এদিকে যেসব নেতাকর্মী প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে বিলবোর্ড, পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন দিচ্ছেন- তারা সেখানে আওয়ামী লীগের সরকারের উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরছেন। কেউ অল্প পরিসরে আবার কেউবা বিশদ আকারে উন্নয়ন চিত্র তোলে আনছেন। বিলবোর্ড, ব্যানার ও ফেস্টুনের রংপুর বিভাগ, সিটি করপোরেশন, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, মেট্রোপলিটন পুলিশ, পল্লী উন্নয়ন একাডেমী, মেরিন একাডেমী, বঙ্গবন্ধু নভথিয়েটার, তিস্তা সেচ প্রকল্প একনেকে পাস, ছয়লেন সড়ক, মেডিকেলে আধুনিক আইসিউ ও সিসিইউ তৈরি, তিস্তা সড়ক সেতু ও গঙ্গাচড়ায় শেখ হাসিনা সেতু, শত শত সেতু কালভার্ট নির্মাণ, জেলা ও উপজেলার রাস্তা, মিঠাপুকুরে ইকোপার্ক সংস্কার, পীরগাছায় মহিষ প্রজনন কেন্দ্র, গঙ্গাচড়া আধুনিক অঞ্চল গড়ে তোলার কাজ ,রংপুরের উন্নয়নের প্রক্রিয়াধীন, ২টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ কাজ চলমান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আঞ্চলিক শাখা, বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল হাসপাতাল ও রংপুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ প্রক্রিয়াধীন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যায়ের আঞ্চলিক শাখা, কয়েকটি স্পেশাল ইকোজোন গড়ে তোলার কাজ প্রক্রিয়াধীন,প্রতিটি উপজেলায় মডেল মসজিদ, আধুনিক কেন্দ্রীয়বাস টার্মিনাল, রংপুর এক্সপ্রেস সিরাজগঞ্জ বগুড়া হয়ে চলাচলে সুবিধা, সিভিল সার্জন ও পুলিশ সুপারের নতুন ভবন, আধুনিক পুলিশ লাইন নির্মাণ, বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া সংস্থার ভবন, ক্যান্সার হাসপাতাল নির্মাণ, বিভাগীয় সদর দপ্তর ও র‌্যাব ১৩ এর ভবন, ১০০ শয্যার শিশু হাসপাতাল, পুলিশ হাসপাতাল, পরমাণু বিজ্ঞানী ডক্টর এমএ ওয়াজেদ মিয়া হাইটেক পার্ক, সরকারি নার্সিং কলেজ, শেখ রাসেল স্টেডিয়াম সংস্করণ, আঠার তলা বিশিষ্ট জেলা পরিষদ সুপার মার্কেট নির্মাধীন উল্লেখ্য যোগ্য উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরছেন। তারা উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরে শেষে বলছেন রংপুরে মঙ্গা নেই। অবহেলিত রংপুর অঞ্চল আর আগের মতো নেই। বদলে গেছে।উন্নয়ন চিত্রে বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভতা মাতৃকালীন ভাতাসহ বিভিন্ন ভাতা, ওএমএস ও টিসিবির মাধ্যমে ন্যায্য মূল্যে পণ্য বিক্রির বর্ণনা দেয়া রয়েছে।

দলটির নেতাকর্মীরা জানান, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে রংপুর সহ এই বিভাগে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। সাধারণ মানুষের একটা অংশ তা জানে না। সরকারের এসব উন্নয়ন চিত্র মানুষজনকে জানানোর জন্য এটাই উপযুক্ত সময় বলে তারা মনে করেন।রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম জানান, দেশের উন্নয়নে আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনাকে বারবার দরকার। তার আমলেই রংপুরসহ সারাদেশেই উন্নয়নের জোয়ার বইছে।

এব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. রেজাউল করিম রাজু বলেন, রংপুরের পুত্রবধূ শেখ হাসিনার আগমন ঘিরে দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে আনন্দ বিরাজ করছে। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে সারাদেশের ন্যায় রংপুর বিভাগজুড়ে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। বেশকিছু উন্নয়ন কর্মকান্ড প্রক্রিয়াধীনও রয়েছে।  প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে রংপুরের মানুষের আরোও প্রত্যাশা তৈরি হয়েছে। আশা করি জনসভা থেকে তিনি নতুন করে রংপুরের উন্নয়নে আবারোও বার্তা দিবেন।

রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক আবুল কাশেম বলেন, রংপুরের পুত্রবধূ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টানা তিনবার রাষ্ট্রক্ষমতায় থেকে রংপুরকে যেভাবে উন্নয়নের মোড়কে সাজিয়েছেন, তা বিগত সময়ে কোনো সরকার করতে পারেনি।ও ংপুরে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়েছে। এখন মঙ্গাপীড়িত রংপুর বলা হয় না, কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার প্রতিশ্রুতি পূরণের মধ্যদিয়ে রংপুর থেকে মঙ্গা দূর করেছেন। মানুষের ভাগ্য বদলের সঙ্গে সঙ্গে রংপুর অঞ্চলের ব্যাপক উন্নয়ন ও পরিবর্তন হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

পুলিশের ৪০০ সদস্য পাচ্ছেন পদক

ভারতীয় বিমান বাহিনীর প্রধান এখন ঢাকায়

হাথুরুসিংহেকে ‘শোকজ’ করবেন পাপন!

পদত্যাগ করলেন ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী

শিক্ষা সফরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মদপান, ভিডিও ভাইরাল

প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্য খাতে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছেন : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

‘১৫ বছরে শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সামগ্রিক চিত্র পাল্টে দিয়েছেন’

নিশাম ঝড়ে রংপুরের চ্যালেঞ্জিং স্কোর

বিডিআর বিদ্রোহ ঘটিয়েছিল বিএনপি : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আর্থ-সামাজিক সূচকে অনেক দেশের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

ফের টেকনাফ সীমান্তে গোলাগুলির শব্দ

পুলিশ সপ্তাহ শুরু কাল, উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী