বৃহস্পতিবার, ২৩শে মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ৯ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হু হু করে বাড়ছে সব কিছুরই দাম

news-image

ডেস্ক রিপোর্ট : শুধু ভোগ্যপণ্যই নয়, নিত্যপ্রয়োজনীয় অন্যান্য যত পণ্য আছে, সে সব পণ্যের দামও হু হু করে বেড়ে গেছে। শুধু কি তাই? শিক্ষা উপকরণসহ প্রয়োজনীয় ওষুধপত্রের দামও বাড়ছে; বাড়ছে শিশুপণ্যের দাম। পরিবহন ভাড়া ও পানির দাম গত বছরই এক লাফে অনেকটা বেড়েছে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে নির্মাণসামগ্রীর দামও। এই যখন দশা, তখন মাত্র ১৯ দিনের ব্যবধানে দুই দফায় বেড়েছে বিদ্যুতের দাম; গ্যাসের দাম। সব মিলিয়ে, সব কিছুরই মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে নাগামছাড়া।

মূল্যবৃদ্ধির এ খড়্গ এসে পড়েছে সাধারণ মানুষের ওপর। এমনিতেই চাপে আছে সাধারণ মানুষ। নতুন করে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বেড়ে যাওয়ায় পরিবার-পরিজন নিয়ে টিকে থাকাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ জীবনযাত্রার ব্যয় লাগাতার বাড়লেও আয় সেই তুলনায় বাড়ছে না। নিম্নআয়ের মানুষ তো বটেই, মধ্যবিত্তরাও অতিরিক্ত খরচ সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন। মূল্যস্ফীতির চাপে ২০২২ সালটা সাধারণ মানুষের জন্য একদমই স্বস্তির ছিল না। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন বছরের শুরুতে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি মূল্যস্ফীতিকে আরও উসকে দেবে। জীবনযাত্রার ব্যয়েও এর প্রভাব পড়বে।

ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) বলছে, ২০২২ সালে জীবনযাত্রার ব্যয় ১০ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়েছে। ২০২১ সালে এ ব্যয় বেড়েছিল ৬ দশমিক ৯২ শতাংশ। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে জীবনযাত্রার ব্যয় ৩ দশমিক ১৬ শতাংশ বেশি বেড়েছে। কিন্তু সেই তুলনায় মানুষের উপার্জন বাড়েনি। ফলে ব্যয়ের সঙ্গে দৌড়ে কুলিয়ে উঠতে পারছে না আয়; হিসাব মেলাতে পারছেন না অধিকাংশ পরিবারের কর্তাব্যক্তি।

বছরের শুরুতেই বেড়েছে বাড়ি ভাড়া। বাজারে চাল, ডাল, তেল, চিনি, মাছ, মাংস, ডিম, মসলা থেকে শুরু করে নিত্যব্যবহার্য সব পণ্যের দাম দফায় দফায় বেড়েছে। বাড়তি ব্যয়ের চাপ সামাল দিতে অনেক পরিবারেই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় কাটছাঁট করতে হচ্ছে। দরকারি ওষুধপত্রের দামও বেড়েছে। বেড়েছে শিক্ষা উপকরণের দাম। ফলে সন্তানের পড়াশোনা চালিয়ে নেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। সাধারণ মানুষের মধ্যে যারা কষ্টেসৃষ্টে কিছু সঞ্চয় করেছিলেন, তাদের সেই সঞ্চয় ফুরিয়ে গেছে বাড়তি ব্যয় সামাল দিতে গিয়ে; ঋণগ্রস্তও হয়ে পড়ছেন কেউ কেউ।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় চলতি বছর মানুষের ওপর চাপ আরও বেড়ে যাবে। এ চাপ কতটুকু নেওয়া সম্ভব, সেটাই প্রশ্ন।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের ডিসেম্বর মাসে বিভিন্ন খাতের আয় বেড়েছে ৭ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ, ২০২১ সালের ডিসেম্বরে এটি ছিল ৬ দশমিক ১১ শতাংশ। অন্যদিকে একই সময়কালে মূল্যস্ফীতির হার ৬ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ থেকে বেড়ে ৮ দশমিক ৭১ শতাংশ হয়েছে। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে আয় বেড়েছে শূন্য দশমিক ৯২ শতাংশ আর মূল্যস্ফীতি বেড়েছে ২ দশমিক ৬৬ শতাংশ। বিবিএসের হিসাব অনুযায়ী আয়ের চেয়ে ব্যয় ১ দশমিক ৭৪ শতাংশ বেশি বেড়েছে। অবশ্য বিবিএসের এসব তথ্য নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে একাধিক বেসরকারি গবেষণা সংস্থার। তাদের মতে এ ব্যবধান আরও বেশি।

এমন প্রেক্ষাপটে জানুয়ারিতে মাত্র ১৯ দিনের ব্যবধানে সরকার বিদ্যুতের দাম দুই দফায় প্রায় ১১ শতাংশ বাড়িয়েছে। সেই সঙ্গে শিল্প ও বাণিজ্যিক গ্যাসের দাম এক ধাক্কায় তিনগুণ বাড়ানো হয়েছে। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পে বৃদ্ধির হার সর্বাধিক। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ও সেবার মূল্যের ঊর্ধ্বগতির মধ্যেই গতকাল ভোক্তা পর্যায়ে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) দাম ২১ দশমিক ৫৭ শতাংশ বাড়িয়েছে সরকার। গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ফলে সব খাতেই ব্যয় বাড়ছে অর্থাৎ উৎপাদন খরচ বাড়ছে। কাজেই বাড়ছে পণ্য ও সেবার মূল্যও। এ মূল্যবৃদ্ধির খড়্গ এসে পড়ছে সাধারণ মানুষের কাঁধে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, গ্যাসের দাম বাড়ার কারণে রপ্তানিমুখী শিল্পের পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলোতেও উৎপাদন খরচ বেড়ে যাবে। এতে পণ্যের দামও বেড়ে যাবে। বর্তমানে দেশে মূল্যস্ফীতির হার একটু বেশি। এমন সময় জিনিসপত্রের দাম বাড়লে নিম্নআয়ের মানুষের জীবন আরও কঠিন হয়ে যাবে।

ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজুমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, বলা হচ্ছে মাথাপিছু আয় বেড়েছে। তবে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষের তুলনায় উচ্চবিত্তের আয় অনেক বেশি। দিন দিন এ বৈষম্য বাড়ছে। অন্যদিকে ব্যবসায়ীদের লোভ বেড়ে চলেছে। অতি মুনাফার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। যা পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। এ রকম পরিস্থিতিতে মূল্যস্ফীতি সাধারণ মানুষের জন্য কাল হয়ে এসেছে।

তিনি আরও বলেন, মানুষের আয়-রোজগার যখন বাড়ে তখন নিত্যপণ্যের মূল্য বাড়লেও সহনীয় হয়। কিন্তু অনেক মানুষের আয়-রোজগার বাড়েনি। কর্মজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষের অবস্থা বেশি সংকটাপন্ন। গত বছর খারাপ গেছে। কিন্তু এ বছর যে ভালো যাবে, তেমন কোনো আশার আলো দেখছি না।

বাজার চিত্র বলছে, বর্তমানে আটা, ময়দা, তেল, ডাল, চিনি, দুধ, বিদেশি ফলসহ অনেক পণ্যই সীমিত ও স্বল্প আয়ের মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে রয়েছে। সয়াবিন তেলের দাম অনেক আগেই তরতর করে লাফিয়ে অনেক বেড়ে গেছে, আর কমেনি। বেড়েছে আটা-ময়দার দামও। আমন চাল বাজারে উঠার পরও চালের দাম কিন্তু সেই চড়া-ই রয়ে গেছে, নিচে নামেনি বলা চলে। ডালের দামও বাড়তি। চিনির বাজারও হুট করেই এক লাফে সেই যে বেড়েছে, আর কমেনি। মার্চের শেষ সপ্তাহে শুরু হবে রমজান। অথচ আমদানি কম অজুহাতে এখনই বেড়ে যাচ্ছে খেজুরসহ বিদেশি ফলের দাম। অন্যদিকে পোল্ট্রি ফিডের দাম বাড়ায় বেড়েছে মুরগি ও ডিমের দাম। অনেক পরিবারের খাবারের মেনু থেকে গরুর মাংস কাটা পড়েছে অনেক দিন আগেই। ভাতের সঙ্গে পাতে সামান্য শাক-সবজির ে জোগান দিতেও অঙ্ক কষতে হচ্ছে নিম্নআয়ের পরিবারে। খেই হারিয়ে ফেলছে মধ্যবিত্তরাও।

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) বাজার পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনেও উঠে এসেছে, বছরের ব্যবধানে সব ধরনের নিত্যপণ্যের দাম অনেক হারে বেড়েছে। সংস্থাটির গতকালের সর্বশেষ প্রতিবেদনে প্রয়োজনীয় দশটি পণ্যের এক বছরের মূল্য পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, চালের (মোটা, মাঝারি ও সরু) দাম গড়ে ৩ দশমিক ৪৩ শতাংশ, আটার (খোলা ও প্যাকেট) দাম গড়ে ৬২ দশমিক ৫১ শতাংশ, সয়াবিন (খোলা ও বোতল) তেলের দাম গড়ে ১৫ দশমিক ১৬ শতাংশ, মসুর ডালের (বড়, মাঝারি ও ছোট দানা) দাম গড়ে ৭ দশমিক ৪ শতাংশ, চিনির দাম (খোলা) ৫০ দশমিক ৩৩ শতাংশ, পেঁয়াজের (দেশি) দাম ১৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ, রসুনের দাম (দেশি ও আমদানিকৃত) গড়ে ১০০ শতাংশ, ডিমের (ফার্মের) দাম ২৬ শতাংশ, গরুর মাংসের দাম ২০ দশমিক ৩৪ শতাংশ এবং মুরগির (ব্রয়লার) দাম ২২ দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়েছে। এ হিসাব অনুযায়ী গত এক বছরে দশটি পণ্যের দাম গড়ে ৩২ দশমিক ৪২ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে।

এ ছাড়া টিস্যু, টুথপেস্টের দাম ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। গায়ে দেওয়া সাবান, নারিকেল তেল, হ্যান্ডওয়াশ, শ্যাম্পুসহ অন্যান্য নিত্যসামগ্রীর দামও ঊর্ধ্বমুখী। গুঁড়া দুধের দাম (চারটি ব্র্যান্ড) বছরের ব্যবধানে গড়ে ৩৪ দশমিক ১৭ শতাংশ বেড়েছে। পাশাপাশি ডায়াপার, ফিডারসহ অন্যান্য শিশুপণ্যের দামও বেড়েছে। সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমদানি ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়ার পাশাপাশি নানান জটিলতায় শিশুপণ্যের দাম বেড়েছে।

এদিকে খাতা, কলম, পেনসিল ও স্কুলব্যাগসহ শিক্ষা উপকরণের দামও অনেক বেড়ে গেছে। তাই সন্তানের পড়াশোনার ব্যয় মেটাতে গিয়ে অতিরিক্ত চাপে রয়েছে সীমিত আয়ের মানুষ।

রাজধানীর কদমতলী এলাকায় গৃহকর্মীর কাজ করেন মোসাম্মৎ নাসিমা আক্তার। জিনিসপত্রের দাম লাগামহীনভাবে বেড়ে যাওয়ায় তার পরিবারের সদস্যদের খাদ্যের পরিমাণ কমাতে হয়েছে। চারটি বাসায় কাজের বিনিময়ে মাসে ৮ হাজার টাকা পান। এ দিয়ে বাড়ি ভাড়া আর বাজার খরচই সামাল দিতে পারছেন না। তাই নতুন পোশাক কেনা হয় না অনেক দিন। এমনকি নিতান্ত বাধ্য না হলে ডাক্তারের শরণাপন্নও হন না। খরচ বাঁচাতে সপরিবারে বিয়েশাদিসহ সামাজিক অনুষ্ঠান এড়িয়ে চলছেন তিনি, জানান মধ্যবয়সী নাসিমা। তিনি বলেন, ‘সব কিছুর দাম খালি বাড়তাছেই। যামু কই? পড়াশোনার খরচাপাতি এমন বাড়ছে, ছোট পোলাডার লেখাপড়া বন্ধ কইরা ওরে কারখানায় কাজে দিয়া দিছি। খরচ বাচল, সংসারে কিছু টাকাও আসল।’

বেসরকারি চাকরিজীবী মো. এনামুল হক বলেন, বেতনের ২৫ হাজার টাকার সিংহভাগই বাড়ি ভাড়ার পেছনে চলে যায়। বছরের শুরুতে বাড়ি ভাড়া ৫০০ টাকা বেড়েছে। বাজার খরচও লাগামছাড়া। জমানো টাকাও শেষ। এখন পরিবারের কেউ অসুস্থ হলে ¯্রফে ঋণ করতে হচ্ছে।

করোনার প্রভাব কাটতে না কাটতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্ববাজারে খাদ্য, জ্বালানিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় অনেক পণ্যসামগ্রীর দাম ও জাহাজ ভাড়া বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে আমদানিনির্ভর দেশগুলো বেশি বেকায়দায় পড়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর পর্যন্ত) দেশে আমদানি এলসি খোলা কমেছে প্রায় ১২ বিলিয়ন ডলার। আন্তর্জাতিক বাজারে বেশি দাম, ডলার সংকট, আমদানি কম- এসব কারণ দেখিয়ে আমদানিনির্ভর পণ্যের দাম বাড়াচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।

আমদানি কমে যাওয়ায় রোজার আগেই বাজারে বিদেশি ফলের দামে আগুন। আপেল, কমলা ও আঙ্গুরের দাম কেজিপ্রতি ২০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি। এমনকি, দেশি ফলের দাম পর্যন্ত অনেকের নাগালের বাইরে চলে গেছে।

এদিকে আটা-ময়দা, তেল, চিনিসহ নিত্যপণ্যের পাশাপাশি বিদ্যুৎ ও এলপি গ্যাসের দাম বাড়ায় রেস্তোরাঁর খাবার ও বেকারি পণ্যের দামও বেড়েছে। বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির মহাসচিব ইমরান হোসেন এবং বাংলাদেশ ব্রেড, বিস্কুট অ্যান্ড কনফেকশনারি প্রস্তুতকারক সমিতির সভাপতি জালাল উদ্দিন জানান, এর আগেও এক দফা খাদ্যপণ্যের দাম বাড়ানো হয়েছে। বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় আরেক দফা হয়তো বাড়াতে হবে। তারা এমনটাই ভাবছেন বলে জানান।

গ্যাসের দাম বাড়ার ঘোষণায় রডের দামও লাফিয়ে বাড়ছে। টিসিবির পর্যবেক্ষণ বলছে, সপ্তাহের ব্যবধানে পণ্যটির দাম টনপ্রতি আড়াই হাজার থেকে ছয় হাজার টাকা বেড়েছে। বছরের ব্যবধানে মানভেদে (৪০ ও ৬০ গ্রেড) রডের দাম গড়ে ১৮ দশমিক ৬৯ শতাংশ বেড়েছে। সেই সঙ্গে সিমেন্টসহ অন্যান্য নির্মাণসামগ্রীর দামও বাড়ছে। যারা জীবনযাত্রার ব্যয় মিটিয়ে অল্প অল্প করে টাকা জমাচ্ছিলেন, বাড়ি করার স্বপ্ন নিয়ে, তাদের সেই স্বপ্ন পুড়ে ছাই হয়ে গেছে মূল্যবৃদ্ধির আগুনে। সূত্র : দৈনিক আমাদের সময়

এ জাতীয় আরও খবর

মানুষকে নির্বাক রাখতে রাষ্ট্রযন্ত্রকে নির্দয়ভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে : মির্জা ফখরুল

শেখ হাসিনার শারীরিক সক্ষমতা থাকা পর্যন্ত সরকার হটানো যাবে না : হানিফ

আমি অন্যায় করিনি, অন্যায়টা আমার সঙ্গে হয়েছে : শাকিব খান

২৫ মার্চ এক মিনিট অন্ধকারে থাকবে দেশ

যে কারণে ইফতারে খেজুর খাবেন

রমজানে নিত্যপণ্যের দাম বাড়বে: পরিকল্পনামন্ত্রী

৭০ বছর বয়সে বিয়ে করলেন কলেজশিক্ষক

ইতিহাস গড়লেন টাইগার ৩ পেসার

বগুড়ার সেই বিচারককে প্রত্যাহার, হারালেন বিচারিক ক্ষমতাও

আরাভ খানের অবস্থান কোথায়, জানাল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

ব্রয়লার মুরগির নতুন দাম নির্ধারণ, কাল থেকে কার্যকর

তত্ত্বাবধায়ক সরকার কখনো ফিরে আসবে না: তথ্যমন্ত্রী